This Article is From Nov 26, 2019

মহারাষ্ট্রে সরকার গঠনের দড়ি টানাটানিতে আজ রায় শোনাবে সুপ্রিম কোর্ট

Maharashtra: সোমবার শীর্ষ আদালতে কেন্দ্র যুক্তি দেয় যে অজিত পাওয়ারের দেওয়া চিঠিতে ৫৪ জন বিধায়কের সমর্থন থাকায় সব মিলিয়ে তাঁদের কাছে ১৭০ জন বিধায়ক আছে

মহারাষ্ট্রে সরকার গঠনের দড়ি টানাটানিতে আজ রায় শোনাবে সুপ্রিম কোর্ট

Maharashtra: গত সপ্তাহেই মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ নেন দেবেন্দ্র ফড়নবিশ

নয়া দিল্লি:

মহারাষ্ট্রে যেভাবে রাতারাতি রাজনীতির পাশা উল্টে দিয়ে শনিবার দেবেন্দ্র ফড়নবিশের নেতৃত্বে (Devendra Fadnavis) সরকার গঠন করেছে বিজেপি, তার বিরুদ্ধে প্রশ্ন তুলে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয় শিবসেনা-এনসিপি-কংগ্রেস জোট। আজ (মঙ্গলবার) সেই বিষয়ে রায় শোনাবে শীর্ষ আদালত (Supreme Court) । সোমবার ৮০ মিনিটের শুনানি শেষে সুপ্রিম কোর্ট জানায় মহারাষ্ট্রে (Maharashtra) আস্থা ভোট হবে কিনা সে বিষয়েও সিদ্ধান্ত জানাবেন বিচারকরা। কেননা ইতিমধ্যেই ওই ৩ দলের জোটও দাবি করেছে যে তাঁদের কাছে সরকার গঠনের জন্যে প্রয়োজনীয় সংখ্যা রয়েছে। সুতরাং এখন মহারাষ্ট্রের টালমাটাল পরিস্থিতির দিকে তাকিয়ে রয়েছে গোটা দেশ।

সোমবার শীর্ষ আদালতে কেন্দ্র যুক্তি দেয় যে অজিত পাওয়ারের দেওয়া চিঠিতে ৫৪ জন বিধায়কের সমর্থন থাকায় সব মিলিয়ে তাঁদের কাছে ১৭০ জন বিধায়ক আছে সে বিষয়ে নিশ্চিত হয়েই রাজ্যপাল ভগৎ সিং কোশিয়ারি দেবেন্দ্র ফড়নবিশকে সরকার গঠনের জন্যে আমন্ত্রণ জানান। শনিবার সকাল ৮টা নাগাদ শপথ নেয় ওই সরকার, এবং উপ মুখ্যমন্ত্রী হন শরদ পাওয়ারের ভাইপোো তথা এনসিপি নেতা অজিত পাওয়ার।

যদিও সোমবার মুখ্যমন্ত্রী পদে দায়িত্ব নিয়ে দেবেন্দ্র ফড়নবিশ কাজ শুরু করে দিলেও এখনও উপ মুখ্যমন্ত্রী পদে নিজের দায়িত্ব বুঝে নিতে দেখা যায়নি অজিত পাওয়ারকে।

এদিকে দেবেন্দ্র ফড়নবিশ সরকারের প্রতিপক্ষ শিবসেনা-এনসিপি-কংগ্রেস জোট ১৫৪ জন বিধায়কেের স্বাক্ষর সহ আদালতে তাঁদের নথি জমা দিয়েছে এবং মহারাষ্ট্র বিধানসভায় আস্থা ভোট করানোর আহ্বান জানিয়েছে।

আস্থা ভোট এক বা দুই-তিন দিন, এমনকি ১৪ দিনের মধ্যেও ডাকা যেতে পারে। ২০১৮ সালে, কর্ণাটকে সুপ্রিম কোর্ট ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আস্থা ভোট করানোর নির্দেশ দেয়, সেই সময় মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ গ্রহণকারী বিজেপির বিএস ইয়েদুরাপ্পা তাঁর সরকারের প্রয়োজনীয় সমর্থন নেই বলে  সেই সময় পদত্যাগ করতে বাধ্য হয়েছিলেন।

