This Article is From Jul 24, 2020

কানপুরে যুবকের অপহরণ-খুন! সাসপেন্ড এক আইপিএস-সহ চার, ধৃত ২

অপহরণকারীদের কোনও টাকা দেওয়া হয়নি। সংবাদমাধ্যমে এ বয়ান দিতে চাপ দিয়েছিল পুলিশ। এই অভিযোগ তুলেছে সঞ্জিতের পরিবার

কানপুরে যুবকের অপহরণ-খুন! সাসপেন্ড এক আইপিএস-সহ চার, ধৃত ২

গত মাসে অপহরণ করে খুন করা হয়েছে সঞ্জিৎ যাদবকে।

কানপুর:

গ্যাংস্টার বিকাশ দুবে-কাণ্ডের পর ফের খবরের শিরোনামে কানপুর (Kanpur youth kidnapping and murder)। এবার এক যুবককে অপহরণ করে খুনের ঘটনায় মুখ পুড়লো জেলা পুলিশের। জানা গিয়েছে, সঞ্জিৎ যাদব নামে অপহৃত যুবকের মুক্তিপণ বাবদ ৩০ লক্ষ টাকা হাতিয়ে চম্পট দিয়েছে অভিযুক্ত। পাশাপাশি খুন করা হয়েছে সেই পণবন্দীকে। নিহতের পরিবারের তরফে এই অভিযোগ পেয়ে আইপিএস পদমর্যাদার এক পুলিশ-সহ চার জনকে সাসপেন্ড করা হয়েছে। এমনটাই ইউপি (UP Police) স্বরাষ্ট্র দফতর সূত্রে খবর। যদিও পুলিশের তরফে দাবি, "মুক্তিপণ বাবদ কোনও টাকাই দেওয়া হয়নি অভিযুক্তদের।" জানা গিয়েছে, সাসপেন্ডেড আইপিএস আধিকারিকের নাম অপর্ণা গুপ্তা। তবে, অপহৃতের দেহ না মিললেও, তাঁকে খুন করা হয়েছে। এমনটাই ধারণা পুলিশের। 

পুলিশ সূত্রে খবর, কানপুরের একটা ল্যাবরেটরিতে  টেকনিশিয়ানের কাজ করতেন সঞ্জিৎ যাদব। গত মাসে তাঁকে অপহরণ করা হয়। কানপুরের পুলিশ সুপার দীনেশ কুমার পি'র অফিসের সামনে পরিবারের তরফে ধর্না দেওয়ার পর তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। পরিবারের অভিযোগ, "মুক্তিপণ বাবদ ৩০ লক্ষ টাকা জোগার করে অভিযুক্তদের হাতে তুলে দিতে চাপ দিয়েছিল পুলিশ। তারা সে কাজ করলেও, পুলিশের উপস্থিতির মধ্যেই টাকা নিয়ে চম্পট দেয় অভিযুক্তরা।"

এমনকী, অপহরণকারীদের কোনও টাকা দেওয়া হয়নি। সংবাদমাধ্যমে এ বয়ান দিতে চাপ দিয়েছিল পুলিশ। এই অভিযোগ তুলেছে সঞ্জিতের পরিবার।  এদিকে, এই ঘটনায় সঞ্জিতের এক বন্ধু ও প্রাক্তন সহকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 


 



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)