ওয়েবো ছাড়লেন প্রধানমন্ত্রী! কিন্তু রয়ে গেল মোদি-জিনপিং ছবি

যেটা প্রাযুক্তিক ত্রুটির কারণে হাতে মোছা হয়েছে। এমনটাই জানিয়েছে তাঁর দফতর

ওয়েবো ছাড়লেন প্রধানমন্ত্রী! কিন্তু রয়ে গেল মোদি-জিনপিং ছবি

প্রায় আড়াই লক্ষ অনুরাগী ছিল সেই অ্যাকাউন্টে।

নয়াদিল্লি:

৫৯টি চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধের আবহে ওয়েবো অ্যাকাউন্ট ছাড়লেন প্রধানমন্ত্রী (PM left weibo account)। এই সোশাল মাধ্যম থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর ছবি, ভিডিও এবং পোস্ট। এই অ্যাকাউন্টে প্রধানমন্ত্রীর ১১৫টি পোস্ট ছিল। যেটা প্রাযুক্তিক ত্রুটির কারণে হাতে মোছা হয়েছে। এমনটাই জানিয়েছে তাঁর দফতর। যদিও, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে চিনা প্রেসিডেন্টের (Modi-Xinping) ছবি মোছা যায়নি। প্রসঙ্গে সূত্রের খবর, চিনের প্রেসিডেন্টের ছবি মুক্তি বাধা দিচ্ছে সে দেশের সফটওয়্যার। তাই রয়ে গিয়েছে ওই ছবি। এদিকে, ইন্দো-চিন সংঘাতের আবহে এবার সড়ক নির্মাণে পড়শি দেশকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে চলেছে ভারত। বুধবার এই ইঙ্গিত দিলেন সড়ক ও পরিবহণ মন্ত্রী নীতিন গডকড়ি। তিনি বলেছেন, "সড়ক নির্মাণে একক অংশীদারিত্ব কিংবা যৌথ অংশীদারিত্বে চিনের ওপর নিষেধাজ্ঞা চাপানো হবে।"

সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি আরও বলেছেন, "এমএসএমই ক্ষেত্রে চিনি বিনিয়োগেও নিষেধাজ্ঞা চাপানো হবে।" সম্প্রতি চিনের ওপর ডিজিটাল স্ট্রাইক চাপাতে ৫৯টি অ্যাপস নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে ভারত। সেই তালিকায় টিকটক, ইউসি ব্রাউজারের মতো অ্যাপস আছে। এবার পরিকাঠামোর মতো বিশাল ক্ষেত্রে চিনকে আটকাতে উদ্যোগ নিল কেন্দ্র। এমনটাই সূত্রের খবর।

ইন্দো-চিন সীমান্ত সমস্যা সমাধানে বুধবারের বৈঠক নিষ্ফলা । গত দুই মাসে এই নিয়ে তিন নম্বর বৈঠক। কিন্তু মেলেনি সমাধানসূত্র। আরও কয়েকটি পর্বের ওপর নির্ভর করছে বৈঠকের ভবিষ্যৎ। এদিন এমন ইঙ্গিত দিয়েছে প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের একটি সূত্র। সামরিক পর্যায়ের এই বৈঠক গত ৩০ জুন প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর ভারতে, চুশূলে হয়েছে। সেই সূত্র দাবি করেছে, আরও বৈঠকের সম্ভাবনা রয়েছে। সামরিক ও কূটনৈতিক স্তরে এই বৈঠকগুলো হবে। পারস্পরিক সমঝোতার ভিত্তিতে এই উত্তেজনা প্রশমনে সিদ্ধান্ত হবে। পাশাপাশি সীমান্তে শান্তি ও স্থিতাবস্থা ফেরান হবে।" প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের দাবি, দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে মজবুত রাখতে সীমান্তে স্থিতাবস্থা ফেরানো প্রাথমিক প্রাধান্য। এই বিষয়ে সহমত ইন্দো-চিন।

এদিকে, ভারতে ৫৯ টি চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করার ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। সেই সিদ্ধান্তে উদ্বিগ্ন চিন, পরিস্থিতি খতিয়ে দেখছে তারা, সংবাদসংস্থা এএনআই সূত্রে খবর। ভারতের তথ্য় প্রযুক্তি মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়, ভারতীয় গোয়েন্দারা জানিয়েছেন যে, অ্য়ান্ড্রয়েড ও আইওএস প্ল্য়াটফর্মে থাকা মোবাইল অ্য়াপকে অপব্য়বহার করে গ্রাহকদের গোপনীয়তা লঙ্ঘনের চেষ্টা করা হচ্ছে। সেই কারণেই সবদিক বিবেচনা করে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হল। ভারতের এই কড়া পদক্ষেপ জানার পরেই নড়েচড়ে বসে চিন। সেদেশের বিদেশমন্ত্রকের ঝাও লিজিয়ান বলেন, "ঘটনা জানার পর চিন গভীরভাবে উদ্বিগ্ন এবং পরিস্থিতি যাচাই করে দেখছে"।