This Article is From Feb 15, 2019

কাশ্মীর হামলার পর সরকারে পাশে থাকার বার্তা দিলেন রাহুল,বললেন, এটা রাজনৈতিক বিতর্কের সময় নয়

কঠিন সময়ে (Pulwama Terror Attack) সরকারের পাশে আছি।  কাশ্মীরে  জঙ্গি হামলার পর এ   কথাই বললেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী।  

Pulwama Terror Attack: হামলার পর থেকেই দেশজুড়ে নিন্দার ঝড় শুরু হয়েছে।

হাইলাইটস

  • রাহুল,বললেন, এটা রাজনৈতিক বিতর্কের সময় নয়
  • আগামী কয়েকদিন অন্য কোনও আলোচনা নয় বলে জানালেন রাহুল
  • পুলওয়ামার জঙ্গি হানায় মৃত্যু হয় চল্লিশেরও বেশি সিআরপিএফ জওয়ানের
নিউ দিল্লি:

কঠিন সময়ে সরকারের পাশে আছি।  কাশ্মীরে  জঙ্গি হামলার পর এ   কথাই বললেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী।  পাশাপাশি তিনি জানিয়ে দিলেন আগামী কয়েক দিন সরকারকে এই ঘটনার জন্য দায়ী করে কোনও বক্তব্য রাখবেন না কংগ্রেস। তিনি বলেন এটা রাজনৈতিক বিতর্ক করার সময় নয়। অন্যকে দোষ দেওয়ার সময়ও নয়।  দেশের কথা ভেবে পদক্ষেপ করার সময় উপস্থিত হয়েছে। শেষে আমি এটাই বলতে চাই যে শুধু কংগ্রেস নয় প্রায় সমস্ত বিরোধীরাই সরকারের পাশে আছে,  দেশের  সেনা বাহিনীর পাশে আছে।  কিন্তু এখন অন্য কোনও আলোচনা করার সময় নয়।  রাহুলের বার্তা আসার আগে থেকেই সরকারের সমালোচনায়  সরব হয়েছে  কংগ্রেস ।  এআইসিসির মুখপাত্র রণদীপ  সুরজেওয়ালা  অভিষেক মনু সিংভি টুইটারকে  ব্যবহার করে  কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে আঘাত হেনেছেন,।  তাদের দাবি নিরাপত্তা গাফিলতি জন্যই এত জনের প্রাণ গিয়েছে।  কংগ্রেস সভাপতির এই বার্তার  আসার পর  দলীয় সতীর্থরাও যে সে রাস্তায়  আর হাটবেন না  সেটা বলাই যায়।  

    

জঙ্গি হামলার দায় অস্বীকার পাকিস্তানের, বলল ''গুরুতর চিন্তার বিষয়''

হামলার পর থেকেই দেশজুড়ে নিন্দার ঝড় শুরু হয়েছে।   প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি থেকে শুরু করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং সকলেই পাকিস্তানকে যোগ্য জবাব দেওয়ার কথা বলেছেন।  অন্যদিকে,  আর পাঁচটা  হামলার মতো এবারও নিজেদের যোগাযোগের কথা অস্বীকার করেছে ইসলামাবাদ।  বিবৃতি  জারি করে পাক বিদেশ মন্ত্রক  জানিয়েছে কাশ্মীরের ঘটনা চিন্তিত হওয়ার মতো বিষয়।  বিশ্বের যে কোনও প্রান্তে  যখন সন্ত্রাসবাদ এখন তার বিরোধিতা করে পাকিস্তান।  সংবাদমাধ্যম থেকে শুরু করে ভারতের সরকার যেভাবে ঘটনার সঙ্গে পাকিস্তানকে জড়িয়ে দিচ্ছে তা ঠিক নয়।  পাকিস্তান যাই বলুক না কেন এই ঘটনায় যে তাদের ওপর চাপ বাড়বে তা বলাই যায়।  আমেরিকা ইতিমধ্যেই জানিয়েছে পাকিস্তানকে নিজেদের দেশে থাকা জঙ্গিদের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করতে হবে।  পাকিস্তানের মাটি কে কাজে লাগিয়ে সন্ত্রাস কায়েম করার যে চেষ্টা শুরু হয়েছে তা যে কোনও মূল্যে রুখতে হবে।