হোয়াইট হাউসের বৈঠকে এইচ ১বি ভিসা প্রসঙ্গ তুললেন এস জয়শঙ্কর

মূলত এইচ ১বি ভিসা মার্কিন সংস্থাগুলিকে অনুমতি দেয় বিদেশ থেকে তথ্য-প্রযুক্তি পেশাদারদের সেদেশে নিয়োগে

হোয়াইট হাউসের বৈঠকে এইচ ১বি ভিসা প্রসঙ্গ তুললেন এস জয়শঙ্কর

ঘটনাচক্রে এদেশের তথ্য-প্রযুক্তি পেশাদারদের মধ্যে এই ভিসা বেশ জনপ্রিয়

ওয়াশিংটন:

ভারতের তথ্য-প্রযুক্তি কর্মীদের মার্কিন মুলুকের তথ্য-প্রযুক্তি সংস্থাগুলিতে নিয়োগের ওপর আমেরিকার বিধি-নিষেধ আরোপ করা উচিত না। এইচ ১-বি ভিসার গুরুত্ব উল্লেখ করে ভারতের বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর চলতি সপ্তাহে একথা বলেন।কারণ এটা দু দেশের আর্থিক ও পদ্ধতিগত সংযোগ তৈরির গুরুত্বপুর্ণ সেতু। ঘটনাচক্রে এদেশের তথ্য-প্রযুক্তি পেশাদারদের মধ্যে এই ভিসা বেশ জনপ্রিয়। যা  দু'দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরও মজবুত করছে বলে মত। 

কাশ্মীর নিয়ে 'বিতর্কিত রিপোর্ট', মার্কিন সাংসদের সঙ্গে বৈঠক বাতিল করলেন জয়শঙ্কর

এ বিষয়ে দিল্লি উড়ে যাওয়ার আগে বৃহস্পতিবার এস জয়শঙ্কর ওয়াশিংটনের ভারতীয় সাংবাদিকদের বলেন, "গত কয়েকটা বৈঠকে আমি বোঝানোর চেষ্টা করেছি যে আমাদের আগ্রহটা ঠিক কোথায়। মার্কিন মুলুকে আসা ভারতের প্রতিভা প্রবাহকে কোনভাবেই আটকানো উচিত না। এমনকি অযৌক্তিক কারণ  দেখিয়ে এর ওপর আইনি বিধি-নিষেধ চাপানো উচিত না। এই বিষয়টা আমি হোয়াইট হাউসে মার্কিন নিরাপত্তা উপদেষ্টা রবার্ট ও ব্রায়েনের সঙ্গে বৈঠকেও বলেছি।" উল্লেখ্য, দ্বিপাক্ষিক ২+২ আলোচনায় অংশ নিতে মার্কিন সফরে এসেছিলেন এদেশের বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর এবং  প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। ভারত সরকারের এই দুই মন্ত্রী মার্কিন বিদেশ সচিব মাইক পম্পেও ও প্রতিরক্ষা সচিব মার্ক এস্পেরের সঙ্গে বৈঠক করেন।

মূলত এইচ ১বি ভিসা মার্কিন সংস্থাগুলিকে অনুমতি দেয় বিদেশ থেকে তথ্য-প্রযুক্তি পেশাদারদের সেদেশে নিয়োগে। এর ফলে ভারত এবং চিন থেকে মার্কিন তথ্য-প্রযুক্তি সংস্থাগুলি প্রতি বছর কয়েক হাজার পেশাদার নিয়োগ করে। এদিকে ভারতের বিদেশমন্ত্রী বৃহস্পতিবার দেশে ফেরার আগে প্রায় আধ ঘন্টা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের  সঙ্গে  বৈঠকও করেন।