‘‘হিন্দু-মুসলিম ইস্যু’’ নিয়ে কথা বলে লাভ হবে না: অর্থনীতি প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী

তৃণমূ‌ল নেত্রী অভিযোগ জানান, দেশের শিল্পপতিরা ভীত— সিবিআই, আয়কর দফতর ও ইডির জন্য। তিনি বলেন, ‘‘অনেকেই দেশ ছেড়ে চলে গিয়েছেন এজন্য।’’

‘‘হিন্দু-মুসলিম ইস্যু’’ নিয়ে কথা বলে লাভ হবে না: অর্থনীতি প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করেন, রাজ্যপাল ‘‘রাজে সমান্তরাল প্রশাসন চালাচ্ছেন।’’ (ফাইল)

কলকাতা:

বিজেপির (BJP) নেতৃত্বাধীন এনডিএ সরকারকে আক্রমণ করলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (mamata Banerjee)। বৃহস্পতিবার তিনি জানালেন, ‘‘ডিভাইড অ্যান্ড রুল-এর রাজনীতি'' করে দেশের কোনও উপকার হবে না। বর্তমানে দেশ অর্থন‌ৈতিক মন্দার সম্মুখীন। কলকাতায় একটি অনুষ্ঠানে মমতা বলেন, ‘‘হিন্দু-মুসলিম ইস্যু'' (Hindu-Muslim Issues) নিয়ে কথা বলার পরিবর্তে এবার সময় এসেছে দেশের অর্থনৈতিক দুর্দশার মোকাবিলা করার। তিনি বলেন, ‘‘বেকারত্ব ও দারিদ্র আকাশ ছুঁয়েছে। এমন একটা সময়ে দাঁড়িয়ে আমি মনে করি না হিন্দু-মুসলিমের ইস্যু কোনও সদর্থর ফল দিতে পারে না।'' মুখ্যমন্ত্রী সকলকে আহ্বান জানান, শান্তি ও সমৃদ্ধির জন্য একসঙ্গে কাজ করতে।

তিনি বলেন, ‘‘কেউ জানে না আগামী কারল ব্যাঙ্কগুলির কী হবে। সমস্ত ক্ষেত্রেই অনিশ্চিয়তা কাজ করছে। এর আগে এমন হয়নি। আমাদের একসঙ্গে কাজ করতে হবে শান্তি, সমৃদ্ধি ও একতার জন্য। ধর্মীয় বিষয় নিয়ে থাকলে কাঙ্ক্ষিত ফল মিলবে না।''

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলে কড়া নিয়ম অনাবাসী ভারতীয়দের জন্য

তৃণমূ‌ল নেত্রী অভিযোগ জানান, দেশের শিল্পপতিরা ভীত— সিবিআই, আয়কর দফতর ও ইডির জন্য। তিনি বলেন, ‘‘অনেকেই দেশ ছেড়ে চলে গিয়েছেন এজন্য। রাহুল বাজাজের সাহস রয়েছে তাই তিনি মুখ খুলেছেন। কিন্তু আমি মনে করি তাঁকেই সেই থেকে স্ক্যানারের নজরাধীন রাখা হয়েছে।'' 

সম্প্রতি রাহুল বাজাজ জানিয়েছেন, ভারতীয় শিল্পপতিরা ভয় পাচ্ছেন কেন্দ্রের নীতির সমালোচনা করতে।

"দরজা বন্ধ কেন?" বিধানসভার অধিবেশন বন্ধ থাকা নিয়ে প্রশ্ন রাজ্যপাল ধনখড়ের

এদিন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের প্রতি অভিযোগ জানিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, রাজ্যপাল বিল ক্লিয়ার করতে দেরি করছেন। তিনি অভিযোগ করেন, রাজ্যপাল ‘‘রাজে সমান্তরাল প্রশাসন চালাচ্ছেন।''
 

More News