“দিদি কে বলো” প্রচারের তৃতীয় পর্ব শুরু করল তৃণমূল কংগ্রেস

Didi ke Bolo: দ্বিতীয় দফায়, তৃণমূলের যুব নেতারা রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে জনসংযোগ করেছেন বলে সূত্র মারফৎ জানা গিয়েছে

“দিদি কে বলো” প্রচারের তৃতীয় পর্ব শুরু করল তৃণমূল কংগ্রেস

২৯ জুলাই দিদি বলো নামে হেল্পলাইন চালু করেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

কলকাতা:

সাধারণ মানুষের থেকে অভাব অভিযোগ শুনতে “দিদি কে বলো” (Didi ke bolo) কর্মসূচী চালু করেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো (Trinamool Congress) তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) । দু দফায় “দিদি কে বলো” কর্মসূচী ভাল সাড়া মিলেছে, এবার “দিদি কে বলো” কর্মসূচীর তৃতীয় পর্বের প্রচার শুরু করল জোড়াফুল শিবির। বুধবার তৃতীয় পর্যায়ের প্রচার পর্ব শুরু করবে রাজ্যের শাসকদল। দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানান, এই নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব, উপস্থিত ছিলেন ব্লক ও শহরের সভাপতিরা,  তাদের মঙ্গলবারের বিষয়টি নিয়ে জানান তিনি। ৬০০ এর বেশী ব্লক এবং শহরের সভাপতিকে রাজ্যের ২০০০ এর বেশী গ্রামে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তৃণমূলের মহাসচিব। 

মাঝবয়সী মহিলাকে হেনস্থা পুজো কমিটির! সটান ‘দিদিকে বলো'য় ফোন অভিযোগকারিনীর

সাংবাদিকদের পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, “আগামী কাল থেকে দিদি বলে সম্পর্কে সাধারণ মানুষকে বোঝাবেন শহর এবং ব্লকের সভাপতিরা। স্থানীয়দের বাড়িতে রাত কাটাবেন নেতারা এবং সাধারণ মানুষের অভাব অভিযোগ শোনার পাশাপাশি তাঁদের থেকে বিভিন্ন প্রস্তাব নেবেন”। তৃণমূল সূত্রের খবর, আগে থেকে নির্ধারিত গ্রাম অথবা শহরের এলাকায় যাবেন নেতারা, আগে থেকেই তাঁদের তালিকা দেওয়া হয়েছে দলীয় নেতৃত্বের তরফে।

রাজ্যের শাসকদলের এক নেতা বলেন, “আগে থেকে চিহ্নিত করা সমর্থকদের বাড়িতে যাব আমরা, স্থানীয় সমস্যাগুলি নিয়ে তাঁদের প্রস্তাব শুনব আমরা”। দলীয় সূত্রের খবর, দলের কর্মীর বাড়িতে নৈশভোজের আসরে বুথস্তর ও স্থানীয় নেতাদের সঙ্গে কথা বলবেন নেতারা এবং দলী. কর্মী, সমর্থকের বাড়িতে রাত কাটাবেন তাঁরা।

Didi ke Bolo: প্রথম মাসে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে "দিদিকে বলো"

২৯ জুলাই দিদি বলো নামে হেল্পলাইন চালু করেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলের পর, ভোট কৌশলী প্রশান্ত কিশোরকে নিয়োগ করে তৃণমূল কংগ্রেস।  তার পরামর্শেই, জনসংযোগের জন্য দিদি কে বলো হেল্পলাইন চালু করে জোড়াফুল শিবির।

দলীয় সূত্রের খবর, প্রথম মাসেই ব্যপক সাড়া ফেলেছে এই হেল্পলাইন, ১০ লক্ষের বেশী মানুষ তাঁদের অভাব অভিযোগের কথা জানিয়েছেন, বলে দলীয় সূত্রের খবর।

দিদি কে বলো কর্মসূচীর প্রথম পর্যায়ে তৃণমূলের প্রায় ৫০০ জন নেতা এবং বিধায়ক রাজ্যের ১,০২২টি গ্রামে গিয়েছেন।

Didi Ke Bolo: অস্বস্তিকর প্রশ্নের মুখে পড়তে হচ্ছে তৃণমূল নেতাদের

গ্রামে গ্রামে গিয়ে জনসংযোগ সভা করেছেন দলের নেতারা, গ্রামের মূল সমর্থকদের বাড়িতেও গিয়েছেন তৃণমূল নেতারা, স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে তাঁদের থেকে প্রস্তাব গ্রহণ করা এবং দলেরই এক কর্মীর বাড়িতে তাঁরা রাত কাটিয়েছেন বলে সূত্রের খবর।

আজকের গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি দেখতে ক্লিক করুন: 

দ্বিতীয় দফায়, তৃণমূলের যুব নেতারা রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে জনসংযোগ করেছেন বলে সূত্র মারফৎ জানা গিয়েছে।



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)
More News