দেশে অমিল করোনা সুরক্ষা কিট, এর মধ্যে সার্বিয়াকে চিকিৎসা সামগ্রী রফতানি ভারতের!

দেশে করোনা সংক্রমণ বাড়ছে, এই সময় বেশি করে প্রয়োজন চিকিৎসা ও সুরক্ষা সামগ্রী, কিন্তু তা উপেক্ষা করেই রফতানি, বিষয়টি নিয়ে মুখ খোলেনি স্বাস্থ্যমন্ত্রক

Coronavirus: দেশকে উপেক্ষা করে চিকিৎসা সামগ্রী সার্বিয়াকে রফতানির করার অভিযোগ উঠল

হাইলাইটস

  • দেশে করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে প্রয়োজনীয় সুরক্ষা সরঞ্জামের অভাব
  • তার মধ্যে নতুন অভিযোগ, প্রচুর চিকিৎসা সরঞ্জাম সার্বিয়াকে রফতানি করা হয়েছে
  • কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক এ সম্পর্কে কোনও মন্তব্য করতে অস্বীকার করেছে
নয়া দিল্লি:

চলতি লকডাউনের মধ্যেও ভারতে করোনা (Coronavirus) সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অভিযোগ আসছে যে এই ভয়াবহ রোগ (COVID-19) প্রতিকারে ব্যস্ত চিকিৎসকরা নাকি উপযুক্ত চিকিৎসা ও সুরক্ষা সামগ্রী পাচ্ছেন না। অনেক জায়গাতেই অমিল কোভিড-১৯ ভাইরাস রুখতে প্রয়োজনীয় বিশেষ N-95 মাস্কও। কিন্তু এরই মধ্যে যে খবর সামনে এলো তাতে অনেকেরই কপালে দুঃশ্চিন্তার ভাঁজ পড়তে পারে। জানা গেছে যে, নিজেদের দেশেই যেখানে চিকিৎসা ও স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্যে প্রয়োজনীয় সামগ্রী যথেষ্ট পরিমাণে মিলছে না, সেখানে বিপুল সামগ্রী রফতানি করা হচ্ছে ভিনদেশে। জানা গেছে, COVID-19 রোগীদের চিকিৎসায় ব্যবহার করা যায় এমন ৯০ টন চিকিৎসা সরঞ্জাম এবং সুরক্ষা কিট সার্বিয়াকে (Serbia) রফতানি করেছে ভারত। বিষয়টি ইউএনডিপির (United Nations Development Programme) সার্বিয়া শাখার একটি টুইটের মাধ্যমে ফাঁস হয়েছে। যদিও কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক বিষয়টি সম্পর্কে মুখ খোলেনি।

‘‘সীমিত সাধ্যের মধ্যে ৫ লক্ষ টাকা করে দান রাজ্য ও কেন্দ্রের তহবিলে'', টুইট মুখ্যমন্ত্রীর

"আজ ৯০ টন চিকিৎসা ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সরঞ্জাম সহ ২ য় কার্গো বিমান বোয়িং ৭৪৭ আজ ভারত থেকে বেলগ্রেডে অবতরণ করেছে। এই মূল্যবান সামগ্রীগুলো কিনেছে  @ সার্বিয়ানগভ, আর এটি সরবরাহের জন্যে পরিবহণের খরচ দিয়েছে # ইইউ, গোটা বিষয়টি ইউএনডিপিসার্বিয়া পরিচালনা করেছে এবং এটি যত দ্রুত সরবরাহ করা যায় সে ব্যাপারটির তত্ত্বাবধান করছে", ইউএনডিপি টুইটে মিলেছে এই তথ্য।

যে ৯০-টন জিনিস রফতানি করা হয়েছে তার মধ্যে ৫০ টন অস্ত্রোপচারের গ্লাভস রয়েছে। এ ছাড়াও অসংখ্য মাস্ক এবং অস্ত্রোপচারের সময় ব্যবহৃত বিশেষ পোশাকও রয়েছে, যা বর্তমানে আমাদের দেশের চিকিৎসা কর্মীদের জন্যেই মারাত্মকভাবে প্রয়োজন।

কোচি বিমানবন্দরের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, ২৯ মার্চ আরেকটি চালান পাঠানো হয়েছে, এতে ৩৫ লক্ষ জোড়া জীবাণুমুক্ত অস্ত্রোপচারের গ্লাভস রয়েছে।

এই রফতানির বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে যে তারা এই বিষয়টি সম্পর্কে কিছুই নাকি জানে না। "আমাদের সবচেয়ে প্রথমে চেষ্টা থাকবে ভারতে যাতে চিকিৎসা সামগ্রীর প্রয়োজনীয় রসদ তৈরি থাকে এবং তার জন্যে প্রয়োজনে আমরা বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলি থেকেও উপাদান সংগ্রহ করতে পারি। কিন্তু সার্বিয়ার প্রতি যথেষ্ট শ্রদ্ধা রেখেই বলছি আমি এখনও পর্যন্ত এই রফতানি সম্পর্কে জানি না", বলেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রকের যুগ্ম-সচিব লব আগরওয়াল।

লকডাউন উপেক্ষা করেই কলকাতার মিষ্টির দোকানগুলোতে উপচে পড়া ভিড়

অথচ আমাদের দেশে ঠিকভাবে সুরক্ষাকিট না পাওয়ায় করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা করতে গিয়ে চিকিৎসকরা নিজেরাই ওই মারাত্মক ভাইরাসের শিকার হচ্ছেন। এখনও পর্যন্ত যা খবর, যথেষ্ট স্বাস্থ্য সুরক্ষা ছাড়াই কাজ করার সময় করোনা ভাইরাস রোগীদের সংস্পর্শে আসায় দেশ জুড়ে প্রায় ১০০ জন চিকিৎসক করোনা সংক্রামিত হয়েছেন। গোটা দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এই রকম অসংখ্য অভিযোগ আসছে।

এরই মধ্যে সোমবার, কেন্দ্র বলেছে যে এই অভাব পূরণের জন্যে তারা দক্ষিণ কোরিয়া এবং চিন থেকে প্রচুর ব্যক্তিগত ব্যবহার যোগ্য সুরক্ষা সরঞ্জাম (পিপিই) আমদানি করার চেষ্টা চালাচ্ছে।