‘‘লক্ষ্মণরেখা অতিক্রম করা উচিত নয়’’, আবারও রাজ্য সরকারকে বিঁধলেন রাজ্যপাল

গত জুলাই মাসে রাজ্যের রাজ্যপাল হন জগদীপ ধনখড়। তারপর থেকে রাজ্য সরকারের সঙ্গে প্রায়ই কথার লড়াইয়ে জড়িয়ে পড়তে দেখা গিয়েছে তাঁকে।

‘‘লক্ষ্মণরেখা অতিক্রম করা উচিত নয়’’, আবারও রাজ্য সরকারকে বিঁধলেন রাজ্যপাল

রাজ্য সরকারের সঙ্গে প্রায়ই কথার লড়াইয়ে জড়িয়ে পড়তে দেখা গিয়েছে রাজ্যপালকে।

কলকাতা:

রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় (Jagdeep Dhankar) আবারও রাজ্য সরকারের উদ্দেশে ক্ষোভপ্রকাশ করলেন। জানালেন, কারওই ‘‘লক্ষ্মণরেখা'' অতিক্রম করা উচিত নয়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের (Mamata Banerjee government) সঙ্গে রাজ্যপালের সংঘাত চলছে বেশ কিছু সময় ধরেই। এদিন রাজ্যপাল এক অনুষ্ঠানে জানান, ‘‘রাজ্যের রাজ্যপাল হিসেবে ভারতীয় সংবিধানের প্রক্রিয়া মেনে চলা তা আমি মানতে বাধ্য— যা আমার করা উচিত বা করা উচিত নয়। লক্ষ্মণরেখা কারওই অতিক্রম করা উচিত নয়।'' গত জুলাই মাসে রাজ্যের রাজ্যপাল হন জগদীপ ধনখড়। তারপর থেকে রাজ্য সরকারের সঙ্গে প্রায়ই কথার লড়াইয়ে জড়িয়ে পড়তে দেখা গিয়েছে তাঁকে।

দুর্গাপুজো কার্নিভালে তাঁর বসার জায়গা থেকে ১৯ সেপ্টেম্বর কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে ঘেরাও হলে তাঁর সেখানে যাওয়া— নানা বিষয়ে মতবিরোধ হয়েছে রাজ্য সরকার ও রাজ্যপালের।

"বড্ড কথা বলেন": মুখ্যমন্ত্রী-রাজ্যপাল বাগযুদ্ধে বললেন জগদীপ ধনখড়

সম্প্রতি মুর্শিদাবাদে যাওয়ার সময় রাজ্যপালের হেলিপকপ্টারের ব্যবস্থা করতে রাজি হয়নি রাজ্য সরকার।

সরকার জানায়, রাজ্যপালের জন্য চপারের অনুরোধ ‘‘অবাস্তব'' এবং ‘‘জনগণের অর্থের অপব্যবহার''। এর উত্তরে রাজ্যপালও মৌখিক আক্রমণ করেন মুখ্যমন্ত্রীকে। তিনি বলেন, ‘‘কিছু মানুষ অত্যন্ত বেশি কথা বলেন এবং আবোল তাবোল বকেন।''

সিঙ্গুর সফর নিয়ে রাজ্যপালের সঙ্গে রাজ্যের সংঘাত চরমে

রাজ্যপাল আরও অভিযোগ করেন, রাজ্যে ঘুর্ণিঝড় বুলবুল আক্রান্ত মানুষদের ত্রাণ দেওয়ার ব্যাপারেও রাজনীতি করা হচ্ছে। এর উত্তরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, রাজ্যপাল সমান্তরাল প্রশাসন চা‌লানোর চেষ্টা করছেন।

তৃণমূ‌ল কংগ্রেসের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় অভিযোগ জানিয়ে বলেছেন, রাজ্যপাল তাঁর সাংবিধানিক দায়িত্ব মেনে চলছেন না। রাজ্য সরকারের বিষয়েও তিনি মন্তব্য করছেন।

More News