‘‘৩৭০ যদি এতই অত্যাবশ্যক ছিল, তাহলে তা স্থায়ী হয়নি কেন?’’: কংগ্রেসকে কটাক্ষ প্রধানমন্ত্রীর

২০১৪ সালে প্রথম বার ক্ষমতায় আসার পরে গত পাঁচ বছরে তাঁর সরকার কেবল দেশ ও দেশের মানুষের কথা ভেবেছে ও তাঁদের জন্য নিরলস কাজ করে গিয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

‘‘৩৭০ যদি এতই অত্যাবশ্যক ছিল, তাহলে তা স্থায়ী হয়নি কেন?’’: কংগ্রেসকে কটাক্ষ প্রধানমন্ত্রীর

এই নিয়ে ষষ্ঠবার স্বাধীনতা দিবসে ভাষণ দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

New Delhi:

দেশের ৭৩তম স্বাধীনতা দিবসে (73rd Independence Day) জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (PM Modi)। জানালেন, তাঁর সরকার এই দ্বিতীয় পর্যায়ে ১০ সপ্তাহের স্বল্পসময়ে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ করেছে। যার মধ্যে অন্যতম তাৎক্ষিণক তিন তালাক রদে বিল পাস করা এবং জম্মু ও কাশ্মীরের (J&K) ‘স্পেশাল স্ট্যাটাস' (Special Status) তুলে নেওয়া। তিনি বলেন, ‘‘যাঁরা ৩৭০ ধারাকে সমর্থন করছেন, তাঁদের কাছ থেকে দেশ জানতে চায়, যদি এটা এতই অত্যাবশ্যক এবং জীবন-পরিবর্তনশীল বলে আপনাদের বিশ্বাস, তাহলে কেন ৭০ বছরে এটা অস্থায়ী থেকে গেল? কেন আপনাদের বিপুল জনাদেশকে কাজে লাগিয়ে একে স্থায়ী করলেন না?''

প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্য যে আসলে কংগ্রেসের দিকে, তা বুঝতে সমস্যা হয় না। এই বিল দ্রুত সংসদে পেশ করে তা পাস করিয়ে নেওয়ার অভিযোগ জানিয়েছিল কংগ্রেস।

স্বাধীনতা দিবসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভাষণ: সেরা দশ উদ্ধৃতি

বৃহস্পতিবার পতাকা উত্তোলনের পর লালকেল্লায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘‘৩৭০ ধারা বাতিল করাটা একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ সর্দার বল্লভভাই প্যাটেলের ‘ইউনাইটেড ইন্ডিয়া'র স্বপ্ন পূরণ করতে।''

তিনি আরও বলেন, গত ৭০ বছরে যা হয়নি তাঁর সরকার তা ৭০ দিনে করে দেখিয়েছে।

"সমস্ত ভারতীয়কে জানাই স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা, জয় হিন্দ", ট্যুইট প্রধানমন্ত্রী মোদির

সংসদে দুই তৃতীয়াংশ ভোট পেয়ে এই বিল পাস হয়েছে একথা মনে করিয়ে প্রধা‌নমন্ত্রী বলেন, ‘‘তার মানে সকলেরই মনে এটা ছিল। কি‌ন্তু কেউ উদ্যোগটা নিতে চায়নি।''

তিন তালাক বিল নিয়েও কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘‘আমাদের মুসলিম বোন ও কন্যারা ভয়ের সঙ্গে জীবন কাটাতেন। তাঁরা নিজেদের বন্দি মনে করতেন। কেউ তিন তালাকের দুর্ভাগ্যকে মেনে নিতে পারতেন। কেউ পারতেন না। আমরা কেন আরও আগে এনিয়ে কথা বলিনি? এমনকী মুসলিম দেশগুলিতেও এটি বন্ধ করা হয়েছে। কিন্তু ভারতে চালু ছিল। আমাদের সবার এই সামাজিক অন্যায়ের বিরুদ্ধে গলা তোলার সময় এসেছে এবং আমাদের মুসলিম বোন ও কন্যাদের অধিকারের জন্য তাদের পাশে দাঁড়ানোর সময় এসেছে।''

এই নিয়ে ষষ্ঠবার স্বাধীনতা দিবসে ভাষণ দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। নতুন সরকার গঠনের পর এটাই ছিল তাঁর প্রথম ভাষণ। সাদা কুর্তা ও তাঁর প্রথাগত সাফা যা এবার লাল ও সবুজ বর্ণে রঞ্জিত ছিল, এই পোশাকে লালকেল্লায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন তিনি।

লালকেল্লায় আসার আগে রাজঘাটে মহাত্মা গান্ধির উদ্দেশে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেন নরেন্দ্র মোদি।

শুরুতেই বন্যাবিধ্বস্ত মানুষের দুরবস্থার কথা বলেন তিনি। ভাষণে উঠে আসে জল সংকটের কথাও।

২০১৪ সালে প্রথম বার ক্ষমতায় আসার পরে গত পাঁচ বছরে তাঁর সরকার কেবল দেশ ও দেশের মানুষের কথা ভেবেছে ও তাঁদের জন্য নিরলস কাজ করে গিয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ২০১৯ সালে জনাদেশ থেকে স্পষ্ট, মানুষ তাঁদের সরকারকে বিশ্বাস করেছে।

নিজের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকেও সবাইকে স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়েছে‌ন তিনি।