Majerhat bridge collapse: মাঝেরহাট ব্রিজ নিয়ে দায় ঝেড়ে ফেলতে চাইছে সব পক্ষই

মাঝেরহাট ব্রিজ (Majerhat bridge) যেন কখনওই কারও ছিল না! এমনকি এই ব্রিজ ছিল না রাজ্যের মানুষেরও! ব্রিজটি ভেঙে পড়ে গত মঙ্গলবার বিকেলবেলা। চমকিত হয়ে যায় গোটা শহরবাসী।

 Share
EMAIL
PRINT
COMMENTS
Majerhat bridge collapse: মাঝেরহাট ব্রিজ নিয়ে দায় ঝেড়ে ফেলতে চাইছে সব পক্ষই

majerhat bridge collapse... মাঝেরহাট ব্রিজের পাশেই মেট্রোরেলের প্রকল্পের কাজ চলছিল বলেই এই দুর্ঘটনা ঘটে, বলেন মমতা।

কলকাতা: 

মাঝেরহাট ব্রিজ (Majerhat bridge) যেন কখনওই কারও ছিল না! এমনকি এই ব্রিজ ছিল না রাজ্যের মানুষেরও! ব্রিজটি ভেঙে পড়ে গত মঙ্গলবার বিকেলবেলা। চমকিত হয়ে যায় গোটা শহরবাসী। একের পর এক টুইট করে শোকপ্রকাশ করতে থাকেন বিভিন্ন নেতা ও মন্ত্রী। অপরাধমূলক নরহত্যার অভিযোগও দায়েরও হয়ে যায়, কিন্তু, এখানেই একটু অপেক্ষা করার আছে, অপেক্ষাই করে যান বরং, কারণ, প্রথম যে এফআইআর’টি দায়ের করা হয়েছে এই মামলা নিয়ে, সেখানে কারও নাম নেই! মামলাটি আসলে করা হয়েছে একজন ‘শূন্য মানুষ’-এর বিরুদ্ধে! যার, আসলে কোনও অস্তিত্বই নেই। এই ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটার পরেরদিন সন্ধেবেলা ঘটনাস্থলে এসে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, মাঝেরহাট ব্রিজের পাশেই মেট্রোরেলের প্রকল্পের কাজ চলছিল বলেই এই দুর্ঘটনা ঘটে।

“স্থানীয় মানুষরা জানিয়েছিল, মেট্রোর প্রকল্পের জন্য এখানে পাইলিং হচ্ছিল যখন, সেই সময় গোটা এলাকাটিই এমনভাবে কাঁপতে আরম্ভ করেছিল, যেন ভূমিকম্প হচ্ছে। কলকাতা মেট্রোর নির্মাণের সময়েও এমন ঘটনা ঘটত। এটা একদম বাস্তব একটি ব্যাপার। আমরা এই দুর্ঘটনা নিয়ে কোনওদিক দিয়েই কোনওরকম রাজনীতি করার চেষ্টা করছি না। তার সঙ্গে এটাও বলে রাখা ভালো যে, কয়েকটি দিক নিয়ে বেশি ভাবতে গিয়ে আসল ইস্যু থেকে নজর ঘোরাতেও চাইছি না আমরা”, বলেন মমতা।

 Majerhat Bridge collapse: বিজেপিকে সার্কাস পার্টি বললেন পার্থ

গতকাল সকালে তাঁর মন্ত্রীসভার এক গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমও একই কথা বলেন।

মাঝেরহাট ব্রিজটির রক্ষণাবেক্ষণ ঠিকভাবে করা হয়নি বলে যে আলোচনা চলছে চারদিকে, তাকে কি সমর্থন করেন তিনি, জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল তাঁকে। ওই প্রশ্নের ফিরহাদ (ববি) হাকিম স্পষ্টভাবে বলেন, “না। আমি সমর্থন করি না। কোনও প্রশ্নই নেই। আমি ছোটবেলা থেকে এই ব্রিজটাকে দেখছি। সেই সঙ্গে আমি এটাও বলব যে, ব্রিজের পাশ দিয়ে যে বিশাল কাঠামো গড়ে তোলা হচ্ছিল, দেখতে পেয়েছি সেটাও। আমি ইঞ্জিনিয়ার নই। আমি একজন সাধারণ মানুষ। যেভাবে ভারী কাঠামো ব্রিজের পাশে গড়ে তোলার জন্য কেঁপে কেঁপে উঠছিল ব্রিজটি, তার জন্যই এই ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটে থাকতে পারে বলে মনে করি”।

 Majerhat bridge collapse: মাঝেরহাট ব্রিজ ভেঙে পড়া নিয়ে 'সুয়ো মোটো' দায়ের করা হল

জোকা-এসপ্ল্যানেড মেট্রো করিডোর গড়ার দায়িত্ব যে সংস্থা ওপর, সেই আরভিএনএল দুর্ঘটনা ঘটার সন্ধেতেই বিবৃতি দিয়ে জানিয়ে দিয়েছিল যে, এই দুর্ঘটনার সঙ্গে মেট্রো রেলের করিডোর বানানোর কোনও সম্পর্ক নেই। ব্রিজের যে অংশটি ভেঙে গিয়েছে, সেই অংশে মেট্রোরেল কাজ করা থামিয়ে দিয়েছে এক বছর আগে।

বেশ কয়েকটি বিখ্যাত ব্রিজ বানিয়েছেন ইঞ্জিনিয়ার অমিতাভ চক্রবর্তী। তিনিও সহমত হলেন মেট্রোরেলের বিবৃতির সঙ্গে। “এই ঘটনার সঙ্গে মেট্রো করিডোরের কোনও সম্পর্ক নেই। মেট্রোর কাজের জন্য এই ঘটনা ঘটত, তাহলে অন্তত ষাট ফুট গভীর থেকে মাটিকে ক্ষইয়ে দিয়ে পিলার আলগা করে সব শুদ্ধু পড়ে যেত ব্রিজ। কেবলমাত্র স্ল্যাবগুলো পড়ত না”। বিটুমিনের পরিমাণ প্রচুর বেড়ে যাওয়া এবং প্রবলভাবে বৃদ্ধি পাওয়া যান চলাচলের ভার আর বহন করতে না পেরে এই পুরনো ব্রিজটি ক্রমশ দুর্বল হয়ে পড়ছিল বলে মনে করেন অমিতাভ বাবু।

“নিয়মিত দেখভাল আর নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ দরকার”, বলেন তিনি।

পোস্তা ব্রিজ ভেঙে যাওয়ার পরে গঠিত বেশ কিছু প্যানেলের তদন্ত কমিটির সদস্য ছিলেন তিনি।

“আমি জানি না শেষমেশ কী হল তদন্তে। আমি এখনও পর্যন্ত একটা রিপোর্টও তো দেখিনি”, বলেন তিনি।      



পশ্চিমবঙ্গের খবর, কলকাতার খবর, আর রাজনীতি, ব্যবসা, প্রযুক্তি, বলিউড আর ক্রিকেটের সকল বাংলা শিরোনাম পড়তে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা ফলো করুন Twitter আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube

NDTV Beeps - your daily newsletter

পড়ুন | Read In

................................ Advertisement ................................

................................ Advertisement ................................

................................ Advertisement ................................