This Article is From Feb 10, 2020

পুলিশের চোখের সামনেই কলেজ পড়ুয়াদের শ্লীলতাহানির অভিযোগ!

Gargi College: দিল্লির ওই কলেজ-ছাত্রীদের অভিযোগ বার্ষিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান চলাকালীন মদ্যপ অবস্থায় বহিরাগতরা কলেজে প্রবেশ করে হেনস্থা করে তাঁদের

Sexual Assault: কলেজ চত্বরেই বহিরাগতদের হাতে শারীরিক হেনস্থার শিকার হতে হল গার্গী কলেজের ছাত্রীদের

হাইলাইটস

  • দিল্লির গার্গী কলেজের ভিতরে ঢুকে ছাত্রীদের শ্লীলতাহানি করল বহিরাগতরা
  • পুলিশের চোখের সামনেই ওই ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ উঠেছে
  • কয়েকজন ছাত্রী কলেজের মাঠের মধ্যেই অজ্ঞান হয়ে পড়ে যান বলেও জানা গেছে
নয়া দিল্লি:

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যেই বহিরাগতরা ঢুকে তাঁদের শ্লীলতাহানি করেছে, এমনই বিস্ফোরক অভিযোগ করলেন দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের (Delhi University) অধীনস্থ দক্ষিণ দিল্লির অল গার্লস গার্গী কলেজের ছাত্রীরা। তাঁদের অভিযোগ, গত ৬ ফেব্রুয়ারি কলেজের বার্ষিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান চলাকালীন মদ্যপ অবস্থায় বহিরাগতরা সেখানে প্রবেশ করে যৌন হেনস্থা (Sexual Assault) করে তাঁদের, সেই সময় কলেজে (Gargi College) পুলিশ কর্মী মোতায়েন থাকলেও তাঁদের নাকের ডগাতেই ওই ঘটনা ঘটে। অথচ পুলিশের তরফ থেকে ওই ঘটনা রুখতে কোনও তৎপরতা দেখানো হয়নি বলেও অভিযোগ কলেজ ছাত্রীদের। এই ঘটনা ঘিরে এখন সরগরম সোশ্যাল মিডিয়া। গার্গী কলেজের পড়ুয়া এবং অধ্যাপকরাও এই ঘটনার নিন্দায় সরব হয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী এবং গার্গী কলেজের ছাত্রী এবং শিক্ষকদের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে পোস্ট করা বেশ কয়েকটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে যে বৃহস্পতিবার সন্ধে সাড়ে ৬ টায় কলেজের ফেস্ট চলাকালীন কয়েকজন বহিরাগত মদ্যপ অবস্থায় দক্ষিণ দিল্লির কলেজের গেটের কাছে জড়ো হয় এবং একরকম জোর করেই কলেজে প্রবেশ করে। পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে ওই কলেজেরই এক পড়ুয়া ফোনে NDTV-কে বলেন, "ওঁরা কলেজের কেউ ছিল না। ওঁদের বয়স ৩০-৩৫ বছরের মধ্যে। বহিরাগতদের মধ্যে অর্ধেক মাতাল ছিল। আমাদের কাছে এই ভিজ্যুয়ালও রয়েছে যে ওঁরা ক্যাম্পাসের ভিতরে ঢুকে সিগারেট খাচ্ছে"।

ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী চিন্ময়ানন্দের জামিন

ওই পড়ুয়ারা আরও বলেন যে, ওই বহিরাগতরা কলেজে ঢুকে কয়েকজন ছাত্রীর পিছনে ধাওয়া করে এবং পুরো ক্যাম্পাসে তাঁদের বিরক্ত করে। "আমি এমনও দেখেছি যে প্রথম বর্ষের কয়েকজন ছাত্রী ভয়ে মাঠের মধ্যেই অজ্ঞান হয়ে পড়ে গেছেন এবং সেই সময় রীতিমতো জীবন নিয়ে টানাটানি পরিস্থিতি হয়ে গেছিল।"

"কলেজ কর্তৃপক্ষ এই ঘটনাকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্যে কিছুই করেনি। পাশাপাশি সেই সময় সেখানে র‌্যাফ থাকলেও (র‌্যাপিড অ্যাকশন ফোর্স) সেই কর্মীরা ক্যাম্পাসের ঠিক সামনেই দাঁড়িয়ে ছিল। ওঁরাও কিছু করেননি। আমাদের কাছে গোটা ঘটনার ভিজ্যুয়াল রয়েছে।"

Sexual Assault: খাটে বাঁধা অবস্থায় মহিলার পোড়া দেহ উদ্ধার, মিলল বেশ কিছু কার্তুজও

ওই পড়ুয়া আরও জানান, "সেই সময় কলেজে ভিড় এতটাই বেশি ছিল যে আমরা চাইলেও সেখান থেকে বাইরে যেতে পারিনি। আমাকে ৩ বার হেনস্থা করার চেষ্টা করা হয় এবং আমি একসময় প্রায় ৪০ মিনিট ওই ঝামেলার মধ্যে আটকে পড়েছিলাম। আমি যখন কোনও রকমে ভিড় থেকে বেরিয়ে একটি খালি জায়গায় যাই, সেই সময় একজন লোক আমার দিকে এগিয়ে আসে এবং হস্তমৈথুন করতে শুরু করে। আমি সেখান থেকে দৌড়ে পালিয়ে যাই, তখনই প্রথম বর্ষের আরেক ছাত্রী ছুটে এসে আমার কাছে জানায় যে তাঁকেও ৫-৬ জন ঘিরে ধরেছিল"।

এই ঘটনার প্রতিবাদে জোরদার বিক্ষোভের পথে হাঁটতে পারেন কলেজের পড়ুয়া এবং অধ্যাপকরাও। পুলিশি নিষ্ক্রিয়তার বিরুদ্ধেও সরব হবেন তাঁরা। এদিকে পুলিশ সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে জানিয়েছে যে এই ঘটনা নিয়ে এখনও পর্যন্ত কলেজের কোনও পড়ুয়া বা কর্তৃপক্ষে তাঁদের কাছে কোনও অভিযোগ জানায়নি।