কলকাতা থেকে উদ্ধার কোটি টাকারও বেশি মূল্যের কয়েক কেজি হাতির ও বাঘের দাঁত!

মহিলার স্বামী পাচারের বিভিন্ন মামলার দাগী আসামী। তিনি একবার ৪৮ কেজি হাতির দাঁত এবং হাতির দাঁতের তৈরি মূর্তি পাচারের চেষ্টা করেছিলেন, যার সম্মিলিত মূল্য ছিল ৬ কোটি টাকা

কলকাতা থেকে উদ্ধার কোটি টাকারও বেশি মূল্যের কয়েক কেজি হাতির ও বাঘের দাঁত!

ওই মহিলা আসাম থেকে পশুর দেহাংশ পাচার করেছিলেন

কলকাতা:

খাস কলকাতায় এবার খোঁজ মিলল পশু চোরাচালানকারীদের একটি দলের। কোটি টাকা মূল্যের পশুর দেহাংশ কলকাতা থেকেই গোয়েন্দা আধিকারিকরা উদ্ধার করেছেন। প্রায় ১২ কেজি ওজনের হাতির দাঁত এবং বাঘের দাঁত আটক করেছেন কর্মকর্তারা। সব মিলিয়ে যার দাম ১ কোটি টাকারও বেশি! মঙ্গলবার এই ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছে। 

বাঘ বাঁচানোর বার্তা দিতে গিয়ে ভিনরাজ্যে 'ছেলেধরা'র তকমা পশ্চিমবঙ্গের দম্পতির!

রাজস্ব গোয়েন্দা অধিদফতরের (Directorate of Revenue Intelligence) একদল অফিসার এক মহিলাকে ৪ কেজি ওজনের হাতির দাঁত সমেত গ্রেপ্তার করেন। জিজ্ঞাসাবাদের পরে জানা যায়, ওই মহিলা আসাম থেকে পশুর দেহাংশ পাচার করেছিলেন এবং এই চোরাচালানের মূল পরিকল্পনাকারী হলেন তাঁর স্বামী। স্বামীর হাতেই ওই দাঁত তুলে দেওয়ার কথা ছিল মহিলার।

সংস্থাটির এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “ডিআরআই আধিকারিকরা হাতির এবং বাঘের দাঁত পাচারের সঙ্গে জড়িত একটি সিন্ডিকেটকে ধরে ফেলেছে। প্রায় ১২ কেজি হাতির দাঁত এবং বাঘের পাঁচটি দাঁত মিলিয়ে মোট ১.১৪৭ কোটি টাকার সামগ্রী উদ্ধার করা হয়েছে। পাচারের ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তারও করা হয়েছে।” 

ফের হলুদ-ডোরাকাটা আতঙ্ক, সুন্দরবনে বাঘে টেনে নিয়ে গেল কাঁকড়া ধরতে আসা ব্যক্তিকে

বিভাগীয় কর্মকর্তারা বলছেন, ওই মহিলার স্বামী পাচারের বিভিন্ন মামলার দাগী আসামী। তিনি একবার ৪৮ কেজি হাতির দাঁত এবং হাতির দাঁতের তৈরি মূর্তি পাচারের চেষ্টা করেছিলেন, যার সম্মিলিত মূল্য ছিল ৬ কোটি টাকা।

এই ব্যক্তি হাতির দাঁত, হাতির দাঁতের তৈরি নানান সামগ্রী এবং বাঘের দাঁত এবং অন্যান্য প্রাণির অংশ ভারতের বাইরে বাংলাদেশ, নেপাল এবং মায়ানমারের মতো বিভিন্ন দেশে পাচারের কাজ করে চলেছেন দীর্ঘদিন ধরেই।



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)