ফুলগুলো সব কোথায় গেল! সারা দেশ থেকে নিখোঁজ ৩.১৮ লাখ শিশু, পশ্চিমবঙ্গে কত?

Children Missing: ২০১৪ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ২০১৯ সালের ৪ ডিসেম্বর অবধি পোর্টালগুলিতে নথিভুক্ত করা এবং আপলোড করা মোট নিখোঁজ হওয়া শিশুর সংখ্যা ৩,১৮,৭৪৮।

ফুলগুলো সব কোথায় গেল! সারা দেশ থেকে নিখোঁজ ৩.১৮ লাখ শিশু, পশ্চিমবঙ্গে কত?

সব থেকে বেশি শিশু নিখোঁজের ঘটনা ঘটেছে মধ্যপ্রদেশে, সংখ্যাটা ৫২,২৭২।

হাইলাইটস

  • শিশু নিখোঁজের ঘটনায় গুজরাট রয়েছে তৃতীয় স্থানে।
  • সব থেকে বেশি শিশু নিখোঁজের ঘটনা ঘটেছে মধ্যপ্রদেশে, সংখ্যাটা ৫২,২৭২।
  • স্মৃতি ইরানি জানিয়েছেন, মোট ৩.১৮ লক্ষ শিশু এই দেশে নিখোঁজ হয়েছে।
নয়াদিল্লি:

ফুলগুলো সব কোথায় গেল! প্রতিদিন, প্রতিমাস, প্রতিবছর হাজারে হাজারে শিশু নিখোঁজ (children missing) হয়ে যাচ্ছে ভারতবর্ষে! এই মুহূর্তে সারা ভারতে নিখোঁজ হয়ে যাওয়া শিশুর সংখ্যা শুনলে আঁতকে উঠতেই হয়। নারী ও শিশু কল্যাণ মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি (Women and Child Development Minister Smriti Irani) শুক্রবার জানিয়েছেন, মোট ৩.১৮ লক্ষ শিশু এই দেশে নিখোঁজ হয়েছে। আর সব থেকে বেশি শিশু নিখোঁজের ঘটনা ঘটেছে মধ্যপ্রদেশে, সংখ্যাটা ৫২,২৭২। লোকসভায় এক প্রশ্নের জবাবে স্মৃতি ইরানি তথ্য পেশ করে জানান, মধ্যপ্রদেশের পরেই শিশু নিখোঁজের ঘটনায় দ্বিতীয় স্থানেই রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ! মোট ৪৭,৭৪৪ জন শিশু নিখোঁজের ঘটনা রয়েছে এই রাজ্যে এবং গুজরাট রয়েছে তৃতীয় স্থানে। মোদির এই রাজ্যে শিশু নিখোঁজ হওয়ার সংখ্যাটা ৪৩,৬৫৮। দিল্লি থেকে মোট ৩৭,৪১৮ জন শিশু নিখোঁজ হয়েছে এবং নাগাল্যান্ড, মিজোরাম, লাক্ষাদ্বীপ এবং দাদরা ও নগর হাভেলি থেকে কোনও শিশুর নিখোঁজ হওয়ার তথ্য মেলেনি।

আরও পড়ুনঃ কলকাতায় ভরদুপুরে অপহরণ করে ২ নাবালিকাকে গণধর্ষণ তিনজনের; অভিযুক্ত নাবালকও

স্মৃতি বলেন, নিখোঁজ বাচ্চাদের বিবরণ ‘ট্র্যাকচাইল্ড' (TrackChild) এবং ‘খোয়া-পায়া' (Khoya-Paya) ওয়েব পোর্টালে আপলোড করা হয়েছিল। এই ওয়েব পোর্টালগুলি নিখোঁজ শিশুদের সন্ধান চালাতে ব্যবহৃত হয়। তথ্য অনুসারে, ২০১৪ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ২০১৯ সালের ৪ ডিসেম্বর অবধি পোর্টালগুলিতে নথিভুক্ত করা এবং আপলোড করা মোট নিখোঁজ হওয়া শিশুর সংখ্যা ৩,১৮,৭৪৮।

আরও পড়ুনঃ হল না শেষ রক্ষা! মারা গেলেন উন্নাওয়ের নিগৃহীতা

স্মৃতি ইরানি আরও বলেন, “ট্র্যাকচাইল্ডের হিসেবে, সিকিওর ফাইল ট্রান্সফার প্রোটোকলের (এসএফটিপি) মাধ্যমে সারা দেশে ‘নিখোঁজ' হিসাবে চিহ্নিত শিশু, উদ্ধার হওয়া শিশু এবং প্রাতিষ্ঠানিক ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের তত্ত্বাবধানে থাকা শিশুদের ছবি ভাগ করে নেওয়ার জন্য ১৬ মে, ২০১৮ থেকে নিয়মিত ভিত্তিতে একটি ব্যবস্থা তৈরি করা হয়েছে।”

এই ৩.১৮ লক্ষ শিশুর মধ্যে সনাক্ত করা শিশুর সংখ্যা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য অবশ্য জানানো হয়নি।

More News