"মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে যে সমস্যাগুলো তুলে ধরেছিলাম...", GST সমালোচনায় জবাবদিহি প্রধানমন্ত্রীর

কংগ্রেস আমলে বহুবছর ধরে ঠাণ্ডা ঘরে পরে ছিল জিএসটি প্রস্তাবনা। তিনি সরকারে এসে সেই করব্যবস্থাকে দিনের আলো দেখিয়েছেন, এমন দাবি করেন প্রধানমন্ত্রী। 

"এই সব সমস্যা যা আমি মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তুলেছিলাম, সেটাই প্রধানমন্ত্রী হিসেবে সমাধান করেছি।" জিএসটি'র সমালোচনার জবাবে বলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

হাইলাইটস

  • "মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তোলা সমস্যার সমাধান প্রধানমন্ত্রী হিসেবে করেছি"
  • জিএসটি সমালোচনার জবাবে এদিন সংসদে বলেন প্রধানমন্ত্রী
  • কংগ্রেস আমলে এই কর ব্যবস্থাকে ঠাণ্ডা ঘরে পাঠানো হয়েছিল, অভিযোগ তাঁর
নয়াদিল্লি:

"মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে জিএসটি (GST) প্রস্তাবনার ওপর যে সমস্যাগুলো তুলে ধরেছিলাম, প্রধানমন্ত্রী হিসেবে সেই সমস্যার সমাধান করেছি", বৃহস্পতিবার সংসদে দাঁড়িয়ে এই দাবি করলেন প্রধানমন্ত্রী (PrimE Minister) নরেন্দ্র মোদি। জিএসটি'র চড়া হার  এবং অনিয়ন্ত্রিত রূপায়ণ, দেশে বিনিয়োগে মন্দার পরিস্থিতি তৈরি করেছে। নিম্নমুখী জিডিপি। গত তিন বছরে বিরোধী শিবির থেকে একাধিকবার এই আক্রমণ উড়ে এসেছে। এদিন সংসদে দাঁড়িয়ে সেই সমালোচনার জবাব দিলেন প্রধানমন্ত্রী (Narendra Modi)। বৃহস্পতিবার এমন দাবিই করেছে গেরুয়া শিবির। কংগ্রেস আমলে বহুবছর ধরে ঠাণ্ডা ঘরে পরে ছিল জিএসটি প্রস্তাবনা। তিনি সরকারে এসে সেই করব্যবস্থাকে দিনের আলো দেখিয়েছেন। বৃহস্পতিবার এমন দাবি করেন প্রধানমন্ত্রী। 

‘‘কাশ্মীরের পরিচয় সমাধিস্থ হয়েছিল ১৯৯০-এর ১৯ জানুয়ারি রাতে'': প্রধানমন্ত্রী

তাঁর দাবি, "জিএসটি পাসের সময় একাধিক সংশোধন আনা হয়েছিল। দেশের পক্ষে এটা বড় সাফল্য। যদি আপনাদের (কংগ্রেস) জিএসটি প্রসঙ্গে এত জ্ঞান আর দূরদর্শিতা থাকে, তাহলে এতদিন এই বিল পাস কেন করাননি। ঝুলিয়ে কেন রেখেছিলেন?" তাঁর আরও দাবি, "উৎপাদন ক্ষেত্র থেকে আয় কীভাবে বাড়ানো সম্ভব, সেটা আপনাদের প্রস্তাবনায় উল্লেখ ছিল না। কিন্তু অরুণ জেটলিজির জিএসটি ভাষণে সেই প্রসঙ্গে দিশা দেখানো হয়েছিল। এই সব সমস্যা, যা আমি মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তুলেছিলাম, সেটাই প্রধানমন্ত্রী হিসেবে সমাধান করেছি।"

কংগ্রেসের বিরুদ্ধে কড়া আক্রমণ প্রধানমন্ত্রী মোদির, সেরা ১০টি উক্তি

নাগরিকত্ব সংশোধন আইন এবং জাতীয় জনসংখ্যাপঞ্জী নিয়ে বিরোধীদের আক্রমণের জবাবেও বৃহস্পতিবার সংসদে বিরোধীদের একহাত নিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি । রাজ্যসভায় তিনি বলেন, “যারা এনপিআর বা জাতীয় জনসংখ্যাপঞ্জী করেছিল, তারাই এখন ভুল তথ্য ছড়াচ্ছে। এটা ২০১০ সালে করা হয়েছিল, আমরা ২০১৪ সাল ক্ষমতায় আসি...আমাদের কাছে সব রেকর্ড রয়েছে”। রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর বিতর্কে তিনি রাজ্যসভায় বলেন, “কেন আপনারা মিথ্যা রটাচ্ছেন? কেন আপনারা মানুষকে বোকা বানাচ্ছেন”?

“২০০৪ সালে আসে এনপিআর, কেন বিরোধীরা মানুষকে বোকা বানাচ্ছে”, তোপ প্রধানমন্ত্রীর

এদিন কাশ্মীরের ৩৭০ ধারা বিলোপের প্রসঙ্গেও সরব হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি দাবি করেছেন, জম্মু ও কাশ্মীরের পরিচয় সমাধিস্থ হয়েছিল ১৯৯০ সালের ১৯ জানুয়ারি। তিনি বলেন, ‘‘কাশ্মীর ভারতের মুকুট। কাশ্মীরের পরিচয়কে বোমা ও সন্ত্রাসবাদ দিয়ে খর্ব করা হয়েছিল। ১৯৯০ সালের জানুয়ারির সেই কালো রাত্রিতে কিছু মানুষ কাশ্মীরের পরিচয়কে সমাধিস্থ করেছিল। কেউ কেউ বলছেন ৩৭০ ধারার বিলুপ্তিতে আগুন জ্বলবে। কেউ কেউ কয়েকজনকে জেলে পাঠানোর দিকে আঙুল তুলছেন। এই কক্ষ সংবিধানকে রক্ষা করছে। এটা সংবিধানের প্রতি উৎসর্গীকৃত।''