"এত তাড়াতাড়ি কিছু বলা যাবে না": সরকার ধরে রাখা নিয়ে বললেন ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাস

প্রাথমিক ভাবে ৮১ টি আসনের মধ্যে বিজেপি ২৯ টি আসনে এবং প্রতিদ্বন্দ্বী কংগ্রেস-ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা জোট সংখ্যাগরিষ্ঠতার লক্ষ্যে ৪১ টি আসনে এগিয়ে ছিল

দ্বিতীয় মেয়াদে সরকার গড়ার স্বপ্ন দেখছেন ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী Raghbar Das

হাইলাইটস

  • ঝাড়খণ্ডে ফের সরকার গড়ার ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী বিজেপির রঘুবর দাস
  • রঘুবর দাসের নেতৃত্বেই এর আগের বার সে রাজ্যে সরকার গড়ে বিজেপি
  • তবে প্রাথমিক ভাবে এগিয়ে রয়েছে কংগ্রেস-জেএমএম জোট
রাঁচি, ঝাড়খণ্ড:

ঝাড়খণ্ড নির্বাচনের ভোটগণনার (Jharkhand Assembly Election)  প্রাথমিক পর্যায়ে দেখা যাচ্ছে কড়া টক্করের মুখে পড়েছে শাসক দল বিজেপি। প্রাথমিক ভাবে গেরুয়া দলকে পিছনে ফেলে অনেকটাই এগিয়ে গেছে বিরোধী কংগ্রেস-জেএমএম জোট। কিন্তু এখনই হাল ছাড়তে রাজি নন বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাস। আত্মবিশ্বাসী কণ্ঠে তাঁকে Jharkhand Chief Minister Raghubar Das) বলতে শোনা যায় যে, ঝাড়খণ্ডে "বিজেপির নেতৃত্বেই সরকার গঠন করা হবে"।  নিজের জয়ের ব্যাপারে প্রায় নিশ্চিত রঘুবর দাস বলেন, এখনই রাজ্যের ফলাফল (Jharkhand Election Result) বিজেপির প্রতিকূলে বলাটা ঠিক নয়। "এই মুহুর্তে এখনি নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে স্পষ্ট বক্তব্য দেওয়া সম্ভব নয়, যেহেতু আমরা এখনও ভোট গণনার মাত্র দুই বা তিন দফায় রয়েছি। নির্বাচনে মোট ১৭-১৮ রাউন্ড ভোটগণনা রয়েছে। বিরোধীদের সঙ্গে আমাদের ভোট পার্থক্য খুবই সামান্য... এতটাই কম যে এই মুহুর্তে আপনি যা দেখছেন সেই ফলাফলের মোড় যে কোনও মুহূর্তে ঘুরে যেতে পারে", সাংবাদিকদের বলেন রঘুবর দাস।

প্রাথমিক ভাবে ৮১ টি আসনের মধ্যে বিজেপি ২৯ টি আসনে এবং প্রতিদ্বন্দ্বী কংগ্রেস-ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা জোট সংখ্যাগরিষ্ঠতার লক্ষ্যে ৪১ টি আসনে এগিয়ে ছিল।

দ্বিতীয় মেয়াদেও সরকার গড়ার স্বপ্ন দেখছেন ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাস!

"যাঁরা এখনই বিজয় উৎসব উদযাপন করছেন তাঁরা তা করতেই পারেন, কেননা কেউ কাউকে উদযাপন থেকে বিরত রাখতে পারে না", কংগ্রেস-জেএমএম জোটকে কটাক্ষ করে বলেন রঘুবর দাস। 

"হ্যাঁ, দু'একটি আসনের ফলাফল কিছুটা আলাদা হলেও হতে পারে ... কিছুটা বিরোধীদের অনুকূলে পরিস্থিতিও থাকতে পারে, তবে আমরা অত্যন্ত আত্মবিশ্বাসী যে চূড়ান্ত ফলাফল বেরিয়ে গেলেই আপনারা দেখতে পাবেন যে বিজেপি সরকার গঠন করবে। আমরা এ ব্যাপারে অত্যন্ত আত্মবিশ্বাসী", দৃঢ়স্বরে বলেন তিনি। 

মুখ্যমন্ত্রী রঘুবর দাসের পক্ষে এই নির্বাচনের ফলাফল সাংঘাতিক চ্যালেঞ্জিং হওয়ার সম্ভাবনা, কেননা তাঁর বিরুদ্ধে এবার লড়ছে নিজের দলেরই বিদ্রোহী সারিউ রাই। তবে এ কথাও মনে রাখতে হবে যে, এই রাজ্যের কোনও মুখ্যমন্ত্রী কোনও দিনই পরপর দু'বার নির্বাচনে জিততে পারেননি। যদিও সেই ১৯৯৫ সাল থেকে জামশেদপুর পূর্বের আসনটি লাগাতার জিতে আসছেন রঘুবর দাস।

ঝাড়খণ্ডে ভোট পরবর্তী সমীক্ষায় জেএমএম-কংগ্রেস জোটের অনুকূলে হাওয়া!

২০১৪ সালে, বিজেপি ৩৭ টি আসন জিতেছিল এবং তার সহযোগী, অল ঝাড়খন্ড স্টুডেন্টস ইউনিয়ন ৫ টি আসন পেয়ে এনডিএকে সংখ্যাগরিষ্ঠতার চেয়ে এগিয়ে দেয়। বিজেপির প্রভাবশালী পারফরম্যান্স বিরোধী দল কংগ্রেসকে মাত্র ৬টি আসনে নামিয়ে আনে। তবে এবার ঝাড়খণ্ডে একা লড়ারই সিদ্ধান্ত নেয় অল ঝাড়খণ্ড ছাত্র ইউনিয়ন। অল ঝাড়খণ্ড ছাত্র ইউনিয়ন বা এজেএসইউ ৮১ টি আসনের মধ্যে ৫২ টিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে।