ধূসর বিরল র‍্যাটলস্নেক চমকে দিল ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের

র‍্যাটলস্নেকের ছবি দেখে অবাক হওয়ার পাশাপাশি চমকে উঠল মানুষ

ধূসর বিরল র‍্যাটলস্নেক চমকে দিল ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের

11ই জুলাই পোস্ট হওয়ার পর থেকে সাপটার ছবি 7300 বার শেয়ার হয়েছে এবং 3000 এর বেশি রিঅ্যাকশন পেয়েছে।

ধূসর রঙের একটা র‍্যাটলস্নেক ফেসবুকে বহু মানুষের চমক এবং ভীতির কারণ হয়েছে। উইলার এরিয়াল ট্রামওয়ে- টেক্সাস পার্কস এবং ওয়াইল্ডলাইফ তাদের ফেসবুক পেজে সম্প্রতি একটা ছবি পোস্ট করেছে এবং সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীদের থেকে বিভিন্ন ধরণের প্রতিক্রিয়া লাভ করেছে।  

“পার্কের একটা দরজা দিয়ে আমরা এই ছোট্ট বন্ধুকে আসতে এবং শান্ত হয়ে থাকতে দেখেছি; এটা একটা পাহাড়ি র‍্যাটলস্নেক (ক্রোটেলাস লেপিডাস)”, সাপটার ছবির সঙ্গে এই ক্যাপশন দিয়ে পোস্টটা শেয়ার করা হয়। দুই ফুট লম্বা এই সাপ টেক্সাসের এল পাসোতে পাওয়া যায়।

 
 

11ই জুলাই পোস্ট হওয়ার পর থেকে সাপটার ছবি 7300 বার শেয়ার হয়েছে এবং 3000 এর বেশি রিঅ্যাকশন পেয়েছে। অনেকেই ছবিটা আসল কি না ভেবে যেমন অবাক হয়েছেন, তেমনই অনেকেই সাপটা সম্পর্কে তাদের মতামত প্রকাশ করতে দ্বিধা বোধ করেনি।

“এটা কি আসল? আমি এমন রঙের সাপ আগে দেখিনি”, একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী বলেন। “এটা কি ফটোশপ করা?” জানতে চান অপর একজন।

“সুন্দর র‍্যাটলস্নেক, আমি টেক্সাসের বিভিন্ন স্থানে থেকেছি এবং ছোট থেকে 13 ফুটের বেশি লম্বা র‍্যাটলস্নেক ধরেছি। আমি বিভিন্ন ধরণের র‍্যাটলস্নেকের ব্যাপারে শুনেছি কিন্তু এই প্রথমবার এই ধরণের সাপের কথা শুনলাম”, একজন কমেন্টে লেখেন। “আমি এমন রঙের র‍্যাটলস্নেক আগে কোনওদিন দেখিনি, দারুণ দেখতে”, কমেন্টে জানান অপর একজন।

পোস্টের কমেন্টে পার্কের একজন কর্মী জানান, ওই অঞ্চলে ওই রঙের রক র‍্যাটলস্নেক দেখতে পাওয়া অত্যন্ত সাধারণ ব্যপার। কিন্তু যেহেতু তারা পারিপার্শ্বিক পরিবেশের সঙ্গে সহজে মিশে যায় তাই সহজে খুঁজে পাওয়া যায় না। র‍্যাটলস্নেক অত্যন্ত বিষাক্ত প্রজাতির।

এই কারণেই একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী প্রশ্ন করেন, “যদি কেউ ওর ওপর পা তুলে দেয়; ওরা তো গা ঢাকা দিয়ে থাকে? হাসপাতাল?

“হ্যাঁ, একটুও সময় নষ্ট না করে হাসপাতাল যান”, পার্কের কর্মী উত্তরে জানান।

সাপটা পরবর্তীকালে পার্কের কর্মীরা আবার যথাস্থানে সরিয়ে রাখেন।

Click for more trending news


More News