This Article is From Feb 07, 2020

Ayodha: রামমন্দির নির্মাণের আগে বাবরির ধ্বংসস্তুপ দাবি করে আদালতে দরবার করতে পারে মসজিদ অ্যাকশন কমিটি

অযোধ্যার সেই জমিতে রামমন্দির (Ram temple) নির্মাণের আগে বাবরির ধংসস্তুপ ফেরত দেওয়া হোক। এই দাবি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হতে পারে মসজিদ অ্যাকশন কমিটি (Babri Masjid Action Committee)।

Ayodha: রামমন্দির নির্মাণের আগে বাবরির ধ্বংসস্তুপ দাবি করে আদালতে দরবার করতে পারে মসজিদ অ্যাকশন কমিটি

অযোধ্যার সেই জমিতে রামমন্দির নির্মাণের আগে বাবরির ধংসস্তুপ ফেরত দেওয়া হোক। এই দাবি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হতে পারে মসজিদ অ্যাকশন কমিটি ।

হাইলাইটস

  • রামমন্দির নির্মাণের আগে ফেরত দেওয়া হোক বাবরি ধংসস্তুপ
  • এই দাবিতে সুপ্রিম কোর্টে দরবার কোর্টে পারে মসজিদ অ্যাকশন কমিটি
  • অযোধ্যাতে ধংসস্তুপ সরাতে জমি দেখার কাজও শুরু করেছে অ্যাকশন কমিটি
নয়া দিল্লি:

অযোধ্যার সেই জমিতে রামমন্দির (Ram temple) নির্মাণের আগে বাবরির ধংসস্তুপ (debris of the razed mosque) ফেরত দেওয়া হোক। এই দাবি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের (Supreme Court) দ্বারস্থ হতে পারে মসজিদ অ্যাকশন কমিটি (Babri Masjid Action Committee)। ওই কমিটির আহ্বায়ক জাফরইয়াব জিলানি পিটিআইকে বলেছেন, ফৈজাবাদ ও অযোধ্যার মুসলিম সম্প্রদায়কে বলেছি; আপনারা জমি দেখুন। ওই জমিতে বাবরির ধংসস্তুপ রাখা হবে। তিনি বলেন, "আমাদের আইনজীবী রাজীব ধাওয়ানের সঙ্গে পরামর্শ করেছি। উনিও বলেছেন বাবরির ধ্বংসস্তুপ দাবি করে আমরা আদালতে দরবার করতেই পারি। আগামী সপ্তাহে দিল্লিতে বৈঠক আছে। সেখানেই চূড়ান্ত দিক নির্দেশিকা তৈরি হবে।"   বুধবারই সংসদে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি রামমন্দির নির্মাণ তত্ত্বাবধানে ট্রাস্ট গঠনের ঘোষণা করেছেন। রায়ে সুপ্রিম কোর্ট সেই ট্রাস্ট গঠনের নির্দেশ দিয়েছিলেন।

বিজেপি সংসদে সংগঠিত বিশৃঙ্খলা করছে প্রধানমন্ত্রীকে বাঁচাতে: Rahul Gandhi

গত নভেম্বরে সুপ্রিম কোর্ট বিতর্কিত সেই জমির পূর্ণ মালিকানা রামলাল ট্রাস্টকে দিয়েছিল। পাশাপাশি সরকারকে নির্দেশ দিয়েছিল মন্দির নির্মাণে তত্ত্বাবধায়ক ট্রাস্ট গঠন করতে হবে। সেই রায়ে বাবরি ধ্বংসের নিন্দা করে অ্যাকশন কমিটিকে বিকল্প ৫ একর জমি প্রদানের নিদান দিয়েছিল শীর্ষ আদালত। ১৯৯২ সালে বাবরি ধ্বংসের পর থেকেই ধংসস্তুপ পড়ে ওই বিতর্কিত জমিতে। ক্রমাগত মামলা ও শুনানির বেড়াজালে সেই স্তুপ সরায়নি কোনও পক্ষই । এদিকে অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ডের চেয়ারমান এসকিউআর ইলিয়াস বলেছেন, আমরা আবেদনকারীদের মাধ্যমে কোর্টে দরবার করব। সেই জমিতে রামমন্দির নির্মাণের আগে অবশ্যই বাবরির ধ্বংসস্তুপ সরানোর প্রয়োজন আছে। 

"আপনাদের সঙ্গে গোটা ভারত উৎসব করছে": অসমে বোরো শান্তি চুক্তি বিষয়ে মোদি

অযোধ্যার এক পীর সইদ একলাক আহমাস বলেছেন, অযোধ্যা শহরেই এমন অনেক জমি আছে, যেখানে সহজেই সেই ধংসস্তুপ রাখা যাবে। এদিকে, দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণের ঠিক দুদিন আগে বুধবার অযোধ্যায় রামমন্দির নির্মাণের জন্য ট্রাস্টের ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তবে তাঁর সেই ঘোষণা, দিল্লি নির্বাচনের আবহে হলেও, নির্বাচন কমিশন জানিয়েছিল, যেহেতু সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে সরকারকে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতেই হবে, সেই কারণে এক্ষেত্রে আদর্শবিধি লঙ্ঘিত হবে না।

লোকসভায় প্রধানমন্ত্রী মোদি বলেছিলেন, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা করতে যাচ্ছি এবং তাতে আমি খুবই আনন্দিত। অযোধ্যায় রামমন্দির নির্মাণের জন্য একটি বিশদ পরিকল্পনা তৈরি করেছে সরকার। রাম জন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র নামে একটি ট্রাস্ট তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে আমার সরকার, তারাই রামমন্দির নির্মাণ, এবং তার সম্পর্কে অন্যান্য বিষয়ে স্বাধীনভাবে সিদ্ধান্ত নেবে।

প্রধানমন্ত্রী জানান, এলাকার পুরো ৬৭ একর জমিই ট্রাস্টের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে, “অযোধ্যার পবিত্রতা রক্ষা এবং মন্দির নির্মাণের জন্য, কোটি কোটি ভক্তদের প্রয়োজনীয়তার কথা মাথায় রাখা হয়েছে”।

(PTI থেকে সংগৃহীত)