This Article is From Mar 23, 2020

নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ বন্ধ রাখল পার্ক সার্কাস

৭ জানুয়ারি কলকাতার এই গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় শুরু হয় নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ

নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ বন্ধ রাখল পার্ক সার্কাস

এখন থেকে পার্ক সার্কাসের ধরনাস্থলে কেবলমাত্র ৭ জন বিক্ষোভকারী থাকবেন (ফাইল)

কলকাতা:

করোনা ভাইরাসের কারণে জমায়েত নিষিদ্ধ হওয়ায় নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ বন্ধ রাখল পার্ক সার্কাস। এখন থেকে পার্ক সার্কাসের ধরনাস্থলে কেবলমাত্র ৭ জন বিক্ষোভকারী থাকবেন। ৭ জানুয়ারি কলকাতার এই গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় শুরু হয় নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ। এই জমায়েত, বিক্ষোভকে কলকাতার শাহিনবাগ বলা হয়। করোনা ভাইরাস (Coronavirus) ছড়িয়ে পড়া রুখতে রাজ্যজুড়ে শুরু হয়েছে লকডাউন (Lockdown)। সোমবার বিকেল ৫টা থেকে জারি হওয়া লকডাউন চলবে ২৭ মার্চ পর্যন্ত। পাবলিক অ্যাড্রেসস সিস্টেমে মানুষকে ঘরে ফিরে যাওয়ার আর্জি জানিয়েছে পুলিশ, ব্যবসায়ীদের দোকান বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে।

করোন‌া ভাইরাসের প্রকোপে প্রথম মৃত্যু কলকাতায়, ছিল না বিদেশ ভ্রমণের ইতিহাস: সূত্র

অন্যদিকে, এদিনই রাজ্যে করোনা ভাইরাসের (COVID-19) কবলে প্রথম মৃত্যু হয়েছে ৫৭ বছরের এক ব্যক্তির। করোনা ভাইরাসে রাজ্যে এখনও পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ৬ জন। রবিবার রাজ্য সরকারের তরফে বিজ্ঞপ্তি জারি করে বলা হয়েছে, সোমবার বিকেল ৫টা থেকে ২৭ মার্চ পর্যন্ত কলকাতা সহ রাজ্যের সমস্ত শহর লকডাউন থাকবে।

এই লকডাউন প্রযোজ্য হবে কলকাতা পুরনিগমের আওতাভুক্ত এলাকা, উত্তর ২৪ পরগনা, মালদা, মুর্শিদাবাদ, নদিয়া, পশ্চিম বর্ধমান, উত্তর দিনাজপুর, এবং হাওডড়া জেলায়। শিলিগুড়ি, দার্জিলিং, কার্শিয়াং শহরেও এই লকডাউন প্রযোজ্য হবে বলে জানানো হয়েছে রাজ্য সরকারের বিবৃতিতে।  সমস্ত দোকানপাট, ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান, কারখানা, ওয়ার্কশপ বন্ধ রাখতে হবে বলে জানানো হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে।

কলকাতা সহ রাজ্যজুড়ে জারি লকডাউন

নাগরিকত্ব সংশোধন আইনে, ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তান থেকে যে  সমস্ত হিন্দু, শিখ, পার্সি এবং খ্রিশ্চান সম্প্রদায়ভুক্ত ব্যক্তি ভারতে এসেছেন,তাঁরা অবৈধ অনুপ্রবেশকারী বলে চিহ্নিত হবেন না, বরং তাঁদের ভারতীয় নাগরিকত্ব দেওয়া হবে।