স্টিরিওটাইপকে জোর ধাক্কা! সাহসী ফটোশ্যুটে আন্ডারআর্ম নিয়ে সৌন্দর্যের ধারণা ভাঙলেন মডেল

কখনও ভেবে দেখেছেন, কেন সমস্ত পণ্যই মহিলাদের বাহুমূলের স্বাভাবিক চুল উঠিয়ে ফেলে ঝাঁ চকচকে করে ফেলার জন্য? পুরুষদের বেলা কেন এটাই স্বাভাবিক?

স্টিরিওটাইপকে জোর ধাক্কা! সাহসী ফটোশ্যুটে আন্ডারআর্ম নিয়ে সৌন্দর্যের ধারণা ভাঙলেন মডেল

মডেল এবং অভিনেত্রী বছর আঠাশের এমিলি, গর্বিতভাবেই হার্পারের বাজারের জন্য পোজ দিয়েছেন

বাজারে আন্ডারআর্ম (armpit hair) পরিষ্কার রাখার হাজারো সামগ্রী মজুত। কিন্তু কখনও ভেবে দেখেছেন, কেন সমস্ত পণ্যই মহিলাদের বাহুমূলের স্বাভাবিক চুল উঠিয়ে ফেলে ঝাঁ চকচকে করে ফেলার জন্য? যদি বাহুমূলের চুল উঠিয়ে পরিষ্কার রাখা স্বাস্থ্যকর হয়, নান্দনিক হয় বা একান্তই যদি নিয়মই হয়ে থাকে তাহলে ভিড় বাসে, খোলা রাস্তায় কোনও পুরুষের বাহুমূল স্বাভাবিক নিয়মে চুলে ঢাকা হলে আমাদের অস্বাভাবিক লাগে না কেন? যদি সুন্দর দেখানো মহিলাদের জন্য প্রযোজ্য হয়, কেন তা সমাজের আরেক শ্রেণির প্রতি খাটে না? বারেবারেই এই প্রশ্ন সামনে আনছেন অনেকেই। বিশেষ করে বিশ্বের সেলিব্রিটিরা। ফটোশুট দিয়ে শরীরের স্বাভাবিক গঠন ও চুলের সঙ্গে জড়িত স্টিরিওটাইপ ভাঙার চেষ্টা করছেন তাঁরা। সুপার মডেল এমিলি রাতাজকভস্কিও (Emily Ratajkowski) সেই তালিকায় যোগ দিয়েছেন। মডেল এবং অভিনেত্রী বছর আঠাশের এমিলি, বগলের স্বাভাবিক লোম (armpit hair) দেখিয়েই হার্পারের বাজারের জন্য পোজ দিয়েছেন সগর্বে। 

দেখুন, বিখ্যাত হয়েই রাতারাতি কেমন বদলে গেছেন রানাঘাটের 'লতাকণ্ঠী' রাণু!

USA Today জানাচ্ছে, ছবিটি একটি ব্যক্তিগত প্রবন্ধের অংশ। ওই ম্যাগাজিনের সেপ্টেম্বর সংখ্যার জন্য নারীবাদ বিষয়ে লিখেছিলেন এমিলি।

“আমি @harpersbazaarus এর জন্য একটি প্রবন্ধ লিখি। সেই প্রবন্ধের বিষয় ছিল, মহিলাদের চয়ন করার অধিকারের গুরুত্ব (একজন মহিলা কী পোশাক পরবেন, কী পোস্ট করবেন, বগল শেভ করার সিদ্ধান্ত নেবেন কি নেবেন না!)। নিজেকে একজন মহিলা কীভাবে তুলে ধরবেন, সেটা তাঁর অধিকারের প্রশ্ন,” ইনস্টাগ্রামে ছবি পোস্ট করে লিখেছেন তিনি (Emily Ratajkowski)।

Viral: মুখ ঢোকাতেই ইলেকট্রিক শক! বেচারি বিড়ালের দশা দেখুন

বৃহস্পতিবার শেয়ার করা ছবিটিতে কয়েক লক্ষ মানুষ 'লাইক' করেছেন এবং হাজারে হাজারে মানুষ তাঁদের মন্তব্য জানিয়েছেন। বগলের চুল নিয়ে কোনও রাখঢাক না রেখে স্টিরিওটাইপ ভঙ্গ করার এই সিদ্ধান্তের প্রশংসা করেছেন বহু বহু মানুষ।

এক ব্যক্তি ছবিটির প্রতিক্রিয়ায় লিখেছেন, “আপনি একটি বিশাল কাজ করছেন: স্বতন্ত্র স্বাধীনতার জন্য লড়াই এবং সৌন্দর্য নিয়ে গোঁড়া ধারণাকে ভাঙার এই লড়াইকে কুর্নিশ।” “আপনি সত্যিকারের অনুপ্রেরণা,” লিখেছেন অন্য একজন।

কয়েক মাস আগে, মালাইকা আরোরাও সোশ্যাল মিডিয়াতে এমনই এক ছবি শেয়ার করে হইচই ফেলে দেন। উন্মুক্ত স্বাভাবিক বাহুমূলের একটি ছবি প্রকাশ্যে এনে আবারও তিনি উস্কে দেন সেই প্রশ্ন, কেবল মেয়েদের বেলাতেই কেন এত আড়চোখ?

Click for more trending news


More News