নারদ কাণ্ডে বরখাস্ত আইপিএস এসএমএইচ মির্জাকে জামিন দিল সিবিআইয়ের বিশেষ আদালত

Narada Case: স্টিং অপারেশনে তৃণমূল কংগ্রেসের অনেক শীর্ষস্থানীয় নেতা এবং মির্জাকে একটি কল্পিত সংস্থার প্রতিনিধিদের কাছ থেকে অর্থ গ্রহণ করতে দেখা গেছে

নারদ কাণ্ডে বরখাস্ত আইপিএস এসএমএইচ মির্জাকে জামিন দিল সিবিআইয়ের বিশেষ আদালত

২০১৪ সালে একজন ব্যবসায়ীর ছদ্মবেশে স্টিং অপারেশনটি করেন Mathew Samuel

কলকাতা:

সাময়িক স্বস্তি পেলেন এসএমএইচ মির্জা। বৃহস্পতিবার সিবিআইয়ের একটি বিশেষ আদালত নারদ স্টিং মামলায় বরখাস্ত আইপিএস আধিকারিকের জামিন মঞ্জুর করেছে। এসএমএইচ মির্জা তাঁর ছেলে গুরুতর অসুস্থ থাকায় ওই জামিনের আবেদন করেছিলেন।  ৫৫ দিন ধরে তিনি (SMH Mirza) হেফাজতে রয়েছেন বলে বৃহস্পতিবার জানিয়েছেন মির্জার আইনজীবী। আদালতের অনুমতি ছাড়া তিনি পশ্চিমবঙ্গ ছেড়ে অন্য কোথাও যাবেন না, এই শর্তে মির্জার জামিন মঞ্জুর করে সিবিআইয়ের বিশেষ আদালত । পাশাপাশি আদালত তাঁকে সপ্তাহে একবার মামলার তদন্তকারী আধিকারিকদের সামনে হাজিরা দেওয়ার শর্তও দেয়। মির্জার আইনজীবী শ্যামল ঘোষ বলেছেন, বুধবার আদালত জামিনের আবেদনটি গ্রহণ করেন এবং ছেলের শারীরিক অসুস্থতার কারণে ওই আইপিএস আধিকারিকের আবেদনে সাড়া দিয়ে জামিন দেয়। আগামী ২৬ নভেম্বর নারদ মামলার (Narada Case) পরবর্তী শুনানির দিন নির্ধারণ করা হয়েছে।

এসএমএইচ মির্জার আবেদন আদালতে পেশ করা সময় তাঁর আইনজীবী বলেন, মির্জা ৫৫ দিন ধরে বিচারবিভাগীয় হেফাজতে রয়েছেন এবং মামলার তদন্তে সিবিআইকে সহযোগিতা করেছেন। প্রসঙ্গত এর আগেও গত ১৩ নভেম্বর মির্জার জামিন আবেদন নাকচ করে দিয়ে তাঁর বিচারবিভাগীয় হেফাজতের মেয়াদ ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত বাড়িয়ে দেন।

নারদ মামলায় সিবিআই দফতরে হাজিরায় ব্যর্থ মুকুল রায়

নারদ নিউজ পোর্টালের মালিক ম্যাথু স্যামুয়েল যখন স্টিং অপারেশনটি করেছিলেন তখন মির্জা বর্ধমান জেলার পুলিশ সুপার হিসাবে দায়িত্বে ছিলেন।

২০১৬ সালে এ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের আগে ফাঁস হয় ওই নারদ কেলেঙ্কারির কথা। নারদ কাণ্ডের টেপগুলিতে তৃণমূল কংগ্রেসের অনেক শীর্ষস্থানীয় নেতা এবং মির্জাকে একটি কল্পিত সংস্থার প্রতিনিধিদের কাছ থেকে অর্থ গ্রহণ করতে দেখা গেছে বলে অভিযোগ ওঠে।

নারদ মামলায় ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সিবিআই হেফাজতে আইপিএস এসএমএইচ মির্জা

২০১৪ সালে একজন ব্যবসায়ীর ছদ্মবেশে স্টিং অপারেশনটি করেন ম্যাথু স্যামুয়েলস, অনেক তৃণমূল নেতাকে টাকা দেওয়ার প্রস্তাব দিতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে। ৫২ ঘন্টার ভিডিও ফুটেজে, ১৩জন ব্যক্তিকে মোট ৬০.৫ লক্ষ টাকা নিতে দেখা গিয়েছিল।

যে ১৩ জনকে নারদ নিউজের স্টিং অপারেশনে টাকা নিতে দেখা গিয়েছিল, তাঁদের মধ্যে রয়েছে সাতজন সাংসদ, একজন বিধায়ক, এবং একজন আইপিএস অফিসার।  সাতজন সাংসদের মধ্যে ছিলেন সুলতান আহমেদ, তিনি ইতিমধ্যেই মারা গিয়েছেন। ২০১৭-এ বিজেপিতে যোগ দেন মুকুল রায়। চারজনমন্ত্রীর মধ্যে শোভন চট্টোপাধ্যায় ১৪ অগস্ট বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন।



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)
More News