তেলেঙ্গানা ধর্ষণ কাণ্ডের অভিযুক্তদের এনকাউন্টার, মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেশজুড়ে

নির্ভয়ার মা এই ঘটনায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, ‘‘পুলিশ দারুণ কাজ করেছে। আমি অত্যন্ত খুশি এই শাস্তির জন্য। পুলিশ দারুণ কাজ করেছে।’’

তেলেঙ্গানা ধর্ষণ কাণ্ডের অভিযুক্তদের এনকাউন্টার, মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেশজুড়ে

এই এনকাউন্টারকে কেন্দ্র করে দেশজুড়ে সৃষ্টি হয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার।

হায়দ্রাবাদ:

তেলেঙ্গানার পশু চিকিৎসককে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় (Telangana Vet's Rape-Murder) অভিযুক্ত চার তরুণকে অপরাধের স্থানে নিয়ে যাওয়ার সময় তারা পালানোর চেষ্টা করলে তাদের গুলি করে মেরেছে পুলিশ (Killing Of Accused)। গত সপ্তাহে ২৬ বছরের তরুণীর ভয়ঙ্কর পরিণতি দেখে শিউরে উঠেছিল গোটা দেশ। এবার অভিযুক্তদের এনকাউন্টারকে কেন্দ্র করে দেশজুড়ে সৃষ্টি হল মিশ্র প্রতিক্রিয়ার। গত ২৭ নভেম্বর হায়দরাবাদের কাছে টোল বুথের পার্শ্ববর্তী এলাকায় চার তরুণ ২৬ বছরের পশু চিকিৎসক তরুণীকে ধর্ষণ করে তাঁকে হত্যা করে পুড়িয়ে দেয়। চার অভিযুক্তের নাম মহম্মদ, জলু শিবা, জলু নবীন ও চিন্তাকুন্তা চেন্নাকেশবালু। এদের মধ্যে মহম্মদের বয়স ২৬। বাকিদের বয়স ২০।

এদিন ভোর তিনটের সময় তাদের ঘটনাস্থলে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল তদন্তের জন্য। সেই সময়ই তারা পালানোর চেষ্টা করে তাদের গুলি করে মারে পুলিশ।

Telangana Updates: অভিযুক্ত ৪ জনকে এনকাউন্টারে হত্যা করল পুলিশ

নিগৃহীতা তরুণীর বাবা সংবাদ সংস্থা এএনআইকে বলেন, ‘‘দশ দিন হল আমার মেয়ে মারা গিয়েছে। আমি পুলিশ ও সরকারকে এর জন্য (অভিযুক্তদের এনকাউন্টার) কৃতজ্ঞতা জানাই। আমার মেয়ের আত্মা এবার নিশ্চয়ই শান্তি পাবে।''

২০১২ সালের ১৬ ডিসেম্বর নির্ভয়া ধর্ষণ কাণ্ডের কথা আজও দেশের মানুষের স্মৃতিতে দগদগে। নির্ভয়ার মা এই ঘটনায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, ‘‘পুলিশ দারুণ কাজ করেছে। আমি অত্যন্ত খুশি এই শাস্তির জন্য। পুলিশ দারুণ কাজ করেছে। এবং আমার দাবি এই পুলিশ কর্মীদের উপরে কোনও অ্যাকশন যেন না নেওয়া হয়।'' পাশাপাশি তিনি সরকার ও দেশের বিচার ব্যবস্থার প্রতি তাঁর আবেদন জানিয়েছেন, যে যেন তাঁর মেয়ের হত্যাকারীদের দ্রুত ফাঁসিতে ঝোলানো হয়।

উন্নাওয়ের ধর্ষিতা তরুণীর গায়ে আগুন দিল অভিযুক্তরা, আকাশপথে আনা হল দিল্লিতে

এদিকে বলিউড অভিনেতা ঋষি কাপুরও টুইট করে জানিয়েছেন, ‘‘ব্রাভো তেলেঙ্গানা পুলিশ। আমার অভিনন্দন!'' 

যদিও পি চিদাম্বরমের পুত্র কার্তি চিদাম্বরম জানিয়েছেন, ‘‘হত্যা আমাদের ব্যবস্থায় একটি কালো দাগ। ধর্ষণ ঘৃণ্য অপরাধ। আইনের অধীনে এর কনা বিচার হওয়া উচিত।'' কিন্তু তিনি জানিয়েছেন, ‘‘এনকাউন্টার'' করে কাউকে মেরে ফেলাটাও নিন্দনীয়। তিনি বলেন, ‘‘আমি বুঝতে পারছি দ্রুত বিচারের প্রয়োজনীয়তার কথাটা। কিন্তু এটা কোনও পথ নয়।'' তিনি টুইট করে এই কথা জানিয়েছেন।

বর্ষীয়ান আইনজীবী বৃন্দা গ্রোভার জানিয়েছেন, ‘‘এটি গ্রহণীয় নয়।'' তিনি বলেন, ‘‘এই ন্যায়বিচার নারীরা চায় না। আমরা কী করে নিশ্চিত হব যে, এই অভিযুক্তরাই আসল অভিযুক্ত এবং আসল অভিযুক্তদের ছেড়ে দেওয়া হয়নি?''

আর এক বর্ষীয়ান আইনজীবী করুণা নান্ডি জানিয়েছেন, ‘‘কেউ আর কখনও জানতে পারবে না যে চারজনকে পুলিশ গুলি করে মেরেছে তারা নিরপরাধ কিনা। দ্রুত অ্যাকশনের জন্য তাদের গ্রেফতার করা হয়েছিল কিনা। হয়তো চার নির্দয় ধর্ষক ঘুরে বেড়াচ্ছে।''



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)
Listen to the latest songs, only on JioSaavn.com