This Article is From Mar 02, 2019

বাদগম দুর্ঘটনায় নিহত বায়ুসেনা অফিসারের শেষকৃত্যে চোখের জল চেপে রাখলেন তাঁর স্ত্রী

পুলওয়ামার জঙ্গি হানার পর দু'দেশের মধ্যে ক্রমে বেড়ে ওঠা টেনশনের আবহেই মৃত্যু হয় সিদ্ধার্থ বশিষ্ঠের। ভারতীয় বায়ুসেনার পক্ষ থেকে তাঁকে গান স্যালুট দেওয়ার পর তাঁর মুখাগ্নি করেন তাঁর বাবা।

আরও সকলের সঙ্গে শেষকৃত্যে উপস্থিত ছিলেন আরতি সিংহ (বাঁদিক থেকে তৃতীয়)

চন্ডিগড়:

গোটা দেশ যখন পাকিস্তানের হেফাজতে থাকা ভারতীয় বায়ুসেনার উইং কম্যান্ডার অভিনন্দন বর্তমানের দেশে ফিরে আসার মুহূর্তটির জন্য অধীর আগ্রহে প্রহর গুনছিল, ঠিক সেই সময়ই জম্মু ও কাশ্মীরের বাদগম জেলায় ভারতীয় বায়ুসেনার আরেকটি ধ্বংস হয়ে যাওয়া এম আই-১৭ হেলিকপ্টারের স্কোয়াড্রন লিডার সিদ্ধার্থ বশিষ্ঠের শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়ে গেল সম্পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শুক্রবার দিন।ওই শেষকৃত্যে সংশ্লিষ্ট বায়ুসেনা অফিসারের পরিবার, আত্মীয় ও রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে চন্ডিগড়ে উপস্থিত ছিলেন তাঁর স্ত্রী, আরেকজন স্কোয়াড্রন লিডার, আরতি সিংহও। ওই বিষণ্ণ অন্ত্যোষ্টিক্রিয়ার ছবিই বুঝিয়ে দেয়, শেষকৃত্যের সময় যখন সকলে শেষবারের মতো সম্মান জানাচ্ছিলেন তাঁর স্বামীকে, সেই সময় আরতি সিংহ নিজেকে ধরে রেখেছিলেন কী কঠোরভাবে। 

পুলওয়ামার জঙ্গি হানার পর দু'দেশের মধ্যে ক্রমে বেড়ে ওঠা টেনশনের আবহেই মৃত্যু হয় সিদ্ধার্থ বশিষ্ঠের। ভারতীয় বায়ুসেনার পক্ষ থেকে তাঁকে গান স্যালুট দেওয়ার পর তাঁর মুখাগ্নি করেন তাঁর বাবা।

আরও পড়ুনঃ “ফিরে আসতে পেরে ভাল লাগছে”,বললেন পাইলট অভিনন্দন বর্তমান

ওই অতি দুর্ভাগ্যজনক ঘটনায় প্রাণ হারান ভারতীয় বায়ু সেনার ছ'জন অফিসারের সঙ্গে একজন সাধারণ মানুষও। সেনার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, দুর্ঘটনার সঙ্গে সঙ্গেই হেলিকপ্টারটি ভেঙে গিয়ে দু'ভাগ হয়ে যায়। যার ফলে আগুন লেগে যায় প্রায় সঙ্গে সঙ্গে।

সংবাদসংস্থা পিটিআই জানিয়েছে, ওই অফিসারের মৃতদেহটি চন্ডিগড়ের বায়ুসেনার স্টেশনে আনা হয় বায়ুসেনার একটি বিমানে করেই। তারপর ভারতীয় বায়ুসেনার গাড়িতে করে দেহটি নিয়ে যাওয়া হয় সেক্টর ৪৪-এর শ্মশানে।

৩১ বছর বয়সী স্কোয়াড্রন লিডার সিদ্ধার্থ বশিষ্ঠ তাঁর পরিবারের চতুর্থ প্রজন্ম, যিনি ভারতীয় সেনার অংশ ছিলেন। ২০১০ সালে ভারতীয় বায়ুসেনায় যোগ দেন তিনি। গত বছর কেরালার বন্যার সময় তাঁর অবদানের কথা স্মরণ করে তাঁকে ভারতীয় সেনার পক্ষ থেকে সম্মান জানানো হয় গত মাসেই।

প্রসঙ্গত, ওই দুর্ঘটনায় আরও যে যে বায়ুসেনার অফিসার মারা গিয়েছেন, তাঁরা হলেন- কর্পোরাল দীপক পান্ডে, স্কোয়াড্রন লিডার নিনাদ মান্দাভগানে, সার্জেন্ট বিক্রম শেরাওয়াত এবং ফ্লাইট ইঞ্জিনিয়ার বিশাল কুমার পান্ডে।