This Article is From Sep 04, 2019

“প্রতিহিংসার রাজনীতি”, ডিকে শিবকুমারের গ্রেফতারি নিয়ে বললেন রাহুল গান্ধি

ডিকে শিবকুমারের গ্রেফতারিকে কেন্দ্রের “প্রতিহিংসার রাজনীতি” বলে মন্তব্য করেছে কংগ্রেস

“প্রতিহিংসার রাজনীতি”, ডিকে শিবকুমারের গ্রেফতারি নিয়ে বললেন রাহুল গান্ধি

ডিকে শিবকুমারের গ্রেফতারের পরে, রাহুল গান্ধি বলেন, নির্দিষ্টভাবে নেতাদের টার্গেট করছে কেন্দ্র

নয়াদিল্লি:

আর্থিক তছরূপের অভিযোগে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গ্রেফতার করা হয়েছে কর্ণাটকের কংগ্রেস নেতা ডিকে শিবকুমারকে, তা নিয়ে ট্যুইট করলেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধি। কর্ণাটকের কংগ্রেস নেতাকে গ্রেফতার করে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট, তাদের অভিযোগ, তদন্ত সহযোগিতা করছেন না শিবকুমার..একপক্ষ আগে, প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদাম্বরমে গ্রেফতারের ক্ষেত্রেও একই অভিযোগ তুলেছিল তারা। ট্যুইটে রাহুল গান্ধি লেখেন, “ডিকে শিবকুমারের গ্রেফতারি সরকারের প্রতিহিংসার রাজনীতির আরও একটি প্রকাশ, ইডি ও সিবিআইয়ের মতো সংস্থা এবং একশ্রেণী সংবাদমাধ্যমকে কাজে লাগানো হচ্ছে”।

আর্থিক তছরূপের অভিযোগে গ্রেফতার কংগ্রেস নেতা ডিকে শিবকুমার

ডিকে শিবকুমারের গ্রেফতারিকে কেন্দ্রের “প্রতিহিংসার রাজনীতি” বলে মন্তব্য করেছে কংগ্রেস। একটি ট্যুইটে, বলা হয়েছে, এটি “তাদের ব্যর্থ নীতি এবং খারাপ অর্থনৈতিক পরিস্থিতির দিকে থেকে নজর ঘোরানোর” পদক্ষেপ।

গত মাসে পি চিদাম্বরম গ্রেফতার হওয়ার পর, কংগ্রেসের তরফে, বদলা নেওয়ার অভিযোগ তোলা হয়।

সাংবাদিক সম্মেলনে কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সিং সুরজেওয়ালা বলেন, “ন বছর আগে মামলা দায়ের হয়...১১ বছর পর, তাঁকে গ্রেফতার করা হল। সিবিআইকে ব্যক্তিগত বদলা নেওয়ার সংস্থা হিসেবে ব্যবহার করছে সরকার, এবং তারাই এটা করেছে”। তিনি আরও বলেন, “গত দুদিনে ভারত, আইনের শাসন এবং দিনের আলোয় গণতন্ত্রের হত্যা প্রত্যক্ষ করেছে”।

ইডির সমন পেয়ে দিল্লিতে শিবকুমার, গ্রেফতারের সম্ভাবনা

আইএনএক্স মিডিয়ার সহপ্রতিষ্ঠাতা পিটার এবং ইন্দ্রাণী মুখোপাধ্যায়ই পি চিদাম্বরম এবং তাঁর ছেলে কার্তি চিদাম্বরমের নাম করেন। শিনা বোরা হত্যাকাণ্ডে বর্তমানে জেলে রয়েছেন পিটার ও ইন্দ্রাণী মুখোপাধ্যায়। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছেন পি চিদাম্বরম এবং তাঁর ছেলে।

শিবকুমারের গ্রেফতারের পরেই, নাৎসি শাসনের জার্মানির “গেস্টাপো”র সঙ্গে সরকারের তুলনা করেছিলেন কার্তি চিদাম্বরম।

ট্যুইটে তিনি লেখেন, “কাজ শুরু করেছে গেস্টাপো!কংগ্রেস নেতাদের অপদস্থ করা ছাড়া এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট আর কী কাজ করে”!