১৩২টি গ্রামে ৩ মাসে জন্মায়নি একটিও কন্যাসন্তান! জানাচ্ছে রিপোর্ট

ওই ১৩২টি গ্রামে গত তিন মাসে ২১৬টি শিশু সন্তানের জন্ম হলেও তার মধ্যে একটিও কন্যাসন্তান নয়! এই ঘটনায় বিস্ময়ে হকচকিত জেলা প্রশাসন।

উত্তরকাশীর এই পরিসংখ্যান বিস্মিত করেছে প্রশাসনকে (প্রতীকী)

হাইলাইটস

  • ১৩২টি গ্রামে কোনও কন্যাসন্তান জন্মগ্রহণ করেনি গত তিন মাসে
  • উত্তরাখণ্ডের উত্তরকাশীর জেলার গ্রামে দেখা গেল এই ছবি
  • এমন পরিসংখ্যানে শিহরিত প্রশাসন
উত্তরকাশি:

কেন্দ্র ‘বেটি বাঁচাও বেটি পড়াও' প্রকল্পের মাধ্যমে দেশে কন্যাভ্রুণ হত্যা রদ ও মেয়েদের স্বাবলম্বী করে তুলতে চাইছে। অথচ ঠিক এই সময়ই এক বিস্ময়কর ঘটনা সকলের সামনে এল। উত্তরাখণ্ডের (Uttarakhand) উত্তরকাশী (Uttarkashi) জেলার ১৩২টি গ্রামে কোনও কন্যাসন্তান জন্মগ্রহণ করেনি গত তিন মাসে! তথ্য অনুসারে, ওই ১৩২টি গ্রামে গত তিন মাসে ২১৬টি শিশু সন্তানের জন্ম হলেও তার মধ্যে একটিও কন্যাসন্তান নয়! এই ঘটনায় বিস্ময়ে হকচকিত জেলা প্রশাসন। জেলা শাসক আশিস চৌহান জানাচ্ছেন, ‘‘আমরা সেই সব অঞ্চলকে চিহ্নিত করেছি যেখানে কন্যাসন্তানের সংখ্যা শূন্য কিংবা এক অঙ্কের। আমরা লক্ষ করে বুঝতে চাইছি ওই এলাকাগুলিতে এমন অবস্থা কেন। বিস্তৃত সমীক্ষা ও পর্যবেক্ষণ করলে তবেই কারণটা জানা যাবে।''

৬ মাস ধরে ১৬ বছরের নাবালিকাকে ৬ জন মিলে ধর্ষণের অভিযোগ

আশা কর্মীদের সঙ্গে একযি আপৎকালীন বৈঠক ডেকেছেন তিনি। এবং নির্দেশ দিয়েছেন ওই এলাকাগুলি পরিদর্শন করে তথ্য সংগ্রহ করে একটি রিপোর্ট পেশ করতে। গঙ্গোত্রীর বিধায়ক গোপাল রাওয়াত ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

‘‘কাশ্মীর যারা লুঠ করেছে তাদের মেরে ফেলো'': জঙ্গিদের উদ্দেশে রাজ্যপালের বিতর্কিত মন্তব্য

সমাজ কর্মী কল্পনা ঠাকুরের দাবি ব্যাপক হারে কন্যাভ্রুণ হত্যার ফলেই এই ঘটন‌া ঘটেছে। তিনি বলেন, ‘‘গত তিন মাসে কোনও কন্যাসন্তান জন্মায়নি এই সব গ্রামে। এটা কোনও কাকতালীয় ব্যাপার নয়। এর থেকে পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে কন্যাভ্রুণ হত্যা এই জেলায় ব্যাপক হারে চলছে। সরকার ও প্রশাসন কিছুই করছে না।''

বর্ষীয়ান সাংবাদিক শিব সিংহ থানভাল সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছেন, কড়া পদক্ষেপের মাধ্যমে এই ব্যাপারটি বন্ধ করা হোক। তিনি বলেন, ‘‘শিউরে ওঠার মতো লিঙ্গ অনুপাতের তথ্য সামনে এসেছে এই জেলায়। এর থেকে প্রশ্ন উঠছে সরকারের ‘বেটি বাঁচাও বেটি পড়াও' প্রকল্পটি নিয়ে। সংখ্যা থেকে পরিষ্কার কন্যাভ্রুণ হত্যা অবশ্যই চলছে এখানে। প্রশাসনকে কড়া পদক্ষেপ করতেই হবে এটা শেষ করতে।''