This Article is From Jun 08, 2019

উত্তরপ্রদেশে শিশু খুনের ঘটনার এক অভিযুক্ত নিজের মেয়েকেই ধর্ষণ করেছিল

Aligarh Murder: গত রবিবার এক মর্মান্তিক ছবি দেখে আসমুদ্রহিমাচল। উত্তরপ্রদেশের আলিগড়ে রাস্তার কয়েকটি কুকুর একটি শিশুর দেহ টেনে নিয়ে যাচ্ছে- এই ছবি উঠে আসে  সংবাদ  মাধ্যমে।

উত্তরপ্রদেশে শিশু খুনের  ঘটনার এক  অভিযুক্ত  নিজের মেয়েকেই ধর্ষণ করেছিল

Aligarh Murder: গোটা দেশ উত্তরপ্রদেশের এই ছোট্ট শিশু কন্যার জন্য বিচার চাইছে

আলিগড়:

উত্তরপ্রদেশের (Uttar Pradesh) দু'বছরের শিশু খুনের ঘটনায় চাঞ্চল্যকর তথ্য পুলিশের হাতে এলো। তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন এই ঘটনায় দুই অভিযুক্তের মধ্যে একজন নিজের মেয়েকেই বছর পাঁচেক আগে ধর্ষণ করেছিল। স্ত্রীর জন্য তার জেল হয়নি। এমনিতেই উত্তরপ্রদেশের (Uttar Pradesh Child Murder)  ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই দাবি উঠছে এক্ষেত্রে কোনও যৌন নিগ্রহের ঘটনা ঘটেছে কিনা তা ভালো করে তদন্ত করে দেখা হোক। তবে পুলিশের দাবি এরকম কোনও সূত্র এখনও পর্যন্ত তাদের হাতে এসে পৌঁছয়নি। গত রবিবার এক মর্মান্তিক ছবি দেখে আসমুদ্রহিমাচল। উত্তরপ্রদেশের আলিগড়ে রাস্তার কয়েকটি কুকুর একটি শিশুর দেহ টেনে নিয়ে যাচ্ছে- এই ছবি উঠে আসে  সংবাদ  মাধ্যমে।

 বোঝা যায় এক হাড় হিম করা অপরাধ সংঘঠিত হয়েছে। তারপর থেকেই গোটা দেশ উত্তরপ্রদেশের এই ছোট্ট শিশু কন্যার জন্য বিচার চাইছে। টুইটার থেকে শুরু করে সমস্ত সোশ্যাল মাধ্যমে নিন্দার ঝড় বইছে।

দেহ  উদ্ধারের সময়  শিশুটির চোখ উপড়ানো ছিল। একটি পা ছিল ভাঙা। গোটা দেহে আরও অসংখ্য আঘাতের চিহ্ন ছিল। তদন্ত শুরু করে পুলিশের দাবি পরিবারের সঙ্গে টাকা নিয়ে চলতে থাকা গোলমালে জেরেই এই ভয়ানক ঘটনা ঘটেছে। ঘটনায় দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের মধ্যে একজনের নাম জাহিদ। তবে অন্য জনের নাম আর প্রকাশ্যে আনা যাবে না। তার কারণ নতুন আইনে বলা আছে ধর্ষণ বা ওই ধরনের ভয়াবহ কোনও ঘটনা ঘটলে যিনি অত্যাচারের শিকার হচ্ছেন তিনি বা তার ঘনিষ্ঠ কারো পরিচয় প্রকাশ করা যায় না। এক্ষেত্রে বছর পাঁচেক আগে ধর্ষণের ঘটনাটি প্রকাশ্যে এসেছে বলে তাতে অভিযুক্তর নাম প্রকাশ করা যাবে না।

পুলিশ জানতে পেরেছে জাহিদ এবং ওই ব্যক্তি শিশু কন্যার বাবার থেকে ৫০ হাজার টাকা ধার নিয়েছিল। এখনও ১০ হাজার টাকা পাবে পরিবার। সেই টাকা ফেরত না দেওয়া নিয়ে গোলমালের সূত্রপাত। আর তার জেরেই এমন মর্মান্তিক একটা ঘটনা ঘটে গেল।

এমনিতেই উত্তরপ্রদেশের আইন শৃঙ্খলা ভেঙে পড়েছে বলে অভিযোগ করেছে কংগ্রেস থেকে শুরু করে অন্য বিরোধী দলগুলি। মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিজের নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারছেন না বলেই তাদের দাবি। এমতাবস্থায় উত্তরপ্রদেশ পুলিশ চাইছে এই ঘটনাটির দ্রুত কিনারা করতে। এর সঙ্গে কারা কারা জড়িত ছিল তা খতিয়ে দেখার কাজ শুরু হয়েছে। এরই মধ্যে প্রকাশ্যে এলো এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য। এর আগেই এই ঘটনায় জাতীয় সুরক্ষা আইনের ধারায় মামলা শুরু হয়েছে।