This Article is From Aug 05, 2019

‘দেশকে টুকরো টুকরো করছে ওরা’, জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে কেন্দ্রের সমালোচনায় গুলাম নবি আজাদ

রাজ্যকে টুকরো টুকরো করে উপত্যকায় সন্ত্রাসের পরিবেশ রোখা বা অনুপ্রবেশ বন্ধ করা যাবে না বলে মনে করেন রাজ্যসভায় কংগ্রেসের দলনেতা গুলাম নবি আজাদ (Ghulam Nabi Azad)।

গোলাম নবী আজাদ বলেছেন, বিজেপি ৩৭০ ধারা বাতিল করার কৌশলগত প্রভাবের দিকে নজর দেয়নি

নয়াদিল্লি:

জম্মু-কাশ্মীরের (Jammu and Kashmir) সংবিধান প্রদত্ত বিশেষ অধিকার বাতিল করেছে কেন্দ্র। বদলে উপত্যকাকে দুটি কেন্দ্র শাসিত আঞ্চলে ভাগ করার প্রস্তাব দিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ (Amit Shah)। একটি জম্মু কাশ্মীর, অপরটি লাদাখ। কেন্দ্রের এই পদক্ষেপের প্রবল বিরোধীতা করেছে কংগ্রেস(Congress)। রাজ্যকে টুকরো টুকরো করে উপত্যকায় সন্ত্রাসের পরিবেশ রোখা বা অনুপ্রবেশ বন্ধ করা যাবে না বলে মনে করেন রাজ্যসভায় কংগ্রেসের দলনেতা গুলাম নবি আজাদ (Ghulam Nabi Azad)। সংসদে কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের পর সোমবার কংগ্রেসের এই বর্ষিয়ান সাংসদ মনে করেন বিজেপির ভৌগলিক বা ঐতিহাসিক ধারণা নেই। ওরা ভোটের জন্য জম্মু-কাশ্মীরকে (Jammu and Kashmir) ধবংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে। তিনি বলেন, ‘‘বিজেপি কেবল ৩৭০  (article 370) বা ৩৫-এ (article 35a) ধারা বিলোপ করেনি, বদলে পুরো রাজ্যকে বিভক্ত করেছে। এই সরকার পুরো দেশকে অচল করে দিচ্ছে। সরকার জম্মু-কাশ্মীরকে পুর্নগঠন করতে রাজ্যসভায় চারটি বিলের প্রস্তাবের কথা বলেছিল। যদিও দেখা যাচ্ছে রাজ্যটিকে এখন জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ (Ladakh), কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিতে বিভক্ত করা হবে।'' 

৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পর, নজর কাড়ল অমিত শাহের এই ছবি

কংগ্রেস সাংসদ গুলাম নবি আজাদ (Ghulam Nabi Azad ) মনে করেন কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের ফলে ভূস্বর্গের অশান্তির পরিবেশের পরিবর্তন হবে না। তাঁর মতে, ‘বিজেপি অনেক পরে ক্ষমতায় এসেছে। তারা উপত্যকার আন্তর্জাতিক , ভৌগলিক সীমা এবং কৌশল বিবেচনা করে রাজ্যভাগের পদক্ষেপ ও ৩৭০ ধারা বিলোপ করেনি।'' আজাদের সংযোজন ‘ওই রাজ্যে ভারতের সঙ্গে চিন ও পাকিস্তানের সীমানা রয়েছে। এইভাবে সীমান্তের কোনও রাজ্য, তাদের বাসিন্দাদের সহ্গে আচরণ আসলে দেশদ্রোহীতার সামিল।'

শুধু সশস্ত্র নিরাপত্তা বাহিনীর মাধ্যমে শত্রদের নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে এদেশে প্রবেশ আটকানো আসম্ভব। মনে করেন গুলাম নবি আজাদ। তাঁর মতে,"এর জন্য প্রয়োজন রাজ্যের মানুষের সহায়তা।" ১৯৪৭ সালের কথা মনে করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, "সেদিনও জনসাধারণ লাঠি হাতে পাক অনুপ্রবেশকারীদের বিরুদ্ধে লড়াই করেছিল জম্মু-কাশ্মীরের বাসিন্দারা।"জম্মু কাশ্মীরকে কেন্দ্রশাসিত করার বিষয়ে কেন্দ্রের পাশে ‘বিরোধী' অরবিন্দ কেজরিওয়াল
কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ৩৭০ ধারাকে (article 370) 'কালা কানুন' বলেছেন। যার বিরোধিতা করেছেন কংগ্রেস নেতা গুলাম নবি আজাদ। কেন্দ্রের সমালোচনা করে তিনি বলেন, "জম্মু-কাশ্মীরের ভৌগলিক ও সাংস্কতিক বৈচিত্র রয়েছে। উপত্যকায় মোট তিনটি আঞ্চল রয়েছে। এর মধ্যে জম্মুতে প্রায় ৬০ শতাংশ হিন্দু ও ৪০ শতাংশ মুসলমান। ৩৭০ ধারা বলেই বৈচিত্রময় জম্মু-কাশ্মীর একসঙ্গে ছিল।"জম্মু-কাশ্মীরকে পুনর্গঠন কারার যুক্তি হিসাবে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, লাদাখের  মানুষের অনেকদিনের দাবি ছিল জম্মু-কাশ্মীরের এই দুর্গম অঞ্চলকে বিশেষ সুবিধা দেওয়া হোক। তাঁদের দাবির কথা মাথায় রেখে কেন্দ্র শাসিত অঞ্চল করার  সুপারিশ করা হয়েছে। অন্য দিকে জম্মু ও কাশ্মীরে জঙ্গি অনুপ্রবেশ, হিংসা রুখতে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল করার প্রস্তাব রাখা হয়েছে। বিধানসভা যুক্ত কেন্দ্র শাসিত অঞ্চল হবে জম্মু ও কাশ্মীর।

কেন্দ্রের পদক্ষেপের বিরোধীতায় সামিল হয় কংগ্রেস সহ, তৃণমূল, উপত্যকার রাজনৈতিক সব দল। এছাডা়ও এই বিরোতায় সামিল আরও বেশ কয়েকটি বিজেপি বিরোধী দল। উল্টোদিকে প্রস্তাবকে সমর্থন জানিয়েছে, কেজরিওয়ালের আপ, বিএসপি, টিআরএস, ওয়াইএসআর কংগ্রেস, বিজেডির মতো এনডিএ জোটের বাইরের দলগুলি।