কনটেইনমেন্ট জোনে আপাতত সাতদিন লকডাউন, প্রয়োজনে পরে বাড়াবো: মুখ্যমন্ত্রী

পাশাপাশি উত্তরবঙ্গের শিলিগুড়ি ও মালদা নবান্নের বিশেষ পর্যবেক্ষণে আছে। এদিন স্পষ্ট করেন মুখ্যমন্ত্রী

কনটেইনমেন্ট জোনে আপাতত সাতদিন লকডাউন, প্রয়োজনে পরে বাড়াবো: মুখ্যমন্ত্রী

পশ্চিমবঙ্গ সরকার রাজ্যে এই বর্ধিত সংক্রমণ রুখতে আরও কড়া লকডাউনের পথে হাঁটছে

কলকাতা:

৯ জুলাই বিকাল পাঁচটা থেকে সকাল পাঁচটা পর্যন্ত কড়া লকডাউন বাংলায়। শুধুমাত্র কনটেইনমেন্ট জোনে আগামি সাত দিন বলবৎ এই লকডাউন। মঙ্গলবার নবান্ন থেকে এই ঘোষণার পর থেকেই নাগরিক সমাজে বিভ্রান্তি। তাহলে ফেল ঘরবন্দি থাকতে হবে গত দু'মাসের মতো! সেই বিভ্রান্তি দূর করতে বুধবার এগিয়ে এলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেছেন, "নতুন করে লকডাউন ঘোষণায় ঘাবড়ানোর কিছু নেই। আপাতত সাতদিন চলবে এই লকডাউন। পরে পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে বাড়ানো হতে পারে মেয়াদ।" পাশাপাশি এদিন নবান্নে দক্ষিণ ২৪ পরগনার কনটেইনমেন্ট জোনের তালিকা নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। "আপনি একটা জেলাকে লকডাউন করতে পারে না।" এ ভাষাতেই তিনি  ভর্ৎসনা করেন তালিকা তৈরির দায়িত্বপ্রান্ত আধিকারিককে।

তিনি প্রশ্ন তোলেন, "কীসের ভিত্তিতে এই তালিকা তৈরি হয়েছে? ভোটার তালিকা দেখে? আপনারা গোটা একটা পুরসভাকে কনটেইনমেন্ট এলাকা করে দিয়েছেন। খুব বাজে ব্যাপার। তালিকা ছোট করুন।"

পাশাপাশি উত্তরবঙ্গের শিলিগুড়ি ও মালদা নবান্নের বিশেষ পর্যবেক্ষণে আছে। এদিন স্পষ্ট করেন মুখ্যমন্ত্রী।

এদিকে, ক্রমশই যেন সঙ্গীন হচ্ছে পশ্চিমবঙ্গের করোনা ভাইরাস সংক্রমণের চিত্র। রাজ্যে শুধু মঙ্গলবারই ২৫ জনের প্রাণ কেড়েছে এই মারণ রোগ। পশ্চিমবঙ্গের স্বাস্থ্য দফতর তাদের সাম্প্রতিক মেডিক্যাল বুলেটিনে জানিয়েছে যে, সব মিলিয়ে বাংলায় ৮০৭ জনের প্রাণ কেড়েছে কোভিড- ১৯। শুধু তাই নয়, পাল্লা দিয়ে বাড়ছে সংক্রমণও। এই নিয়ে পরপর ৩ দিন রাজ্যে একদিনে ৮০০ রও বেশি মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলো, যা চিন্তা বাড়িয়েছে স্বাস্থ্য আধিকারিকদের। রাজ্যের কোভিড বুলেটিনে বলা হয়েছে আরও ৮৩৭ জনের শরীরে নতুন করে করোনা পজিটিভ ধরা পড়েছে। সব মিলিয়ে এরাজ্যে এখনও পর্যন্ত ২৩,৮৩৭ জন করোনার কবলে পড়েছেন।

তবে রাজ্যের কোভিড হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসকরা সাধ্যমতো চেষ্টা করছেন করোনা রোগীদের সুস্থ করে তুলতে। পশ্চিমবঙ্গ সরকার জানিয়েছে যে, গত ২৪ ঘণ্টায় মোট ৫৫৫ জন রোগী এই ভয়ঙ্কর অসুখের সঙ্গে লড়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন । এখনও পর্যন্ত চিকিৎসা সহায়তায় সুস্থ হয়ে ওঠা মোট রোগীর সংখ্যা ১৫,৭৯০ জন।

সবচেয়ে বেশি চিন্তা বাড়াচ্ছে শহর কলকাতার পরিস্থিতি। যত দিন যাচ্ছে ততই সেখানে সংক্রমিতের সংখ্যা বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানে আরও ২৯১ জন করোনা রোগীর সন্ধান পাওয়া গেছে। সেইসঙ্গে একদিনের মধ্যে শহরে মৃত্যু হয়েছে আরও ১০ জনের।

পশ্চিমবঙ্গ সরকার রাজ্যে এই বর্ধিত সংক্রমণ রুখতে আরও কড়া লকডাউনের পথে হাঁটছে। রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় নতুন করে জারি মধ্যে রয়েছে মালদহের তিনটি পুরসভা এলাকা। আজ অর্থাৎ বুধবার থেকে আগামী এক সপ্তাহ পর্যন্ত চলবে এই লকডাউন। মালদহের ইংরেজবাজার, মালদাটাউন এবং কালিয়াচকে লকডাউন জারি করা হয়েছে। এছাড়াও উত্তর দিনাজপুরের ডালখোলা, এবং উত্তর ২৪ পরগনার বেশ কয়েকটি পুরসভা এলাকায় লকডাউন জারি করা হয়েছে। এই সমস্ত জায়গায় খোলা থাকবে অত্যাবশকীয় পণ্যের দোকান, তবে অন্যান্য সমস্ত পরিষেবা বন্ধ রাখা হবে। 

রাজ্য সরকারের তরফে জারি করা নয়া লকডাউন বিধিতে জানানো হয়েছে, নতুন কনটেনমেন্ট জোনে সমস্ত অফিস বন্ধ রাখা হবে। একইসঙ্গে জরুরি নয়, এমন সমস্ত কার্যাবলীও বন্ধ থাকবে। বন্ধ থাকবে গণপরিবহণ ব্যবস্থা। সমস্ত শপিং মল, কারখানাও বন্ধ রাখতে হবে বলে জানানো হয়েছে নয়া নির্দেশিকায়।

রাজ্যের তরফে আরও জানানো হয়েছে, নতুন কনটেনমেন্ট জোনগুলিতে কেউই অফিস যেতে পারবেন না। এছাড়াও কনটেনমেন্ট জোনগুলিতে প্রবেশ ও প্রস্থান আপাতত পুরোপুরি বন্ধ রাখা হবে।