This Article is From Nov 21, 2019

মাইসোরের মহারাজার ট্যাক্সিডার্মিস্টের ১১৭ কোটি টাকা আত্মসাৎ করতে গিয়ে ইডির খপ্পড়ে প্রতারক

বিপুল সম্পত্তি আত্মসাৎ করতে চেয়েও ব্যর্থ হয়ে ইডির কাছে আটক হলেন এক প্রতারক। বুধবার ইডি একথা জানিয়েছে।

মাইসোরের মহারাজার ট্যাক্সিডার্মিস্টের ১১৭ কোটি টাকা আত্মসাৎ করতে গিয়ে ইডির খপ্পড়ে প্রতারক

ইডি জানাচ্ছে, অভিযুক্তের নাম মাইকেল ফ্লয়েড এশওয়ার।

নয়াদিল্লি:

মাইসোরের (Mysore) মহারাজা এক ব্রিটিশ ট্যাক্সিডার্মিস্টকে (Mysore Maharaja's Taxidermist) বহুমূল্য সম্পত্তি উপহার দিয়েছিলেন। সব মিলিয়ে সেই সম্পত্তির মূল্য ১১৭ কোটি টাকা! সেই বিপুল সম্পত্তি আত্মসাৎ করতে চেয়েও ব্যর্থ হয়ে ইডির (ED) কাছে আটক হলেন এক প্রতারক। বুধবার ইডি একথা জানিয়েছে। ইডি জানাচ্ছে, অভিযুক্তের নাম মাইকেল ফ্লয়েড এশওয়ার। তিনি পেশায় একজন ঘোড়া প্রশিক্ষক। থাকেন কর্নাটাকের মাইসোরে। তিনিই জাল দলিরের সাহায্যে দখল করে নেন সেই ট্যাক্সিডার্মিস্টের সব সম্পত্তি। এর মধ্যে রয়েছে দামি কাঠের সব আসবাব, হায়দার আলি রোডে (আব্বা রোড) একটি বাড়ি এবং ৭০টি ‘অ্যানিমাল ট্রফি'। প্রসঙ্গত, ‘অ্যানিমাল ট্রফি' হল কোনও পশুর সংরক্ষিত দেহ বা দেহাবশেষ। সাধারণত শিকারের পর শৌর্য প্রদর্শনের জন্য আগেকার দিনে ধনী শিকারীরা নিজেদের কাছে সেই দেহ সংরক্ষিত করে রাখতেন।

প্রয়াত ট্যাক্সিডার্মিস্ট এডুইন জুবের্ট ভ্যান ইঙ্গেন ভারতে থাকতেন। তাঁকে মাইসোরের মহারাজা যে সম্পত্তি উপহার দিয়েছিলেন তা দখলের পরিকল্পনা করেন মাইকেল ফ্লয়েড এশওয়ার। তিনি একটি নকল দলিল তৈরি করে তার সাহায্যে সেই সম্পত্তি দখল করা ফন্দি আঁটেন।

ইডি জানিয়েছে, বেঙ্গালুরু পুলিশের সিআইডি ২০১৩ সালে চার্জ শিট তৈরি করে। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে সিআইডি তদন্ত শুরু করলেও পরে ইডি তদন্তের ভার হাতে নেয়

ইডি জানিয়েছে, তদন্তে নেমে ক্রমে আবিষ্কৃত হয় নকল দলিল তৈরি করে এই পরিকল্পনা করেছেন এশওয়ার। পাশাপাশি ভ্যান ইঙ্গেনের নামে একটি নকল মৃত্যুর শংসাপত্রও দাখিল করে সে।

এশওয়ার জানতেন, ভ্যান ইঙ্গেন বিবাহিত। এবং অত্যন্ত বৃদ্ধ। এর সুযোগ নিয়ে তিনি ভ্যান ইঙ্গেনের সম্পতি হাতানোর পরিকল্পনা করেন।

পরে ভ্যান ইঙ্গেন পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেন। তিনি ২০১৩ সালে ১০১ বছর বয়সে মারা যান।

ইডি জানিয়েছে তারা এই বিষয়ে এখনও তদন্ত চালাচ্ছে।