"....আবার দেশভাগ হবে": নরেন্দ্র মোদির উদ্দেশে নেতাজির প্রপৌত্র বিজেপি নেতা চন্দ্রকুমার বসু

আইএএনএসকে চন্দ্র কুমার বসু বলেন: “আজ দেশটা ভেঙে পড়ছে। আমি বিশদে যাচ্ছি না। তবে ভারতে নানা সম্প্রদায়ের মধ্যে ঐক্য নেই।" তিনি বিতর্কিত আইনটির বিরুদ্ধে চলমান প্রতিবাদের কথাও উল্লেখ করেন।

চন্দ্রকুমার বসু বিতর্কিত আইনটির বিরুদ্ধে চলমান প্রতিবাদের কথাও উল্লেখ করেন

নয়াদিল্লি:

নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর (Netaji Subhas Chandra Bose) জন্মবার্ষিকীতে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন তাঁর প্রপৌত্র এবং বিজেপির পশ্চিমবঙ্গ শাখার সহ-সভাপতি (BJP's Bengal unit Vice President) চন্দ্র কুমার বসু (Chandra Kumar Bose)। নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের (Citizenship Amendment Act) নাম না করেই বিজেপির এই নেতা জানান যে এই দেশ একটি ‘দ্বিতীয় বিভাজনের' (Second Partition) দিকে এগিয়ে চলেছে।

আইএএনএসকে চন্দ্র কুমার বসু বলেন: “আজ দেশটা ভেঙে পড়ছে। আমি বিশদে যাচ্ছি না। তবে ভারতে নানা সম্প্রদায়ের মধ্যে ঐক্য নেই।" তিনি বিতর্কিত আইনটির বিরুদ্ধে চলমান প্রতিবাদের কথাও উল্লেখ করেন।

“সুতরাং আপনি যদি নেতাজিকে সামনে না রাখেন তবে দেশ বিভক্ত হয়ে যাবে এবং আবার বিভাজন হবে। এই নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে আমি খুব স্পষ্ট বার্তা দিতে চাই,” বলেন চন্দ্রকুমার বসু।

ধর্মনিরপেক্ষ ভারতের পক্ষে ছিলেন নেতাজি: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

বিজেপি দিল্লির সিএএ বিরোধী প্রতিবাদের কেন্দ্রস্থল শাহীনবাগকে ‘লজ্জাবাগ' বলে অভিহিত করে এই দিনেই। বিজেপি নেতা ও রাজ্যসভার সাংসদ বিজয় গোয়েল বলেন: “শাহীনবাগ হয়ে গেছে লজ্জাবাগ।” আর সেই একই দিনে চন্দ্রকুমার বসুর এই মন্তব্য রাজনৈতিক মহলে তরঙ্গ তুলেছে।

বিজেপির পক্ষে যদিও এমনটা প্রথম নয়। নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনে মুসলমানদের অন্তর্ভুক্ত করার দাবিতে কয়েক দিন আগে মিত্র শিরোমণি আকালি দলও দিল্লি নির্বাচন থেকে সরে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।

সিএএ, পাকিস্তান, বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান এই তিন মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশগুলিতে ধর্মীয় নিপীড়নের সম্মুখীন হওয়া অমুসলিম অভিবাসীদের ভারতীয় নাগরিক হওয়ার পথকে আরও সহজ করে তুলবে এবং নাগরিকত্বের আবেদনের জন্য ভারতে অতিবাহিত করা নির্ধারিত সময়সীমাও হ্রাস করবে।

Listen to the latest songs, only on JioSaavn.com