This Article is From Oct 01, 2018

মীরাটের হেনাস্থার ঘটনার এক সপ্তাহ বাদেও গ্রেফতার হল না কোনও অভিযুক্ত, পুলিশ কর্মীদের বদলি

উত্তর প্রদেশের মীরাটের রাস্তায় আক্রমণের শিকার  হয়েছেন যুবক। বান্ধবীর সঙ্গে কথা বলার সময় তাঁর উপর হামলা চালানোর অভিযোগ ওঠে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের সদস্যদের বিরুদ্ধে।

50 সেকেন্ডের  একটি  ভিডিয়োতে ধরা  পড়েছে গোটা ব্যাপারটি।

হাইলাইটস

  • মিরাটের রাস্তায় প্রকাশ্য রাস্তায় আক্রান্ত হন তরুণ- তরুণী
  • মারধরের অভিযোগ ওঠে বিশ্বহিন্দু পরিষদের সদস্যদের বিরুদ্ধে
  • বেশ কয়েক দিন কেটে গেলেও কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি
মীরাট:

উত্তর প্রদেশের মীরাটের রাস্তায় আক্রমণের শিকার  হয়েছেন মসুলমান যুবক। হিন্দু বান্ধবীর সঙ্গে কথা বলার সময় তাঁর উপর হামলা চালানোর অভিযোগ ওঠে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের সদস্যদের বিরুদ্ধে। ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ। সেই ঘটনার পর কেটে  গিয়েছে  এক সপ্তাহ। কিন্তু এখনও কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি। তবে  ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা পুলিশ কর্মীদের গোরক্ষপুরে বদলি করে দেওয়া হয়েছে। ঘটনাচক্রে সেটি মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের কেন্দ্র। কিন্তু আক্রান্তরা এই পদক্ষেপে খুশি নন। হামলার পর রাজ্য পুলিশের ডিজি ওপি সিং কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। কিন্তু তারপরও আক্রমণকারীদের শাস্তি না হওয়ায় ভীত আক্রান্ত যুবক। তিনি জানিয়েছেন, আমি কলেজে ফিরে যাব না। আমার ভয় করছে। ওরা  বলেছিল কলেজে ঢুকে আমায় খুন করবে। দোষীদের গ্রেফতারি প্রসঙ্গে জানতে মীরাটের এসপি রণবিজয় সিংয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে এনডিটিভি। ক্রান্তি যাত্রা নিয়ে ব্যস্ত থাকা পুলিশ কর্তা জানান যাত্রা মিটে গেলে ব্যবস্থা হবে।  

এই বুঝি মরে গেলাম! মিরাটের রাস্তায় যুবককে ফেলে মার!    

ঘটনার সূত্রপাত কয়েকদিন আগে। উত্তরপ্রদেশের মিরাটের রাস্তায়  মুসলমান তরুণ  এবং হিন্দু তরুণীকে মারধরের অভিযোগ ওঠে বিশ্বহিন্দু পরিষদের সদস্যদের বিরুদ্ধে। তরুণের দাবি  পরিষদের সদস্যরা বলছিল তিনি লাভ জিহাদের সঙ্গে জড়িত আছেন। আর তাই তাঁর এই  অবস্থা। 50 সেকেন্ডের  একটি  ভিডিয়োতে ধরা  পড়েছে গোটা ব্যাপারটি। মারধরের ঘটনায় মূল অভিযুক্ত মণিশ লোহিয়া নামে এক ব্যক্তি। এনডিটিভিকে আক্রান্ত  যুবক সে সময় জানিয়েছিলেন  শরীর থেকে রক্তক্ষরণ না  হওয়া পর্যন্ত অত্যাচার থামেনি। একই সঙ্গে গোপন অঙ্গেও আঘাত  করা হয়।  তরুণীকেও নিগ্রহ করা  হয়।   ঘটনার পরপরই  উত্তর প্রদেশ পুলিশের ডিজি ওমপ্রকাশ সিং টুইট করে বলেছিলেন,   পুলিশের কাজ নাগরিকদের সুরক্ষা দেওয়া। আর তাই কর্তব্যে গাফিলতি কোনওভাবেই বরদাস্ত করা হবে না। দোষীদের কড়া শাস্তি দেওয়া হবে।