সোনার বাংলা গড়ছেন হাসিনা দাবি হাই কমিশনারের

  সোনার বাংলা গড়ার কাজ করছেন  বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী সেখ  হাসিনা। এমনই মনে  করেন  ভারতে  বাংলাদেশের  হাইকমিশনার সৈয়দ মুয়াজ্জেম আলি।

সোনার বাংলা গড়ছেন হাসিনা দাবি হাই কমিশনারের

দেশে উন্নয়নের কাজ কতটা হয়েছে তা বোঝাতে গিয়ে বাংলাদেশের জিডিপি তথ্য পেশ করেন তিনি।

নিউ দিল্লি:

সোনার বাংলা গড়ার কাজ করছেন  বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী সেখ  হাসিনা। এমনই মনে  করেন  ভারতে  বাংলাদেশের  হাইকমিশনার সৈয়দ মুয়াজ্জেম আলি। তাঁর মনে  হয় বঙ্গবন্ধু মুজিবর রহমান যে  স্বপ্ন দেখেছেন তা  পূরণ করার চেষ্টা  করছেন হাসিনা।  জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৯৭১ সালের   মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে  এক সেমিনারে বক্ত্যব রাখতে গিয়ে হাইকমিশনার বলেন, বঙ্গবন্ধুর বলিষ্ঠ নেতৃত্ব বাংলাদেশকে  মুক্তিযুদ্ধের পরবর্তী সময়ে ঘুড়ে দাঁড়াতে সাহায্য করে। এরপর মেয়ে হাসিনাকে বাবা বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে এক আসনে বসিয়ে  হাইকমিশনার বলেন, পিতা ও কন্যাকে সবচেয়ে  ভাল ব্যাখ্যা করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মোদী বলেছেন  বাবা দেশের জন্ম দিয়েছেন আর মেয়ে  সেটাকে রক্ষা করেছেন।

দেশে উন্নয়নের কাজ কতটা হয়েছে তা বোঝাতে গিয়ে বাংলাদেশের জিডিপি তথ্য পেশ করেন তিনি। তাঁর দেওয়া  তথ্য বলছে বাংলাদেশের বর্তমান জিডিপি  7.86 শতাংশ। বাংলাদেশ যে আর্থিক বৃদ্ধির মডেন হয়ে উঠেছে  সেকথাও জানিয়েদেন হাইকমিশনার।

আমাদের ঘাড়ে রেখে বন্দুক চালাবার দিন শেষ, আমেরিকাকে তোপ ইমরানের

আর মাস খানেকের মধ্যেই বাংলাদেশে নির্বাচন হবে। তাঁর আগে হাইকমিশনারের এই বক্তব্যের রাজনৈতিক দিকও রয়েছে।  এবারই প্রথম বাংলাদেশের সাধারণ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার হবে। শাসক দলের সঙ্গে  লড়তে তৈরি বিরোধীরাও। তবে নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় ধাক্কা খেয়েছে  বিরোধী শিবির। খারিজ হয়ে গিয়েছে  বাংলাদেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার প্রার্থীপদ। দুটি দুর্নীতি মামলায় অপরাধ  প্রমাণ হওয়ায় জেলে আছেন বংলাদেশের সবচেয়ে বড় বিরোধী দল বিএনপির সর্বময় নেত্রী। জেল থেকেই ভোটে লড়তে চেয়েছিলেন খালেদা কিন্তু বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন তাঁর প্রার্থী পদ বাতিল করে দিল। প্রার্থী পদ খারিজ হবে এটা কয়েক দিন আগেই বোঝা হয়ে গিয়েছিল। বাংলাদেশ হাইকোর্ট  জানিয়ে দেয় আড়াই বছরের বেশি সাজা হলে কেউ ভোটে লড়তে পারবে না। আর খালেদার সাজা  তার চেয়ে অনেক বেশি  দিনের জন্য হয়েছে।                            

শুধু  খালেদা নয় দেশের আরও ১৫ জন হাইপ্রোফাইল প্রার্থীদের প্রার্থী পদ নানা কারণে  বাতিল হয়ে গিয়েছে। তবে  নিয়ম অনুসারে প্রার্থী পদ বাতিল হলে ট্রাইব্যুনালে আবেদন করা যায়।

আরও খবর পড়ুন এখানে।