২০০০ টাকার নোট বন্ধ হয়ে ফের কি হাজারের নোট আসছে? কী বলল সরকার?

2000 Notes: কয়েক দিন ধরেই দেশে জল্পনা চলছে যে ২ হাজার টাকার নোট নাকি বাতিল হতে চলেছে, যদিও সেই জল্পনা উড়িয়ে দিলেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর

২০০০ টাকার নোট বন্ধ হয়ে ফের কি হাজারের নোট আসছে? কী বলল সরকার?

2000 Notes News: এবার বাতিল হতে চলেছে ২০০০ টাকার নোট, শোনা যাচ্ছে এমন সম্ভাবনা (প্রতীকী ছবি)

হাইলাইটস

  • ২০০০ টাকার বদলে বাজারে ফের আসছে হাজারের নোট, ছড়ায় জল্পনা
  • সেই জল্পনা খারিজ করে দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার
  • রাজ্যসভায় দাঁড়িয়ে ওই জল্পনা খারিজ করেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর
নয়া দিল্লি:

ফের নোট বাতিলের সম্ভাবনার কথা উড়ে বেড়াচ্ছিল দেশীয় অর্থনীতির হাওয়ায়। সাধারণ মানুষ থেকে অনেকেই এই জল্পনা নিয়ে আতঙ্কে ছিলেন যে সরকার এবার নাকি বাতিল করতে চলেছে ২ হাজার টাকার নোটও (2000 Notes)। কিন্তু সেই সব জল্পনার আগুনে জল ঢেলে কেন্দ্রীয় অর্থ প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর (Anurag Thakur) রাজ্যসভায় এক প্রশ্নের উত্তরে জানিয়েছেন যে এই ধরণের কোনও সম্ভাবনা নেই। এর আগে সমাজবাদী পার্টির নেতা বিশ্বম্ভর প্রসাদ নিশাদ বলেন যে ২ হাজার টাকার নোট চলার কারণে দেশে কালো টাকার পরিমাণ বেড়েছে। এবার কী তবে ২ হাজার টাকার নোট (2000 Notes News) বন্ধ হতে চলেছে এবং তার পরিবর্তে এক হাজার টাকার নোট আনা হচ্ছে. তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন ওই সাংসদ। তিনি একথাও বলেন যে এই জল্পনা দেশের হাওয়ায় ঘুরছে এবং এ নিয়ে দেশের মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হচ্ছে। যদিও ওই ধরণের সব জল্পনা খারিজ করেন কেন্দ্রীয় অর্থ প্রতিমন্ত্রী।

"কিছু দল পাকিস্তানের মতো ভাষায় কথা বলছে": নাগরিকত্ব বিল প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী মোদি

এই প্রশ্নের জবাব দেওয়ার সময় অনুরাগ ঠাকুর মোদি সরকারের নোটবন্দিরও দরাজ প্রশংসা করেন। দেশের অর্থনীতির জন্য নোটবন্দি একটি কার্যকরী সিদ্ধান্ত ছিল বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন যে এর ফলে কেবল টাকার পরিমাণই বাড়েনি, নকল টাকা তৈরিও বন্ধ হয়ে গেছে। এছাড়াও, ডিজিটাল পেমেন্ট বৃদ্ধি হওয়ায় দেশের অর্থনীতির পক্ষে তা লাভদায়ক হয়েছে। ২০১৮ সালের ৮ নভেম্বর সরকার পাঁচটি কারণে পুরনো পাঁচশো ও হাজার টাকার নোট বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়ে ছিল, বলেন অনুরাগ।

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের মাধ্যমে উত্তর-পূর্বে "জাতির ভিত্তিতে সাফাই" করতে চাইছে কেন্দ্র, টুইট রাহুল গান্ধির

নোটবন্দির পরে জাল নোটের ব্যবহার কমে যাওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন যে আরবিআই জানিয়েছে যে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ব্যাংকিং ব্যবস্থায় ৭.৬২ লক্ষ নোট, ২০১৭-১৮ সালে ৫.২২ লক্ষ এবং ২০১৮-১৯ সালে ৩.১৭ লক্ষ জাল নোট চিহ্নিত করা গেছে। সুতরাং, বোঝাই যাচ্ছে যে নোট বাতিলের ফলে নোট জাল করার প্রবণতা অনেকটাই কমেছে। পাশাপাশি সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে ডিমনিটাইজেশন বা নোটবন্দির ইতিবাচক প্রভাব সম্পর্কে অনুরাগ ঠাকুর বলেন যে ১০০০ ও ৫০০ টাকার নোট রাতারাতি বন্ধ হওয়ার ফলে সন্ত্রাসবাদীদের কাছে থাকা বেশিরভাগ নগদ টাকাই মূল্যহীন হয়ে পড়েছিল।

জেনে নিন এই খবরগুলোও:

More News