দেশের সবচেয়ে দীর্ঘ মেয়াদে থাকা অকংগ্রেসি প্রধানমন্ত্রী হিসাবে রেকর্ড মোদির

PM Narendra Modi: ২০১৪ সালে প্রথমবার প্রধানমন্ত্রী পদের মেয়াদ পূর্ণ করে ফের নির্বাচিত হন নরেন্দ্র মোদি, ২০১৯ সালের ৩০ মে দ্বিতীয়বার শপথ নেন তিনি

দেশের সবচেয়ে দীর্ঘ মেয়াদে থাকা অকংগ্রেসি প্রধানমন্ত্রী হিসাবে রেকর্ড মোদির

PM Modi: সম্প্রতি রামমন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের অনুষ্ঠানে যান নরেন্দ্র মোদি

হাইলাইটস

  • প্রধানমন্ত্রীত্বের মেয়াদের হিসাবে মোদি ভেঙে দিলেন বাজপেয়ীর রেকর্ড
  • অকংগ্রেসি প্রধানমন্ত্রী হিসাবে এর আগে দীর্ঘসময় শাসন ক্ষমতায় ছিলেন অটল
  • সেই রেকর্ড ভেঙে এবার দেশের দীর্ঘসময়ের অকংগ্রেসি প্রধানমন্ত্রী হলেন মোদি
নয়া দিল্লি:

অকংগ্রেসি প্রধানমন্ত্রী হিসাবে এক নয়া রেকর্ড গড়লেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (PM Narendra Modi)। এতদিন পর্যন্ত এই রেকর্ড ছিলো অটলবিহারী বাজপেয়ীর (Atal Bihari Vajpayee) দখলে। এবার তাঁকে টপকে গিয়ে নরেন্দ্র মোদিই হলেন সেই ব্যক্তি যিনি ভারতের চতুর্থ দীর্ঘতম মেয়াদে থাকা প্রধানমন্ত্রী হলেন। বৃহস্পতিবার তাঁর দল বিজেপির (BJP) পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, "আজ প্রধানমন্ত্রী মোদি কোনও একজন অ-কংগ্রেসি হিসাবে দেশের প্রধানমন্ত্রী থাকার দীর্ঘতম মেয়াদ পূর্ণ করলেন। (অটল বিহারী) বাজপেয়ী জি তাঁর প্রধানমন্ত্রীত্বের মেয়াদে ২,২৬৮ দিন ছিলেন। আজ প্রধানমন্ত্রী মোদি সেই সময়কালকেও ছাড়িয়ে গেলেন।" এর আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসাবে সুদীর্ঘ মেয়াদে দেশের শাসনক্ষমতায় ছিলেন কংগ্রেসের জওহরলাল নেহেরু, ইন্দিরা গান্ধি এবং মনমোহন সিং।

২০১৪ সালে মোদির নেতৃত্বেই বিজেপি অন্য বিরোধী দলকে পিছনে ফেলে দিয়ে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। সেবছরের ২৬ মে প্রথমবার প্রধানমন্ত্রী হিসাবে শপথ নেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী হিসাবে দ্বিতীয়বার শপথ নেন ২০১৯ সালের ৩০ মে।

নয়া দিল্লির শাসনদণ্ড হাতে নেওয়ার আগে প্রধানমন্ত্রী মোদি ২০০১ সাল থেকে টানা ১৩ বছর নিজের রাজ্য গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

উত্তর গুজরাটের ভাদনগরে জন্মগ্রহণ করা নরেন্দ্র দামোদরদাস মোদি কৈশোরে চা বিক্রি করতেন। কিন্তু সেখানে থেকে জীবনের মোড় ঘুরে গিয়ে বর্তমানে তিনি গোটা ভারতের প্রধানমন্ত্রী, যা অনেকটাই এক রূপকথার গল্পের মতো।

নরেন্দ্র মোদি কৈশোরে অখিল ভারতীয় ছাত্র পরিষদে যোগ দেন যা কিনা বিজেপির আদর্শগত পরামর্শদাতা, রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের ছাত্র সংগঠন। পরবর্তীতে সেই আরএসএসই তাঁকে ১৯৮৫ সালে বিজেপির সক্রিয় সদস্য হিসাবে কাজ করার অনুমতি দেয়। ২০০১ সালে গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী পদে বসার আগে পর্যন্ত তিনি দলের বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ পদের দায়িত্বও সামলে ছিলেন।

দেশে যখন কোনও অকংগ্রেসি প্রধানমন্ত্রী হিসাবে বসেছেন তখনই দেখা গেছে তাঁদের মধ্যে বেশিরভাগই পূর্ণ মেয়াদে সেই ক্ষমতায় থাকতে পারেননি। ইতিহাস ঘাঁটলে দেখা যাবে, জনতা পার্টির প্রধানমন্ত্রী হিসাবে মোরারজি দেশাই ক্ষমতায় ছিলেন ১৯৭৭ সালের ২৪ মার্চ থেকে ১৯৭৯ সালের ২৮ জুলাই পর্যন্ত। তারপর চরণ সিং প্রধানমন্ত্রী হিসাবে ক্ষমতায় ছিলেন ১৯৭৯ সালের ২৮ জুলাই থেকে ১৯৮০ সালের ১৪ জানুয়ারি পর্যন্ত। পরবর্তীকালে জনতা দলের বিশ্বনাথপ্রতাপ সিং ক্ষমতায় এসেছিলেন ১৯৮৯ সালের ২ ডিসেম্বর থেকে ১৯৯০ সালের ১০ নভেম্বর পর্যন্ত। চন্দ্রশেখর ক্ষমতায় ছিলেন ১৯৯০ সালের ১০ নভেম্বর থেকে ১৯৯১ সালের ২১ জুন পর্যন্ত। এইচ ডি দেবগৌড়া প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ক্ষমতায় ছিলেন ১৯৯৬ সালের ১ জুন থেকে ১৯৯৭ সালের ২১ এপ্রিল পর্যন্ত। ইন্দ্রকুমার গুজরাল ক্ষমতার মেয়াদ ছিল ১৯৯৭ সালের ২১ এপ্রিল থেকে ১৯৯৮ সালের ১৯ মার্চ পর্যন্ত।

নরেন্দ্র মোদির আগে যদি কোনও অকংগ্রেসি প্রধানমন্ত্রী দাপট দেখিয়েছিলেন তো তিনি হলেন অটলবিহারী বাজপেয়ী। ১৯৯৮ সালের ১৯ মার্চ বাজপেয়ী প্রথমবার দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন ৷ প্রথমবার তাঁর কার্যকালের মেয়াদ শেষ হয় ১৩ অক্টোবর ১৯৯৯ ৷ ফের দ্বিতীয়বার দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসাবে ১৯৯৯ সালের ১৩ অক্টোবর থেকে ২০০৪ সালের ২২ মে পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকেন। অটল বিহারী বাজপেয়ীর সেই রেকর্ড ভেঙে দিয়ে এবার নতুন রেকর্ড গড়লেন একসময় তাঁরই রাজনৈতিক অনুগামী নরেন্দ্র মোদি।