বাবুল সুপ্রিয়’র কাছে ক্ষমা চাইব না, বললেন অভিযুক্ত পড়ুয়া

কেন্দ্রীয়মন্ত্রী তথা বিজেপি নেতা বাবুল সুপ্রিয়কে চুল ধরে টানা এবং হেনস্থার অভিযোগ উঠছে এক পড়ুয়ার বিরুদ্ধে

বাবুল সুপ্রিয়’র কাছে ক্ষমা চাইব না, বললেন অভিযুক্ত পড়ুয়া

কেন্দ্রীয়মন্ত্রী তথা বিজেপি নেতা বাবুল সুপ্রিয়কে চুল ধরে টানা এবং হেনস্থার অভিযোগ উঠছে এক পড়ুয়ার বিরুদ্ধে

কলকাতা:

কেন্দ্রীয়মন্ত্রী তথা বিজেপি নেতা বাবুল সুপ্রিয়কে চুল ধরে টানা এবং হেনস্থার অভিযোগ উঠছে এক পড়ুয়ার বিরুদ্ধে। সোমবার তিনি জানিয়ে দিলেন, যেহেতু তিনি কাজটি ইচ্ছাকৃতভাবে করেননি, ফলে ক্ষমা চাওয়ার কোনও প্রশ্নই ওঠে না। সংস্কৃত কলেজের ছাত্র এবং ইউনাইটেড ডেমোক্র্যাটিক স্টুডেন্টস ফোরামের সদস্য দেবাঞ্জন বল্লভ সাংবাদিকদের বলেন, অসমে এআরসির ফলে বহু মানুষের ঘরছাড়া হওয়া নিয়ে বাবুল সুপ্রিয়ের সঙ্গে কথা বলতে গেলে, উল্টে তাঁকেই হেনস্থা করেন এবং হুমকি দেন কেন্দ্রীয়মন্ত্রী। অভিযুক্ত পড়ুয়ার অসুস্থ মাকে কেন্দ্রীয়মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় আশ্বাস দেন, তাঁর ছেলের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হবে না।   

এবিভিপির প্রতিবাদ মিছিল আটকাল পুলিশ, মিছিল ঘিরে ধুন্ধুমার

অভিযুক্ত পড়ুয়া, দেবাঞ্জন বল্লভ বলেন, “যখন আমি সামনে যাই, এবং মন্ত্রীকে প্রশ্ন করি, তাঁকে কালো পতাকা দেখানোয় পড়ুয়াদের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হচ্ছিল তাঁর, বাবুল সুপ্রিয় খুবই আক্রনণাত্মক হয়ে পড়েন এবং আমায় প্রশ্ন করেন, আমি এনআরসির পুরো অর্থ জানি কিনা। যখন তিনি ক্রমাগতই খারাপভাবে কথা বলছিলেন, আমি প্রতিবাদ করি এবং সেই ঝামেলার মধ্যেই তাঁর নিরাপত্তারক্ষীরা আমায় ধাক্কা দেন”।

ওই পড়ুয়ারা দাবি করেন, তাঁকে ঠেলতেই নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে যায় তাঁর এবং সেই সময় হয়তো নিজেকে সামলাতে গিয়ে মন্ত্রীর চুলে ঠেকে গিয়েছে। তিনি বলেন, “এটা অনিচ্ছাকৃত। যে ভিডিওয় আমায় কেন্দ্রীয়মন্ত্রী চুল ধরে টানতে দেখা গিয়েছে, সেটি বিজেপির আইটি সেল বিকৃত করে তৈরি করেছে। ভিডিওয় দেখা গিয়েছে, আমি যেন তাঁর দিকে এগিয়ে গিয়ে চুল ধরে টেনেছি”।

বাবুল সুপ্রিয়র বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করল ছাত্র সংগঠন

দেবাঞ্জন বল্লভ বলেন, “কেন্দ্রীয়মন্ত্রীর কাছে ক্ষমা চাওয়ার কোনও প্রশ্নই ওঠে না, যেহেতু আমি সেদিন কোনও ভুল কাজ করিনি”। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁর উপস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন করা হলে, তিনি দাবি করেন, সংগঠনের অনুষ্ঠান এবং “শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফ্যাসিবাদী শক্তির প্রবেশ রুখতে” পড়ুয়াদের বিক্ষোভে যোগ দিতে গিয়েছিলেন তিনি। তবে ছেলের “কৃতকর্ম”-র জন্য বাবুল সুপ্রিয়র কাছে তাঁর মা রুপালি বল্লভের ক্ষমা চাওয়া প্রসঙ্গে কোনও মন্তব্য করেননি তিনি।  সংগঠনের তরফে জানানো হয়েছে দেবাঞ্জন বল্লভের জন্য সবরকম আইনি সহায়তা করা হবে।

