Pariksha Par Charcha 2.0; প্লে স্টেশন নয়, বাচ্চাকে খেলার মাঠে নিয়ে যান, রইল মোদির ১০ টি পরামর্শ

প্রধানমন্ত্রী অভিভাবকদের পরামর্শ দিয়ে বলেন যে, শিশুদের উপর নিজেদের স্বপ্ন বা ইচ্ছা চাপিয়ে দেবেন না, তাতে বাচ্চারা আরও চাপে পড়ে যায়

পরীক্ষার চাপ নিয়ে পড়ুয়াদের সঙ্গে কথা বললেন নরেন্দ্র মোদি

নিউ দিল্লি: দেশের প্রায় দু’হাজারেও বেশি পড়ুয়ার সঙ্গে মুখোমুখি আলোচনায় বসেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। দিল্লির তালকটোরা স্টেডিয়ামে ‘পরীক্ষায় পে চর্চা' অনুষ্ঠানটিতে প্রধানমন্ত্রী মোদি পরীক্ষার্থীদের মানসিক চাপ থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায় বাতলান। প্রধানমন্ত্রী জানান, পরীক্ষার গুরুত্ব আছে, কিন্তু যদি আমরা যদি মনে করি যে এই জীবনটা পরীক্ষাটাই আমাদের জীবনের পরীক্ষা নয় তাহলে চাপ কম হবে। এই পরীক্ষার বাইরেও জীবন আছে। পরীক্ষাটাকে একদিনের খেলার মতো দেখুন এবং তার আনন্দ নিন। এই অনুষ্ঠানে একজন মহিলা অভিভাবক প্রধানমন্ত্রী মোদিকে বলেন যে, “আমার ছেলে পড়াশোনায় ঠিকই ছিল, কিন্তু আজকাল অনলাইন গেমসের কারণে সে দুর্বল হয়ে গেছে।” এই মন্তব্যের পরেই প্রধানমন্ত্রী বলেন, “এই PUBG খেলা টা কী?” মোদির এই প্রশ্ন শুনেই সারা স্টেডিয়াম জুড়েই গুঞ্জন শুরু হয়। প্রধানমন্ত্রী অভিভাবকদের পরামর্শ দিয়ে বলেন যে, শিশুদের উপর নিজেদের স্বপ্ন বা ইচ্ছা চাপিয়ে দেবেন না, তাতে বাচ্চারা আরও চাপে পড়ে যায়। যদি আপনার বাচ্চা ব্যর্থও হয় তবে বাবা মা হয়ে তাঁদের পাশে থাকুন। ‘লোকে কী বলবে’ এটা ভেবে চাপ দেবেন না।

‘পরীক্ষায় পে চর্চা’ অনুষ্ঠানে নরেন্দ্র মোদির ১০ টি গুরুত্বপূর্ণ কথা

1. চাপ খারাপ না, আমরা কীভাবে সেই চাপের মোকাবিলা করছি, সেটাই আসল। আমাকে নিজে সেই চাপ মোকাবিলা করার সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

2. অভিভাবকদের তাঁদের সন্তানদের প্রযুক্তি সংক্রান্ত সঠিক ব্যবহার সম্পর্কে তথ্য দিতে হবে। বাচ্চাদের প্লে স্টেশনের বদলে খেলার মাঠে নিয়ে যেতে হবে।

3. জীবন মানে থেমে যাওয়া না, জীবন মানে কেবলই গতি।

4. মানুষজন বলে যে, মোদি অনেক আকাঙ্ক্ষা জাগিয়েছেন, আমি চাই যে, প্রায় একশো কোটি দেশবাসীর একশো কোটি আকাঙ্খা থাকুক।

5.আমাদের এই আকাঙ্খাগুলোকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে, নইলে দেশ চলবে না। প্রত্যাশাকে চাপ ভাবলে হবে না। প্রত্যাশা পূরণ করার জন্য নিজেকে প্রমাণ করতে হবে।

6. হতাশায় ডুবে রয়েছে সমাজ। পরিবার বা ব্যক্তি কারো ভালো করতে পারে না, আশা এবং প্রত্যাশা জীবনের ঊর্ধ্বমুখী গতির জন্য বাধ্যতামূলক।

7. লক্ষ্য এমন হওয়া উচিত যা আমাদের নাগালের মধ্যে থাকবে। আমাদের একটা করে লক্ষ্য পূরণ হলেই নতুন নতুন লক্ষ্যের অনুপ্রেরণা পাওয়া যায়।

8. বাচ্চাদের উপর কখনও আশা প্রত্যাশা চাপিয়ে দেওয়া উচিৎ নয়, বাবা মায়ের সন্তানকে বোঝা উচিৎ, বাচ্চাদের গুণগুলো চেনা উচিৎ।

9. দেশের প্রাক্তন প্রতিরক্ষামন্ত্রী জর্জ ফার্নান্দেজ আর আমাদের মধ্যে নেই। তিনি দারুণ নেতা ছিলেন। নিজের কার্যকালে সম্পূর্ণ শক্তি দিয়ে লড়াই করেছেন। আমি তাঁকে শ্রদ্ধা জানাই।

10. আমাদের জীবনের শিক্ষাগুলো পরীক্ষা দিয়ে মাপা যায় না, পরীক্ষা আমাদের মধ্যে থাকা সম্ভাবনাগুলোকে আরেকবার করে ঝালিয়ে নিতে সুযোগ দেয় মাত্র।