লাদাখ সীমান্তে ভারত-চিন সেনা সংঘর্ষের ঘটনায় মেজর জেনারেল স্তরে ফের আলোচনা

Galwan valley: পূর্ব লাদাখে ভারত ও চিনের মধ্যে থাকা প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বা এলএসি-র কাছেই সোমবার ওই সংঘর্ষ ঘটে যাতে নিহত হন ২০ ভারতীয় সেনা

লাদাখ সীমান্তে ভারত-চিন সেনা সংঘর্ষের ঘটনায় মেজর জেনারেল স্তরে ফের আলোচনা

India-China: সেনাবাহিনী প্রকৃত নিয়ন্ত্রণের রেখায় সেনা নিযুক্তির নিয়মেরও পরিবর্তন করতে চাইছে

হাইলাইটস

  • ভারত-চিন সীমান্ত সমস্যার সমাধানে দুই দেশের মধ্যে আলোচনা
  • বুধবারও দুই দেশের মেজর জেনারেল স্তরে আলোচনা হয়
  • সমাধান সূত্রে খোঁজে বৃহস্পতিবারও ফের আলোচনায় বসেছে দুই দেশ
নয়া দিল্লি:

ভারত-চিন মেজর জেনারেল স্তরে বুধবার বৈঠকের পরেও সমাধান সূত্র না মেলায় ফের বৃহস্পতিবার বৈঠকে দুই পক্ষ। লাদাখের (Ladakh) কাছে যে গালওয়ান উপত্যকায় (Galwan valley) সোমবার দু'দেশের সেনার মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে সেখানেই সামরিক স্তরের আলোচনার আয়োজন করা হয়। বেশ কিছুদিন ধরেই ভারত-চিন সীমান্তে উত্তেজনা চললেও সোমবার যেন সবকিছুকে অতিক্রম করে যায় পরিস্থিতি। ভারত ও চিনের সেনা জওয়ানদের মধ্যে সংঘর্ষে (India China Standoff) প্রাণ হারাতে হয় ১ কর্নেল সহ এদেশের মোট ২০ জন সেনাকর্মীকে। পাশাপাশি ভারতীয় সেনা সূত্রে খবর, চিনেরও ৪৫ জন সেনার মৃত্যু হয়েছে ওই সংঘর্ষ চলাকালীন। তবে যা জানা যাচ্ছে, এখনও গালওয়ান উপত্যকা থেকে পিছু হঠেনি চিনের সেনাবাহিনী। ওই উপত্যকাটি পূর্ব লাদাখে ভারত ও চিনের মধ্যে থাকা প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বা এলএসি-র কাছেই অবস্থিত।

বহুদিন ধরেই গালওয়ান উপত্যকাকে নিজেদের বলে দাবি করে আসছে চিন। সেই এলাকার আধিপত্য নিয়েই ১৫ জুন অর্থাৎ সোমবার রাতে পূর্ব লাদাখের ওই এলাকায় হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন ভারত ও চিনের সেনারা। ভারতীয় সেনাকে লক্ষ্য করে প্রথমে পাথর ছোড়ার অভিযোগ ওঠে চিনের বিরুদ্ধে। যা থেকে ঘটনা বড় আকার নেয়। এই ঘটনার জন্য চিনের আগ্রাসী মনোভাবকেই ভারতের তরফে দোষারোপ করা হয়েছে।

গালওয়ান উপত্যকা নিয়ে চিনের দাবি "অতিরঞ্জিত এবং অসমর্থনযোগ্য": ভারত

এদিকে ভারতের তরফ থেকে আরও একবার স্পষ্ট করে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, গালওয়ান উপত্যকা নিয়ে চিন যে দাবি করছে তা "অতিরঞ্জিত এবং অসমর্থনযোগ্য"। মোদি সরকার বলেছে, সীমান্ত সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে গত ৬ জুন যে বৈঠক হয়, তাতে ভারত ও চিনের সামরিক কর্তারা যে সমঝোতায় পৌঁছেছিল, চিনের এই দাবি পুরোপুরি তার বিরোধী। 

৪ জি পরিষেবার উন্নতিতে ব্যবহার করা যাবে না চিনা সরঞ্জাম, বিএসএনএল-কে নির্দেশ কেন্দ্রের

চিনা সেনারা "পূর্ব পরিকল্পিতভাবেই পদক্ষেপ" নিয়েই সোমবার গালওয়ান উপত্যকায় ওই সংঘর্ষের পরিস্থিতি তৈরি করে যার ফলে ২০ জন ভারতীয় সেনাকে নিজেদের প্রাণ বলিদান দিতে হয়েছে, বুধবার কেন্দ্রীয় বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর ফোন মারফত চিনের বিদেশমন্ত্রী ওয়াং ইয়িকে একথা বলেন।

পরে ভারতীয় বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব বলেন, "আমরা এর আগেও যেমন জানিয়েছি, সেই মতোই আমাদের বিদেশমন্ত্রী চিনের কাউন্সিলর এবং বিদেশমন্ত্রীর সঙ্গে লাদাখের সাম্প্রতিক ঘটনাবলির বিষয়ে ফোনে কথাবার্তা চালিয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে যে আরও দায়িত্বশীল পদক্ষেপ করা উচিত সেবিষয়ে সম্মত হয়েছে দুই দেশই এবং ৬ জুন সিনিয়র কমান্ডারদের মধ্যে যে সমঝোতা হয়েছিল তা প্রয়োগে সচেষ্ট হওয়া উচিত। অতিরঞ্জিত এবং অসমর্থনযোগ্য এই দাবি কোনওভাবেই মেনে নেওয়া যায় না"।

তবে অনেকেই বলছেন, এই অবস্থায় ভারত এবং চিনের মধ্যে যুদ্ধকালীন পরিস্থিতি (India China War) তৈরি হয়েছে। যদিও দুই দেশের বিদেশমন্ত্রকই জানিয়েছে যে, আলোচনার মাধ্যমেই শান্তিপূর্ণ সমাধানের পথ খুঁজতে চায় তাঁরা।