উত্তপ্ত লখনউয়ের নাদওয়া বিশ্ববিদ্যালয়, বিক্ষুব্ধ ছাত্রদের বিশ্ববিদ্যালয়েই আটকে রাখল পুলিশ

Lucknow: পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে এই যুক্তিতেই বিশ্ববিদ্যালয়ের বিক্ষোভকারী পড়ুয়াদের বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরের মধ্যেই আটকে রাখে পুলিশ

লখনউয়ের ক্যাম্পাসের ভেতর থেকে পাথর এবং ইট ছোঁড়া হয় বলে অভিযোগ

হাইলাইটস

  • উত্তপ্ত লখনউয়ের নাদওয়া বিশ্ববিদ্যালয়
  • নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়েই বিক্ষোভ দেখায় পড়ুয়ারা
  • বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিতর থেকে পুলিশকে লক্ষ্যে করে পাথরও ছোঁড়া হয় বলে অভিযোগ
লখনউ:

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে এবার বিক্ষোভ শুরু হল উত্তরপ্রদেশের লখনউের (Lucknow)  নাদওয়া বিশ্ববিদ্যালয়েও। জানা গেছে, পড়ুয়া-বিক্ষোভকারীদের বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে আটকে রেখে সেখানকার মূল প্রবেশদ্বার বন্ধ করে দেয় পুলিশ। বিশ্ববিদ্যালয়ের (Nadwa university) মূল ফটক বন্ধ করার পর সেই দরজায় প্রবল ধাক্কাধাক্কি শুরু করে বিক্ষোভকারীরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিতর থেকে পুলিশকে লক্ষ্যে করে পাথরও ছোঁড়া হয় বলে অভিযোগ। ক্যাম্পাসের ভেতর থেকে পাথরের পাশাপাশি ইট এবং চটি-জুতোও ছোঁড়া হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্যে কয়েকজন পুলিশ কর্মী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশ দ্বারের সামনের অঞ্চল ঘিরে রেখেছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে এই যুক্তিতেই বিশ্ববিদ্যালয়ের বিক্ষোভকারী পড়ুয়াদের বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরের মধ্যেই আটকে রাখে পুলিশ।

দিল্লিতে সংঘর্ষের পর ভারত জুড়ে ছাত্রদের রাতভর প্রতিবাদ: ১০ পয়েন্ট

গত সপ্তাহে নাগরিকত্ব আইন পাসের প্রতিবাদে দিল্লির জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে রবিবার ছাত্র বিক্ষোভ তথা সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। পুলিশ বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে প্রবেশ করে শিক্ষার্থীদের মারধর করেছে বলে অভিযোগ ওঠে। এদিকে পুলিশের পাল্টা দাবি যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিতর থেকে তাঁদের লক্ষ্যে করে পাথর ছোঁড়ায়, কারা তা ছুঁড়ছে তা জানতেই বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ করে তাঁরা।

"পুলিশই আগুন ধরিয়ে দিচ্ছিল": দিল্লির সংঘর্ষের ঘটনা নিয়ে ভাইরাল ভিডিও

পাকিস্তান, আফগানিস্তান এবং বাংলাদেশ থেকে আসা অমুসলিমদের ভারতীয় নাগরিকত্ব দেওয়ার লক্ষ্যেই এই নতুন নাগরিকত্ব আইন। কিন্তু এই আইন পাস করার পরেই তা নিয়ে শিক্ষার্থী এবং অন্যদের মধ্যে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে, প্রতিবাদ-আন্দোলনের আঁচ ছড়িয়ে পড়ে সারা দেশে। সমালোচকরা বলেন, এই আইনটি মুসলমানদের প্রতি বৈষম্যমূলক এবং সংবিধানের ধর্মনিরপেক্ষ নীতির পরিপন্থী।

সুপ্রিম কোর্ট মঙ্গলবার শিক্ষার্থীদের উপর পুলিশি পদক্ষেপের বিরুদ্ধে আবেদনের শুনানিতে সম্মতি দিয়েছে তবে প্রধান বিচারপতি একথাও বলেন যে আগে "এই ধরণের অশান্তি বন্ধ করতে হবে"।

More News