প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার চক্রান্ত : দশটি তথ্য যা জানতেই হবে

ভীমা কোরেগাঁও ঘটনার তদন্তে নেমে এমনই এক চিঠির হদিশ পেয়েছে পুণে পুলিশ। বৃহস্পতিবার এই চিঠিটি আদালতে জমাও দেওয়া হয়েছে তাদের তরফে। তালিকায় রয়েছে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফডনবিশও।

প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার চক্রান্ত : দশটি তথ্য যা জানতেই হবে

হাইলাইটস

  • Pune cops say letter seized from suspected Maoist mentioned plot
  • Say it talked of "Rajiv Gandhi-type incident" during one of his roadshows
  • We are always concerned about our PM's security: Home Minister
নিউ দিল্লি: প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকেও "রাজীব গান্ধির কায়দায়' হত্যা করার চক্রান্ত করছে মাওবাদীরা। ভীমা কোরেগাঁও ঘটনার তদন্তে নেমে এমনই এক চিঠির হদিশ পেয়েছে পুণে পুলিশ। বৃহস্পতিবার এই চিঠিটি আদালতে জমাও দেওয়া হয়েছে তাদের তরফে। তালিকায় রয়েছে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফডনবিশও। প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা সুরক্ষিত করতে সরকার সদা তত্পর বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। তাঁর কথায়, "প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা নিয়ে আমরা সবসময় সতর্ক। মাওবাদীরা একটি হেরে যাওয়া লড়াই লড়ছে।''

এই সংক্রান্ত 10টি তথ্য, যা আপনাকে জানতেই হবে:

  1. পুলিশসূত্রে খবর, দিল্লির নিবাসী রণ উইলসনের বাড়ি থেকে এই চিঠিটি পাওয়া গিয়েছে। 2017 সালের 18ই এপ্রিল ""কমরেড প্রকাশ''-কে এটি লেখা হয়। বুধবার নিষিদ্ধ সিপিআই - মাওবাদীর সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে রনা সহ আরও চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। চিঠিতে ""আর'' - নামে সই করা আছে। পুলিশের দাবী, এই ""আর'' - হল ""রনা উইলসন''-র সংক্ষিপ্ত নাম।

  2.  রনাকে হেফাজতে চেয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে আবেদন করা হয়। সেখানে পুলিশের আইনজীবী বলেন, রাজনৈতিক বন্দীমুক্তি কমিটি নামে একটি সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত রনার দিল্লির বাড়ি থেকে এই চিঠি পাওয়া গিয়েছে।

  3.  সংবাদ সংস্থা এএনআইয়ের তরফে চিঠিটি প্রকাশ করা হয়েছে। চিঠিতে বলা হয়েছে, ""হিন্দু ফ্যাসিবাদকে হারানোই আমাদের মূল কর্মসূচি এবং প্রধান দূর্ভাবনা''। চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, "" আমাদের আদর্শে বিশ্বাসী বিভিন্ন সংগঠন, রাজনৈতিক দল, প্রতিনিধি ও সংখ্যালঘুদের এক জায়গায় আনার চেষ্টা করছি ''।

  4. চিঠিতে উল্লেখ, "" বিহার ও পশ্চিমবঙ্গে বড় পরাজয় হলেও 15টির বেশি রাজ্যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বিজেপি সরকার গঠনে সমর্থ হয়েছেন।'' তাই ""সিনিয়র কমরেড''-কে লেখা চিঠিতে ""মোদি জমানা শেষ করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে'' প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে আমেরিকার M-4 রাইফেল কেনার জন্য আট কোটি টাকা জোগাড় করার কথাও বলা হয়েছে এখানে।

  5.  কোর্টে শুনানী চলাকালীন চিঠিতে উল্লিখিত প্রধানমন্ত্রীকে খুন করার চক্রান্তের অংশটি পড়ে শোনান সরকারি আইজীবী উজ্জ্বলা পাওয়ার। অংশটি এইরকম, ""রাজীব গান্ধির মতো আরও একটি ঘটনা ঘটানোর ব্যাপারে আমরা চিন্তাভাবনা করছি। পরিকল্পনাটি আত্মঘাতি এবং আমাদের ব্যর্থ হওয়ারও সম্ভাবনা আছে কিন্তু পার্টির উচিত এই নিয়ে চিন্তাভাবনা করা।''

  6.  মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্র দফতরকে উদ্ধৃত করে সংবাদ সংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফডনবিশ সপ্তাহখানেক আগে খুনের হুমকির দুটি চিঠি পেয়েছেন। পুলিশকে সেবিষয়ে জানিয়েছেন তিনি। সম্প্রতি গাডচিরোলিতে অভিযান চালিয়ে 39 জন মাওবাদীকে খতম করেছে প্রশাসন। তার কিছুদিনের মধ্যেই এই চিঠি সামনে আসাতেই স্বাভাবিক ভাবেই শোরগোল পরে গেছে বিভিন্ন মহলে।

  7.  এই বিষয়ে বিজেপি নেতা নলিন কোহলি জানিয়েছেন ,""এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। মাওবাদী এখন খুব চাপে আছে। এই সময় এই ধরনের হুমকি যথেষ্ট ক্ষতিকারক ও ভয়ংকর। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে এই ধরনের সংগঠনগুলি যোগসূত্র তৈরি করছে।''

  8. সিপিএম নেতা সিতারাম ইয়েচুরি জানিয়েছেন, ""প্রশাসন তাদের কাজ করবে। কোর্ট সব শুনছে। কোর্টই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিক।''

  9.  কংগ্রেস নেতা সঞ্জয় নিরূপমের মতে, পরিকল্পনা করে এই খবর ছড়ানো হতে পারে। এএনআইকে তিনি জানিয়েছেন, ""আমি বলছি না যে গোটা ঘটনা মিথ্যা। কিন্তু এটা প্রধানমন্ত্রীর পুরনো কৌশল। গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী থাকার সময় থেকেই তিনি এই কৌশল ব্যবহার করছেন। যখনই তাঁর জনপ্রিয়তা কমতে থাকে, ঠিক সেসময়ই এই ধরনের ষড়যন্ত্রের খবর সামনে আসে। তাই এবারের ঘটনায় কতটা সত্যতা আছে, তা প্রমাণ হওয়া দরকার।''

  10.  বুধবার নিষিদ্ধ সিপিআই - মাওবাদীর সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে রনা সহ চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ধৃতদের মধ্যে অন্যান্যরা হলেন দলিত নেতা সুধীর দাওয়ালে, আইনজীবী সুরেন্দ্র গ্যাডলিং, মহেশ রাউত ও সোমা সেন। পুলিশের তরফে এদের শহুরে মাওবাদীদের মাথা- বলে উল্লেখ করা হয়েছে। জানুয়ারি মাসে ভীমা-কোরেগাঁও সংঘর্ষের ঘটনার সঙ্গে এরা প্রত্যেকেই সক্রিয়ভাবে যুক্ত বলে জানা গেছে তবে সমস্ত অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে এই চিঠি বা অন্য সমস্ত নথি ভুয়ো এবং মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর জন্য তৈরি করা হয়েছে বলে আদালতে দাবি করেছেন ধৃতদের আইনজীবী।