"কিছু দল পাকিস্তানের মতো ভাষায় কথা বলছে": নাগরিকত্ব বিল প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী মোদি

Citizenship Amendment Bill: সোমবারই লোকসভায় ভোটাভুটিতে পাস হয়ে যায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল, বুধবার রাজ্যসভায় এই বিল পেশের পর বিতর্কের সম্ভাবনা রয়েছে

Citizenship Bill: অনেকেই পাকিস্তানের ভাষাতে কথা বলছে, বিরোধীদের উদ্দেশে তোপ প্রধানমন্ত্রীর

হাইলাইটস

  • কিছু দল পাকিস্তানের মতো ভাষায় কথা বলছে, উষ্মা প্রকাশ প্রধানমন্ত্রীর
  • সোমবারই লোকসভায় ভোটাভুটিতে পাস হয়ে যায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল
  • বুধবার রাজ্যসভা উত্তপ্ত হওয়ার সম্ভাবনা এই বিল নিয়ে
নয়া দিল্লি:

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল (Citizenship Amendment Bill) নিয়ে বিরোধীদের আচরণে উষ্মা প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সূত্রের খবর, বুধবার বিজেপির বৈঠকে তিনি (PM Narendra Modi) বলেন, কিছু দল নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলটির বিষয়ে পাকিস্তানের মতো একই ভাষায় কথা বলছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ সোমবারই লোকসভায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল, ২০১৯ পেশ করেন, সেই বিলটি সেখানে ভোটাভুটির মাধ্যমে পাসও হয়ে যায়। বুধবার রাজ্যসভায় ওই বিল নিয়ে বিরাট বিতর্ক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। রাজ্যসভায় এই বিলটি উত্থাপনের আগে বুধবার সকালেই সংসদের গ্রন্থাগার ভবনে নিজেদের রণনীতি ঠিক করতে সংসদীয় বৈঠকে বসে বিজেপি। ওই বৈঠকের সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সংসদীয় বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং, রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল, সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী প্রহ্লাদ জোশী, তথ্যপ্রযুক্তি ও আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ, বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর এবং মহিলা ও শিশু উন্নয়ন মন্ত্রী স্মৃতি ইরানী সহ প্রায় সব শীর্ষস্থানীয় বিজেপি নেতারাই। 

"নাগরিকত্ব বিল স্বর্ণাক্ষরে লেখা হবে, এটি ধর্মীয় নিপীড়ন থেকে পালিয়ে আসা মানুষদের স্থায়ীত্ব তথা স্বস্তি দেবে" রাজ্যসভায়  বিতর্কিত বিলটি উত্থাপনের কয়েক ঘণ্টা আগে বিজেপির সংসদীয় বৈঠকে ওই কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী মোদি।

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের মাধ্যমে উত্তর-পূর্বে "জাতির ভিত্তিতে সাফাই" করতে চাইছে কেন্দ্র, টুইট রাহুল গান্ধির

প্রায় সাত ঘণ্টা প্রচণ্ড বিতর্কের পর সোমবার অনেক রাতে লোকসভায় পাস হয় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল । এই বিলের পক্ষে ৩১১ টি ভোট এবং বিপক্ষে ৮০টি ভোট পড়ে।

কংগ্রেস সহ বেশ কিছু বিরোধী দল এই বিলটির তীব্র সমালোচনা করেছে। নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলে অমুসলিম পাকিস্তানি, আফগান, এবং বাংলাদেশীদের ভারতীয় নাগরিক করার রাস্তা সহজ করে দেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। এই বিলটিকে বৈষম্যমূলক বলে উল্লেখ করে বিরোধীরা বলেন এটি দেশের সংবিধানের সাম্য এবং ধর্মনিরপেক্ষতার নীতিকে লঙ্ঘন করে।

CAB-র পক্ষে বিজেপিকে সমর্থন জানিয়ে শিবসেনা ভোট দেওয়ায় ক্ষুব্ধ সনিয়া গান্ধি!

এই বিলের বিরুদ্ধে উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যেও বিক্ষোভ-আন্দোলন ছড়িয়ে পড়েছে, প্রস্তাবিত আইনের ফলে ওই রাজ্যগুলির জনসংখ্যার পরিবর্তন হবে এবং প্রতিবেশী বাংলাদেশ থেকে প্রচুর মানুষকে এ দেশে এসে নাগরিকত্ব নেওয়ার ব্যাপারে উৎসাহিত করবে, এই নিয়েই শঙ্কায় বিক্ষোভকারীরা।

দেখে নিন এই খবরগুলোও:

More News