"এক টাকা জরিমানা নয় তিন মাসের জেল", প্রশান্ত ভূষণকে সাজা শোনালো সুপ্রিম কোর্ট

এই রায় হাতে পাওয়ার পরেই সিদ্ধান্ত নেবেন প্রশান্ত ভূষণ। এই আইনজীবী আদৌ জরিমানা দেবেন না, অন্য বিকল্প খুঁজবেন খতিয়ে দেখবেন তিনি

মন্তব্যের জন্য ক্ষমাপ্রার্থনা করতে নারাজ ছিলেন প্রশান্ত ভূষণ।

নয়াদিল্লি:

আদালত অবমাননার দায়ে এক টাকা জরিমানা করা হল আইনজীবী-সমাজকর্মী প্রশান্ত ভূষণকে। আগামি ১৫ সেপ্টেম্বর মধ্যে এই জরিমানা  অনাদায়ে তিন মাস জেলের নিদান দিল সুপ্রিম কোর্ট। প্রধান বিচারপতি এসএ বোবদের বেঞ্চ এই রায় সোমবার দিয়েছে। বাকস্বাধীনতা মানে অন্যকে অপমান করা যায় না। এই মন্তব্য করেই এদিন রায়দান করেছে শীর্ষ আদালত। এই রায় হাতে পাওয়ার পরেই সিদ্ধান্ত নেবেন প্রশান্ত ভূষণ। এই আইনজীবী আদৌ জরিমানা দেবেন না, অন্য বিকল্প খুঁজবেন খতিয়ে দেখবেন তিনি। সংবাদমাধ্যমকে এমনটাই জানিয়েছেন তিনি। এদিকে, একসপ্তাহ আগে সুপ্রিম কোর্টের সঙ্গে সরাসরি সংঘাতে গিয়েছিলেন প্রশান্ত ভূষণ। আদালত অবমাননার অপরাধে কোর্টের প্রতি করা মন্তব্য ফেরাবেন না তিনি। সোমবার এমন দাবি করেছেন এই আইনজীবী-সমাজকর্মী। তাঁর মন্তব্য, "আদালতের প্রতি করা মন্তব্য ফেরালে নিজের বিবেচনার সঙ্গে অবমাননা করা হবে।"  এদিকে, বৃহস্পতিবার শেষ শুনানিতে বিচারপতি অরুণ মিশ্রের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের বেঞ্চ খানিকটা ধমকের সুরে প্রশান্ত ভূষণকে বলেছিলেন, "এজলাসে অন্তত আইনি মাথাটা ব্যবহার করবেন না। আমরা গত ২৪ বছর ধরে বিচারকের পথে। কিন্তু এভাবে কাউকে অবমাননার জন্য কাঠগড়ায় তুলিনি।" 

এই শুনানির পর প্রশান্ত ভূষণকে মন্তব্য ফেরাতে তিনদিন সময় দিয়েছিল আদালত। সেই সময়সীমার মধ্যেই এদিন প্রশান্ত ভূষণ বলেছেন, "আমি ধরতে পারি এটা মাই লর্ডের ইচ্ছা। কিন্তু তাতেও খুব একটা বদল হবে না। আমি মাই লর্ডের সময় নষ্ট করতে চাই না। আইনজীবীর সঙ্গে কথা বলেই পরবর্তী পদক্ষেপ নেবো।"

নিজের করা মন্তব্য প্রসঙ্গে প্রশান্ত ভূষণ বলেন, "গণতন্ত্রের সুরক্ষা মর্যাদা রক্ষায় এই মন্তব্য আমার সর্বসমক্ষে সমালোচনা ছিল। ন্যায়ের রক্ষক হিসেবে এই কাজ করেছি।"

যদিও আদালত ভূষণের এই মন্তব্যকে সমালোচনা করা হয়েছে। বিচারপতি অরুণ মিশ্র বলেছেন, "তুমি একটা ভালো কাজ করলেও, সমাজ তোমাকে দশটা খারাপ কাজ করার লাইসেন্স দেয় না।"