মহারাষ্ট্র নিয়ে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় রায় দেবে সুপ্রিম কোর্ট

সোমবার সুপ্রিম কোর্টে বিজেপির হয়ে সওয়াল করা প্রাক্তন অ্যাটর্নি জেনারেল মুকুল রোহাতগি বলেন: "রাজ্যপাল ১৭০ জন বিধায়কের সমর্থন দেখেছিলেন। এটি কোনও জাল চিঠি নয়। আর তারপরেই তিনি বিজেপিকে শপথ গ্রহণের জন্যে ডেকেছিলেন"। আর এই চিঠি নিয়ে রাজ্যপলের মনে কোনও সন্দেহের উদ্রেকও হয়নি, এমনটাও জানান রোহাতগি।

২৮৮ সদস্যের মহারাষ্ট্র বিধানসভায় বিজেপির নিজস্ব ১০৫ জন বিধায়ক রয়েছে, সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্যে প্রয়োজন ১৪৫ জনের সমর্থন। সেই লক্ষ্যে পৌঁছতে আরও ৪০ জন বিধায়কের সমর্থন প্রয়োজন পদ্মবাহিনীর।

u1c5u7s8

Maharashtra: শনিবার সকলকে চমকে দিয়ে মহারাষ্ট্রের উপ মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেন অজিত পাওয়ার

সওয়াল-জবাব চলাকালীন সোমবার সলিসিটার জেনারেল তুষার মেহতা শীর্ষ আদালতকে বলেছেন, অজিত পাওয়ার সমস্ত এনসিপি বিধায়কের সমর্থনের চিঠি জমা দিয়েছিলেন রাজ্যপালের কাছে। তুষার মেহতা বলেন, "অজিত পাওয়ার ২২ নভেম্বর ৫৪ জন বিধায়কের স্বাক্ষর সহ একটি চিঠি জমা দিয়েছিলেন।" এই চিঠির পরেই রাজ্যপাল ভগৎ সিং কোশিয়ারি দেবেন্দ্র ফড়নবিশকে সরকার গঠনের জন্য আমন্ত্রণ জানান।

“আমরা ১৬২, এসে দেখুন”: মুম্বইয়ের হোটেলে শিবসেনা-কংগ্রেস-এনসিপি বিধায়করা

জোটের হয়ে প্রতিনিধিত্বকারী কপিল সিব্বল বিজেপির এই সরকার গঠনকে "গণতন্ত্রের প্রতারণা" আখ্যা দিয়ে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আস্থা ভোট করানোর আহ্বান জানান। "রাষ্ট্রপতির শাসন প্রত্যাহার করার জন্য এমন কী জাতীয় জরুরী অবস্থা হয়েছিল?  কেন এই সব ঘটনা ভোর ৫টা ৪৭ মিনিট থেকে সকাল ৭টার মধ্যে ঘটেছিল?  রাজ্যপাল ২৪ ঘণ্টা অপেক্ষা করতে পারতেন না?", প্রশ্ন করেন তিনি।

সিব্বলের পাশাপাশি আইনজীবী অভিষেক মনু সিংভি মহারাষ্ট্রে একজন অন্তর্বর্তীকালীন অধ্যক্ষ নিয়োগ করে খুব তাড়াতাড়ি আস্থা ভোট করানোর জন্যে আদালতকে অনুরোধ করেন।

এদিকে মহারাষ্ট্রে আস্থা ভোটের আগে সাবধানী শিবসেনা, এনসিপি এবং কংগ্রেস নিজেদের দলের বিধায়কদের মুম্বইয়ের বিভিন্ন হোটেলে কড়া নজরদারিতে রেখেছে।

মহারাষ্ট্র নিয়ে আজ রায় দেবে সুপ্রিম কোর্ট, দেখে নিন বর্তমানে কী পরিস্থিতিতে ওই রাজ্য: