সংবিধানের ১৪২ ধারার বিশেষ ক্ষমতা বলেই অযোধ্যা মামলার রায় শীর্ষ আদালতের

Ayodhya Verdict: সংবিধানের ১৪২ ধারা সুপ্রিম কোর্টকে "প্রকৃত ন্যায়বিচারের জন্য" প্রয়োজনীয় কোনও আদেশ পাস করানোর ক্ষমতা দেয়

সংবিধানের ১৪২ ধারার বিশেষ ক্ষমতা বলেই অযোধ্যা মামলার রায় শীর্ষ আদালতের

Article 142: অযোধ্যা মামলার রায়দানের সময় ১৪২ ধারার সাহায্য নিয়েই মসজিদের জন্যে ৫ একর জমি বরাদ্দের ঘোষণা করে শীর্ষ আদালত

নয়া দিল্লি:

১৪২ ধারার বলেই শনিবার অযোধ্যা মামলায় (Ayodhya Verdict) যুগান্তকারী রায় দেয় সুপ্রিম কোর্ট। মোট দুবার সংবিধানের ১৪২ ধারার সাহায্য নিয়েছিল ৫ বিচারপতির সংবিধান বেঞ্চ। সমস্ত তথ্য প্রমাণ খতিয়ে দেখে শীর্ষ আদালত (Supreme Court) বিতর্কিত ২.৭৭ একর জমির পুরোটাই মন্দির তৈরির জন্যে বরাদ্দ করে। পাশাপাশি ভারতীয় সংবিধানের এই ১৪২ ধারার (Article 142) সাহায্যেই বিশেষ ক্ষমতা বলে মসজিদ তৈরির জন্যে ৫ একর জমি দেওয়ার বিধান দেয় সুপ্রিম কোর্ট। "মুসলিমদের ওই মসজিদটি ব্যবহার করতে দেওয়া হয়নি। সংবিধানের ১৪২ ধারার ক্ষমতা বলে এই আদালত অবশ্যই নিশ্চিত করবে যাতে সবাই সুবিচার পায়। আদালত যদি এই অধিকারকে অবহেলা করে তবে বিচারবিভাগ কখনোই জয়ী হবে না", বলে আদালত। যেসব মুসলিমরা মসজিদের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন তাদেরকে আইনের সাহায্যে সুবিচার দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আদালত।  আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় নিরপেক্ষ ভাবে এই পদক্ষেপ করতে হয়েছে যাতে মুসলিমরাও তাঁদের অধিকার থেকে বঞ্চিত না হন, বলে সুপ্রিম কোর্ট।

বিতর্কিত জমি দিতে হবে মন্দিরের জন্য, মসজিদের জন্য দেওয়া হবে ৫ একর জমি

নির্মোহী আখড়াকে মন্দির নির্মাণের জন্য অযোধ্যা আইনের ৬ নম্বর ধারার অধীনে কেন্দ্রের দ্বারা গঠিত ট্রাস্টের অন্তর্ভুক্ত হওয়ার কথাও বলা হয়।

"সংবিধানের ১৪২ ধারার অধীনে এই আদালত নির্দেশ দিচ্ছে যে কেন্দ্রীয় সরকার দ্বার গঠিত এই প্রকল্পে যদি সরকার উপযুক্ত মনে করে তবে নির্মোহী আখড়াকে ওই ট্রাস্টে যথাযথ প্রতিনিধিত্ব করার অধিকার দিতে পারে", বলে সুপ্রিম কোর্ট। যদিও আদালত এর আগে জমির ব্যাপারে নির্মোহী আখড়ার মামলা (পাঁচটি মামলার মধ্যে তৃতীয়টি) খারিজ করে দেয়। সংবিধানের ১৪২ ধারা সুপ্রিম কোর্টকে "প্রকৃত ন্যায়বিচারের জন্য" প্রয়োজনীয় কোনও আদেশ পাস করানোর ক্ষমতা দেয়।

অযোধ্যা মামলায় কেন মুসলিমদের আলাদা করে জমি দেওয়া হল? রায়ে কী বলা হয়েছে?

ওই ধারায় বলা হয়েছে: "সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ কার্যকর করার জন্যে সর্বোচ্চ আদালত নিজের এক্তিয়ার প্রয়োগ করে এমন ধরনের ডিক্রি পাস করতে পারে বা সম্পূর্ণ ন্যায়বিচার করার জন্য প্রয়োজনীয় আদেশ দিতে পারে; বা এর আগে মুলতুবি থাকা কোনও বিষয়ে ডিক্রি পাস করে তা ভারতের অঞ্চলজুড়ে কার্যকরভাবে প্রয়োগ করতে পারে। যেভাবে সংসদ কোনও আইন পাস না হওয়া পর্যন্ত রাষ্ট্রপতির আদেশ অনুসারে নির্দেশ দিতে পারে, ঠিক সেই পদ্ধতিতেই এখানেও কাজ হয়। "

সুতরাং এই ক্ষমতার বলে দেওয়া আদেশটি "ভারতের সমস্ত অঞ্চল জুড়ে প্রয়োগযোগ্য" হলেও এটি কখনোই নজির হয়ে উঠতে পারে না।

হাইলাইটস

  • রায় দেওয়ার সময় সুপ্রিম কোর্ট দুবার সংবিধানের ১৪২ ধারার সাহায্য নিয়েছে
  • কয়েক দশকের পুরনো এই মামলায় শনিবার ঐতিহাসিক রায় দেয় শীর্ষ আদালত
  • বিতর্কিত ২.৭৭ একর জমির পুরোটাই মন্দির নির্মাণের জন্যে বরাদ্দ করা হয়
More News