সংসদমুখী জেএনইউয়ের পড়ুয়ারা, মাঝপথেই মিছিল থামাল পুলিশ

JNU Protest: কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক কার্যক্রম চালাতে সোমবার সকালে শিক্ষা মন্ত্রক তিন সদস্যের একটি প্যানেলও গঠন করে

JNU Hostel Fee Hike: হোস্টেলের ফি বৃদ্ধির প্রতিবাদে জেএনইউয়ের পড়ুয়ারা

নয়া দিল্লি:

সম্প্রতি দিল্লির জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে উপচে পড়েছে ছাত্ররোষ। আচমকাই বিশ্ববিদ্যালয়ের হস্টেল ফি ৩০০ গুণ বাড়িয়ে দেওয়ায় ক্ষোভে (JNU Protest) ফেটে পড়েন সেখানকার পড়ুয়ারা। আন্দোলন-বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে ওঠে বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর। চাপের মুখে পড়ে শেষপর্যন্ত বেশ কিছুটা হস্টেল ফি (JNU Hostel Fee Hike) কমানোর ঘোষণা করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। কিন্তু তা মানতে নারাজ ছাত্র-ছাত্রীরা। তাঁদের দাবি, পুরনো হস্টেল ফি-ই বজায় রাখতে হবে জেএনইউ কর্তৃপক্ষকে। আর সেই দাবি নিয়েই সোমবার সংসদের (JNU students parliament march) উদ্দেশে মিছিল করে এগোতে থাকেন পড়ুুয়ারা। কিন্তু তাঁদের মাঝপথেই থামিয়ে দেয় পুলিশ। জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়াদের বিক্ষোভের মধ্যেই, সেখানকার শীর্ষ কর্তৃপক্ষ জানিয়ে দিল, তাদের হস্টেল ফি থেকে একটা বড় অংশ ফিরিয়ে নেওয়া বা কমিয়ে দেওয়া হবে। বুধবার এমনটাই জানিয়েছেন মানব সম্পদ উন্নয়নমন্ত্রকের এক উচ্চ পদস্থ আধিকারিক।

ওই আধিকারিক জানান, আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া পড়ুয়াদের আর্থিক সহায়তার জন্য একটি প্রকল্প চালু করার প্রস্তাব দিয়েছে জেএনইউ কর্তৃপক্ষ। শিক্ষা সচিব এস সুব্রহ্মণ্যম ট্যুইট করে জানান, “জেএনইউ এর এক্জিকিউটিভ কমিটি ঘোষণা করেছে, হোস্টেল ফি-এর একটি বড় অংশ কমিয়ে দেওয়া হবে, এবং অন্যান্য শর্তও প্রত্যাহার করা হবে। পাশাপাশি আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া পড়ুয়াদের জন্যও একটি প্রকল্পের ঘোষণা করেছে। ক্লাসে ফিরে যাওয়ার সময় এসেছে”।

ছাত্র বিক্ষোভের মাঝেই হোস্টেল ফি-এর “বড় অংশ” প্রত্যাহার করল জেএনইউ

জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ইউনিয়ন বৃহস্পতিবার ছাত্রাবাসের ফি বৃদ্ধিতে সাম্প্রতিকতম হোস্টেল ফি বৃদ্ধির প্রতিবাদেই সোমবার সংসদমুখী এই পদযাত্রার নেতৃত্ব দেয়। হাতে পোস্টার নিয়ে শত শত শিক্ষার্থী আজ (সোমবার) এই ফি-বৃদ্ধির স্লোগান দিয়ে প্রতিবাদ আন্দোলনে সামিল হন। ক্যাম্পাসের বাইরে প্রায় ১,২০০ পুলিশ মোতায়েন করা হয়। ওই প্রতিবাদকারীদের সংসদে যাওয়ার আগেই আটকে দেওয়া হয়, কেননা সংসদের বাইরে যেকোনও বড় সমাবেশ নিষিদ্ধ।

জেএনইউ শিক্ষার্থী ইউনিয়ন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের ফি কমানোর ঘোষণাটিকে লোক দেখানো বলে উল্লেখ করেছেন।  আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া পড়ুয়াদের আর্থিক সহায়তার জন্য একটি প্রকল্প চালু করার প্রস্তাব বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে নিন্দায় সরব হয়েছেন তাঁরা।

ভিডিও বার্তায় প্রতিবাদী পড়ুয়াদের ক্লাসে ফেরার আর্জি জেএনইউ ভাইস চ্যান্সেলরের

মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের সচিব আর সুব্রহ্মণ্যমকে উল্লেখ করে পিটিআই জানিয়েছে, "সব পক্ষের সঙ্গে কথা বলেই জেএনইউর স্বাভাবিক অবস্থা পুনরুদ্ধার এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে বিতর্কিত বিষয়গুলির সমাধানের পরামর্শ দেওয়ার লক্ষ্যে সরকার তিন সদস্যের একটি উচ্চপর্যায়ের কমিটি নিয়োগ করেছে"।

ওই কমিটি "আপাতভাবে ছাত্র ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে আলাপ আলোচনা করবে এবং গ্রহণযোগ্য পদক্ষেপের বিষয়ে সুপারিশ জমা দেবে", আরও বলেন তিনি। শ্রী সুব্রহ্মণ্যম বলেন, "ইউজিসি কমিটির কার্যক্রমে প্রয়োজনীয় সহায়তা দেবে"।

More News