This Article is From Feb 15, 2020

জন নিরাপত্তা আইনে বন্দি করা হল জম্মু ও কাশ্মীরের নেতা শাহ ফয়জলকেও

Public Safety Act: শাহ ফয়জলের আগে জম্মু ও কাশ্মীরের প্রাক্তন দুই মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লা ও মেহবুবা মুফতিকে ওই একই আইনের অধীনে বন্দি করে রাখা হয়েছে

জন নিরাপত্তা আইনে বন্দি করা হল জম্মু ও কাশ্মীরের নেতা শাহ ফয়জলকেও

Jammu and Kashmir: জম্মু ও কাশ্মীরের জনপ্রিয় রাজনৈতিক নেতা শাহ ফয়জল (ফাইল চিত্র)

হাইলাইটস

  • জন নিরাপত্তা আইনে এবার বন্দি করা হল শাহ ফয়জলকে
  • এর আগে ওই একই আইনে বন্দি করা হয় মেহবুবা মুফতি এবং ওমর আবদুল্লাকেও
  • জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা রদে কেন্দ্রের সমালোচনা করেন ফয়জল
জম্মু ও কাশ্মীর:

জম্মু ও কাশ্মীরের আরও এক রাজনৈতিক নেতাকে এবার বন্দি করা হল জন নিরাপত্তা আইনে। আইএএস টপার শাহ ফয়জলকে পিএসএ (Public Safety Act) আইনে বন্দি করার ঘোষণা করা হল। এর ফলে উপত্যকার (Kashmir) ওই রাজনৈতিক নেতাকে (Shah Faesal) কমপক্ষে ৩ মাস এবং প্রয়োজনে আরও দীর্ঘ সময় বিনা বিচারে বন্দি করে রাখা যাবে। গত ১৪ অগাস্ট জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা রদের পর থেকেই আটক করে রাখা হয়েছিল ফয়জলকে। শাহ ফয়জলের আগে জম্মু ও কাশ্মীরের (Jammu and Kashmir) প্রাক্তন দুই মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লা ও মেহবুবা মুফতিকে ওই একই আইনের অধীনে বন্দি করে রাখা হয়েছে। এছাড়াও জম্মু ও কাশ্মীরের যে নেতাদের জন নিরাপত্তা আইনের আওতায় বন্দি করা হয় তাঁরা হলেন, ফারুক আবদুল্লা, আলি মহম্মদ সাগর, নঈম আক্তার, সারতাজ মাদানি এবং হিলাল লোন।

গত বছরই রাজনীতিতে যোগ দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন শাহ ফয়জল। এরপরই জম্মু ও কাশ্মীরের ভোলবদল করে কেন্দ্র। ২০১৯ সালের ৫ অগাস্ট ঘোষণা করা হয় জম্মু ও কাশ্মীর থেকে সংবিধানের ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার করে রাজ্যটিকে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগ করা হবে। জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করার এক সপ্তাহ পরে ১৪ অগাস্ট শাহ ফয়জল যখন বিদেশ যাচ্ছিলেন তখনই তাঁকে দিল্লি বিমানবন্দরে আটক করা হয়। সেই সময় তাঁকে শ্রীনগরে ফেরত পাঠানো হয়েছিল, এবং তখন থেকেই তাঁকে আটক করে রাখা হয়।

PSA আইনে ওমর আবদুল্লাকে বন্দি করার কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে তাঁর বোন

জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা সমাপ্ত করে রাজ্যটিকে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগ করার বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের পদক্ষেপের অন্যতম সমালোচক এই শাহ ফয়জল।

পেশাগত ভাবে একজন দক্ষ চিকিৎসক শাহ ফয়জল। ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে কাশ্মীরে যে "নির্বিচারে হত্যা" হয় এবং "ভারতীয় মুসলমানদের একঘরে" করে দেওয়ার জন্যে যে তোড়জোর শুরু হয় তারই বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সরব হন তিনি, শুধু তাই নয় প্রতিবাদস্বরূপ আইএএসের চাকরি থেকে ইস্তফাও দেন তিনি।

ওমর আবদুল্লার মুক্তির বিষয়ে তাঁর বোনের আবেদনে প্রশাসনকে আদালতের নোটিস

শাহ ফয়জল ২০০৯ সালে ইন্ডিয়ান সিভিল সার্ভিস পরীক্ষায় জম্মু ও কাশ্মীর থেকে প্রথম ব্যক্তি হিসাবে তালিকার শীর্ষস্থান দখল করেছিলেন।