২০২০ সালে পাকিস্তানের ‘কালো’ তালিকাভুক্ত হওয়ার ‘‘প্রবল সম্ভাবনা’’: FATF

জঙ্গি গোষ্ঠীগুলির আর্থিক মদত (terror funding) পাওয়া বন্ধ করতে পদক্ষেপ করতে হবে পাকিস্তানকে। বর্তমানে পাকিস্তান ‘ধূসর তালিকা’য় রয়েছে।

২০২০ সালে পাকিস্তানের ‘কালো’ তালিকাভুক্ত হওয়ার ‘‘প্রবল সম্ভাবনা’’: FATF

বর্তমানে পাকিস্তান ‘ধূসর তালিকা’য় রয়েছে।

নয়াদিল্লি:

ফিনান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্স বা এফএটিএফ (FATF) পাকিস্তানকে (Pakistan) নতুন ডেডলাইন দিল ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। ততদিন পর্যন্ত ‘ধূসর তালিকা'য় থাকতে হবে তাদের। প্যারিসে তাদের বৈঠকে হাজির ভারতীয় প্রতিনিধিদের সূত্রে জানা যাচ্ছে, ২০২০ ফেব্রুয়ারিতে পাকিস্তানকে ‘কালো তালিকা'-ভুক্ত করার ‘‘প্রবল সম্ভাবনা'' রয়েছে বলে এফএটিএফ জানিয়েছে। সংবাদ সংস্থা এএনআই জানিয়েছে, পাকিস্তানকে অতিরিক্ত চার মাস সময় দেওয়া হল। তার মধ্যে জঙ্গি গোষ্ঠীগুলির আর্থিক মদত (terror funding) পাওয়া বন্ধ করতে পদক্ষেপ করতে হবে তাদের। বর্তমানে পাকিস্তান ‘ধূসর তালিকা'য় রয়েছে। তাদের দেশীয় আইন আর্থিক দুর্নীতি ও জঙ্গি গোষ্ঠীকে আর্থিক মদত দেওয়া বন্ধ করার পক্ষে দুর্বল বলে মনে করা হচ্ছে।

অযোধ্যা মধ্যস্থতায় গররাজি মুসলিম মামলাকারীরা, শুরু নতুন জল্পনা

চার মাস পরে ফেব্রুয়ারি মাসে পাকিস্তানের অবস্থান সম্পর্কে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে এফএটিএফ। শুক্রবার এফএটিএফ প্যারিসে তাদের বৈঠকের শেষ দিন একথা জানিয়েছে।

তাদের তরফে জানানো হয়েছে, পাকিস্তানকে কড়াভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের মধ্যে তাদের সম্পূর্ণ অ্যাকশন প্ল্যান সম্পূর্ণ করে ফেলতে। অন্যথায় তাৎপর্যপূর্ণ পদক্ষেপ করা হবে। এফএটিএফ জানিয়েছে, অন্য সদস্যদের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে আর্থিক সংস্থাগুলির প্রতি বিশেষ নজর দিতে যখন তারা পাকিস্তানের সঙ্গে ব্যবসায়িক সম্পর্ক স্থাপন বা লেনদেন করবে।

অসম এনআরসির কো-অর্ডিনেটরকে মধ্যপ্রদেশে বদলির নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট

২০৫ টি দেশের প্রতিনিধি এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও আইএমএফ, বিশ্ব ব্যাঙ্ক, রাষ্ট্রসঙ্ঘ ও অন্যান্য সংস্থার পক্ষ থেকেও প্রতিনিধি ছিলেন এই বৈঠকে।

ভারত ও অন্যান্য সদস্য দেশগুলি পাকিস্তানকে আক্রমণ করে হাফিজ সঈদ, মৌলা মাসুদ আজহার ও রাষ্ট্রসঙ্ঘ চিহ্নিত অন্যান্য জঙ্গিদের বিরুদ্ধে বড় পদক্ষেপ না নেওয়ার অভিযোগ তুলে।

এফএটিএফ স্থাপিত হয় ১৯৮৯ সালে। আর্থিক দুর্নীতি, জঙ্গিদের আর্থিক মদত দেওয়া এবং আন্তর্জাতিক আর্থিন ব্যবস্থার কাছে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে ওঠা যে কোনও বিষয়ের বিরুদ্ধে লড়াই করা এই সংস্থার কাজ।

গত বছরের জুনে ‘ধূসর তালিকা'-ভুক্ত করা হয় পাকিস্তানকে। তাদের জানানো হয় ২০১৯-এর অক্টোবরের মধ্যে যে পরিকল্পনার কথা জানানো হয়েছে তা পূর্ণ করতে হবে পাকিস্তানকে। অন্যথায় তাদের উত্তর কোরিয়া বা ইরানের মতো ‘কালো তা‌লিকা'-ভুক্ত করা হবে।

পাকিস্তান যদি ‘ধূসর তালিকা'য় থেকে যায় তাহলে আইএমএফ, বিশ্বব্যাঙ্ক, ইউরোপিয়ান‌ ইউনিয়নের পক্ষ থেকে আর্থিক সাহায্য পাবে না তারা।

'শ্রীদেবী বাংলো'তে দেখা যাবে তাঁকে। আগামী দুটি নতুন সিনেমা নিয়ে NDTV-র সঙ্গে আলাপচারিতায় কী বললেন প্রিয়াংশু চট্টোপাধ্যায়? দেখুন ভিডিও—

More News