সেদিন বাবুল সুপ্রিয়র সঙ্গে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়েছিলেন বিজেপিনেত্রী অগ্নিমিত্রা পলও, দেবাঞ্জন বল্লভের দাবি খারিজ করে দেন তিনি। অগ্নিমিত্রা পল বলেন, “এটা পরিষ্কার যে, ভিডিওয়ে দেখা গিয়েছে তিনি বাবুলদাকে চুল ধরে টেনেছেন এবং তাঁকে হুমকি দিয়েছেন। এটা দুর্ভাগ্যজনক যে, একজন সন্তান, মায়ের কথা অমান্য করছে এবং ক্ষমা চাইছে না, এমনকী, ছেলেকে ক্ষমা করে দিতে বলেছেন তিনি এবং ছেলের ক্যারিয়ার নিয়ে চিন্তিত তাঁর মা”।

"প্রিয় কাকিমা...": যাদবপুরে হেনস্থা করা এক ছাত্রের মাকে কী বললেন বাবুল সুপ্রিয়?

 ফ্যাশন ডিজাইনার তথা বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পল পিটিআইকে বলেন, “এটা একজন ছাত্রের অশোভনীয় আচরণ”। তিনি বলেন, সোমবার কলকাতা পুলিশের সাইবার ক্রাইম সেলে অভিযোগ দায়ের করেছেন তিনি, সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর বিরুদ্ধে আপত্তিজনক পোস্ট করার অভিযোগ তুলে অপর ছাত্রের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেছেন অগ্নিমিত্রা পল। এছাড়াও তাঁকে অডিটরিয়ামের দিকে যেতে না দেওয়ার অভিযোগেও অজ্ঞাতপরিচয়ের বিরুদ্ধে যাদবপুর থানায় এফআইআর দায়ের করেছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

বিজেপি নেত্রী বলেন, কীভাবে তিনি যাদবপুরে হেনস্থার শিকার হয়েছিলেন, তা যেভাবে বর্ণনা করেছে, তা নিয়ে উপহাস করেছে পড়ুয়ারা। তিনি জানান, পড়ুয়াদের তরফে তাঁর শেয়ারের স্ক্রিনশট নিয়ে প্রশ্ন করা হয়েছে, তিনি ছেঁড়া শাড়ির ফ্যাশন শো করছেন কিনা। অগ্নিমিত্রা পলের কথায়, “আমি দেখতে পাই, পোস্টটি নিম্নরুচির এবং নারীবিরোধী এবং সোমবার লালবাজার সাইবার সেলে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে”।

যাদবপুরে বাবুলের নিগ্রহের প্রতিবাদে বিজেপির মিছিল শহরে

শনিবার দেবাঞ্জনের অসুস্থ মাকে ট্যুইট করেন বাবুল সুপ্রিয়, সেখানে তিনি জানান, তাঁর সন্তানের ক্যারিয়ারের কোনও ক্ষতি করবেন না তিনি। শুক্রবার কেন্দ্রীয়মন্ত্রীর কাছে, ছেলেকে ক্ষমা করে দেওয়ার আর্জি জানান দেবাঞ্জনের মা, পুলিশে দিলে, ছেলের ক্যারিয়ার ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলেও জানান তিনি।

কেন্দ্রীয়মন্ত্রী ট্যুইটে লেখেন, “মাননীয় কাকিমা, ভয় পাবেন না।আমি এমন কোনও পদক্ষেপ করব না, যাতে আপনার সন্তানের কোনও ক্ষতি হয়”। শনিবার ট্যুইটি করার পাশাপাশি তার সঙ্গে একটি খবরের কাগজের অংশও দেন তিনি। কেন্দ্রীয়মন্ত্রী ট্যুইটারে লেখেন, “আমি আশা করি, ভুল থেকে শিক্ষা নেবে সে। আমি কারও বিরুদ্ধে এফআইআর করিনি, বা কাউকে করতেও দিই নি। দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠুন”।   

ট্যুইটে একটি ভিডিওয়ে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে, কেন্দ্রীয়মন্ত্রীর চুল ধরে টানছে দেবাঞ্জন বল্লভ।

বৃহস্পতিবার বিক্ষোভরত পড়ুয়াদের আচরণ নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেন আসানসোলের বিজেপি সাংসদ এবং একে খুবই দুঃখজনক বলে মন্তব্য করেন।



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)
More News