Majerhat bridge collapse:- রাজ্য সরকারকে দায়ী করলেন বিরোধী দলের নেতারা

এই ঘটনার দায় নিয়ে রাজ্য সরকারকে অবিলম্বে ক্ষমতা থেকে সরে যেতে বলে সরব হল বিজেপি

 Share
EMAIL
PRINT
COMMENTS
Majerhat bridge collapse:- রাজ্য সরকারকে দায়ী করলেন বিরোধী দলের নেতারা

গতকাল বিকেলে ভেঙে পড়ল মাঝেরহাট ব্রিজ

কলকাতা: 

গতকাল বিকেলে ভেঙে পড়ল মাঝেরহাট ব্রিজ। সরকারি হিসেব অনুযায়ী, মৃতের সংখ্যা এক। আহত উনিশজন। এই ঘটনার দায় নিয়ে রাজ্য সরকারকে অবিলম্বে ক্ষমতা থেকে সরে যেতে বলে সরব হল বিজেপি। “এটা রাজ্য সরকারের পূর্ত দফতরের দায়িত্ব যে রাজ্যের সমস্ত সেতু ও উড়ালপুলের রক্ষণাবেক্ষণের ব্যাপারে এই বর্ষার সময় আরও বেশি জোর দেওয়া।

কিন্তু, এমন কোনও ব্যবস্থা আদৌ গ্রহণ করা হয়েছে বলেই তো মনে হচ্ছে না। পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল কংগ্রেস সরকারের দায়িত্বজ্ঞানহীনতার একটা বড় নিদর্শন হয়ে রইল মাঝেরহাটের এই ব্রিজ ভেঙে যাওয়ার ঘটনাটি”, বলেন বিজেপির জাতীয় সচিব এবং রাজ্য বিজেপির পশ্চিমবঙ্গের পর্যবেক্ষক কৈলাশ বিজয়বর্গীয়।

তিনি আরও বলেন, “মাত্র আড়াই বছর আগেই এই শহরের পোস্তাতেই বিবেকানন্দ উড়ালপুল ভেঙে পড়ে বহু মানুষের প্রাণ চলে গিয়েছিল। সেই ঘটনা থেকেও আদতে কোনও শিক্ষাই নেয়নি রাজ্য সরকার। যে সরকার তার রাজ্যের বাসিন্দাদের সামান্যতম সুরক্ষাটুকুও দিতে পারে না, তাদের কোনও অধিকার নেই ক্ষমতা কুক্ষিগত করে রাখার”।

শুধু বিজেপি নয়। এই দুর্ঘটনা নিয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীও। তিনি এর জন্য মমা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারকে সরাসরি দায়ী করে বলেন, এত পুরনো ব্রিজটির রক্ষণাবেক্ষণ যদি একটু মনোযোগ দিয়ে করত সরকার, তবে এত বড় মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটত না কিছুতেই।

“এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক একটি ঘটনা। এবং, এটা কিন্তু রাজ্যে প্রথম ব্রিজ ভাঙার ঘটনা নয়। গত কয়েক বছরে পোস্তা এবং উল্টোডাঙাতে ব্রিজ ভাঙার ঘটনার সাক্ষী ছিলাম আমরা। রাজ্য সরকার যদি একটু দায়িত্বশীল হত, একটু সতর্ক হত, তাহলে এমন ঘটনা কখনওই ঘটত না”, বলেন অধীর।

সিপিএম নেতৃত্ব এই ঘটনাকে পোস্তা উড়ালপুলের ঘটনারই ‘দগদগে স্মৃতি ফিরে এলো’ বলে অ্যাখা দিয়ে সমস্ত মানুষকে উদ্ধারকার্যে সহায়তার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

“পোস্তা ব্রিজ ভেঙে পড়ার ঘটনা স্মৃতি ফের ফিরিয়ে দিল মাঝেরহাট ব্রিজের এই দুর্ঘটনা। পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর। আমরা জানি না, এখনও পর্যন্ত ঠিক কতজন মানুষ এই ভয়াবহ দুর্ঘটনায় আহত অথবা নিহত হয়েছেন। উদ্ধারকার্য ঠিকভাবে চালানোই এখন সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য। আমরা আমাদের বন্ধু ও সমস্ত দলীয় কর্মীকে যত দ্রুত সম্ভব ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধারকার্যে হাত লাগানোর অনুরোধ জানিয়েছি। যেভাবে সকলে মিলে উদ্ধারকার্যে হাত লাগিয়েছেন, তা সত্যিই অভূতপূর্ব”, বলেন সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তী।  



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদিত করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে.)


পশ্চিমবঙ্গের খবর, কলকাতার খবর, আর রাজনীতি, ব্যবসা, প্রযুক্তি, বলিউড আর ক্রিকেটের সকল বাংলা শিরোনাম পড়তে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

NDTV Beeps - your daily newsletter

................................ Advertisement ................................

................................ Advertisement ................................

................................ Advertisement ................................