আমফান বিধ্বস্ত এলাকায় ত্রাণ বিতরণে দুর্নীতি করছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার, অভিযোগ বিজেপির

এমনকী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার রাজ্য বিজেপির পক্ষ থেকে দুর্গত মানুষজনকে ত্রাণ সাহায্য করার ক্ষেত্রেও প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে, অভিযোগ দিলীপ ঘোষের

আমফান বিধ্বস্ত এলাকায় ত্রাণ বিতরণে দুর্নীতি করছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার, অভিযোগ বিজেপির

Cyclone Amphan: পশ্চিমবঙ্গে ব্যাপক পরিমাণে ক্ষয়ক্ষতি হলেও মিলছে না ত্রাণ, অভিযোগ দিলীপ ঘোষের (ফাইল চিত্র)

হাইলাইটস

  • রাজ্যে ত্রাণ বিতরণে দুর্নীতি করছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার, অভিযোগ দিলীপ ঘোষের
  • আমফান বিধ্বস্ত এলাকার মানুষজন ঠিকমতো সাহায্য পাচ্ছেন না, বললেন তিনি
  • বিজেপিকেও সাহায্য করা থেকে আটকানো হচ্ছে বলেও অভিযোগ তাঁর
কলকাতা:

কিছুদিন আগে বিধ্বংসী ঘূর্ণিঝড় আমফানের (Cyclone Amphan) প্রকোপে পশ্চিমবঙ্গের (West Bengal) অবস্থা একেবারে তছনছ হয়ে গেছে। রাজ্যের দুর্দশাগ্রস্ত এলাকার মানুষজনের যখন বাঁচার জন্যে আরও বেশি করে ত্রাণের প্রয়োজন ঠিক সেই সময়েই ত্রাণ সাহায্য নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ তুলল রাজ্য বিজেপি (BJP)। সরকারি ত্রাণ বিতরণে দুর্নীতি করছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার, ফের এমন অভিযোগ করলেন পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি (Dilip Ghosh) ক্ষুব্ধ স্বরে বলেন, "যারা অভাবী নন তাঁদের মধ্যে প্রয়োজনীয় সরবরাহ বিতরণ করা হচ্ছে। ওই ঘূর্ণিঝড়ে যাঁরা প্রকৃতঅর্থেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন সেই সব মানুষেরাই সরকারি ত্রাণ সাহায্য ও পুনর্বাসন সহায়তা পাচ্ছেন না"। দিলীপ ঘোষ বলেন, রাজ্য বিজেপির পক্ষ থেকে ইতিমধ্যেই সেই দুর্গত মানুষজনের একটি তালিকা তৈরি করা হয়েছে। আমফানের ফলে যাঁদের ঘরবাড়ি ভেঙ্গে গেছে, যাঁরা নিঃস্ব হয়ে গেছেন তাঁদের সাহায্য করতে চাইলেও শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে ঘূর্ণিঝড়-বিধ্বস্ত এলাকাগুলোতে যেতে বাধা দেওয়া হচ্ছে গেরুয়া শিবিরের নেতাদের।

মহারাষ্ট্র উপকূলে প্রবল বেগে আছড়ে পড়ল ঘূর্ণিঝড় "নিসর্গ"

এমনকী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার রাজ্য বিজেপির পক্ষ থেকে দুর্গত মানুষজনকে ত্রাণ সাহায্য করার ক্ষেত্রেও প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে বলেও অভিযোগ করেন দিলীপ ঘোষ।

বিজেপির রাজ্য সভাপতি পরিষ্কার বলেন, "অথচ তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীরা ত্রাণ সামগ্রী বিতরণকে ঘিরে একে অপরের বিরুদ্ধে লড়াই এবং গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে মেতেছেন"।

রাজ্যেও করোনার দাপাদাপি, একদিনের মধ্যেই নতুন করে আক্রান্ত আরও ৩৯৬ জন, মৃত ১০

পাশাপাশি রাজ্যের করোনা (Coronavirus) পরিস্থিতি নিয়েও মুখ খোলেন দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, যেসব পরিযায়ী শ্রমিকরা অন্য রাজ্য থেকে বাংলায় ফিরছেন, কোভিড সতর্কতায় তাঁদের প্রাথমিকভাবে কোয়ারান্টাইন করে রাখার কথা থাকলেও তা মেনে চলা হচ্ছে না সরকারের তরফে। আর যে সমস্ত পরিযায়ী শ্রমিকরা ইতিমধ্যেই করোনা পজিটিভ হিসাবে ধরা পড়েছেন তাঁদেরও যথাযথ চিকিৎসা হচ্ছে না বলেও অভিযোগ করেন পোড়া খাওয়া ওই গেরুয়া নেতা।



(এনডিটিভি এই খবর সম্পাদনা করেনি, এটি সিন্ডিকেট ফিড থেকে সরাসরি প্রকাশ করা হয়েছে।)