১৫ অক্টোবর পর্যন্ত দেশের রেস্তোঁরা-হোটেল বন্ধ থাকবে? জেনে নিন বিস্তারিত

Coronavirus: এখন হোটেল-রেস্তোঁরাগুলোকে বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে, শুধু লকডাউনের কারণে আটকে থাকা মানুষদের খাবার জোগানোর জন্যে ক্যাটারিং ব্যবস্থা চালু থাকবে

১৫ অক্টোবর পর্যন্ত দেশের রেস্তোঁরা-হোটেল বন্ধ থাকবে? জেনে নিন বিস্তারিত

Covid-19: লকডাউনের জেরে দেশের সব হোটেল-রেস্তোরাঁ বন্ধ রাখা হয়েছে (প্রতীকী ছবি)

হাইলাইটস

  • করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে দেশে লকডাউন চলছে
  • টানা ২১ দিনের লকডাউন করার ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী মোদি
  • লকডাউনের জেরে বন্ধ রয়েছে দেশের সমস্ত হোটেল-রেস্তোরাঁ
নয়া দিল্লি:

১৫ অক্টোবর পর্যন্ত দেশের সমস্ত হোটেল-রেস্তোরাঁগুলো (Restaursnts) বন্ধ থাকবে, বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘুরে বেড়ানো এই খবর নিশ্চয়ই চোখ এড়ায়নি আপনার? খাদ্যরসিক আপনি কি মাথায় হাত দিয়ে বসে পড়েছেন এই খবরে? তাহলে আপনাকে জানিয়ে দিই, সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া এই খবর পুরোটাই গুজব। এর বিন্দুমাত্রও সত্যতা নেই, সাফ জানিয়ে দিয়েছে প্রসার ভারতী। করোনা ভাইরাসের (Coronavirus) মহামারীর মধ্যে আজকাল এমনই একটি খবর ঘুরে বেড়াচ্ছিল যে পর্যটন মন্ত্রক ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত দেশের সমস্ত রেস্তোঁরা ও হোটেলগুলো (Hotels) নাকি বন্ধ রাখতে বলেছে, কিন্তু এটা একেবারেই সত্য নয়। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে দেশে টানা ২১ দিনের লকডাউন (Lockdown) চলছে। ১৪ এপ্রিল এই লকডাউনের মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও পরিস্থিতি যা দাঁড়িয়েছে তাতে প্রধানমন্ত্রী এই ইঙ্গিত দিয়েছেন যে এই লকডাউনের দিন আরও বৃদ্ধি করা হবে।

এই লকডাউনের সময় দেশের সমস্ত হোটেল ও রেস্তোরাঁগুলো বন্ধ করে রাখতে বলা হয়েছে। কেবলমাত্র লকডাউনের কারণে আটকে থাকা মানুষদের খাবার জোগানোর জন্যে ক্যাটারিং ব্যবস্থা চালু থাকবে বলে জানিয়েছে প্রশাসন। ইতিমধ্যেই সরকার জানিয়েছে যে অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের পাশাপাশি অন্যান্য ধরণের খাদ্য সরবরাহব্যবস্থা চালু থাকবে। 

করোনার ছোবলে মৃত ১৬৬, গত ২৪ ঘণ্টায় ১৭ জনের মৃত্যু, মোট আক্রান্ত ৫,৭৩৪

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ১৭ জনের প্রাণ কাড়ল করোনা ভাইরাস। এই নিয়ে সব মিলিয়ে এদেশে মোট ১৬৬ জনের মৃত্যু হল ওই রোগে। প্রতিদিনই হু-হু করে বাড়ছে মারণ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের হিসাব অনুযায়ী, ভারতে মোট করোনা আক্রান্ত ৫,৭৩৪ জন।

মার্কিন মুলুকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন ১১ জন ভারতীয়, আক্রান্ত আরও ১৬

দেশে এই লকডাউন চলার ফলে রেস্তোঁরা / হোটেল মালিকরা আশঙ্কা করছেন যে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ কমার পরেও তাঁদের ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। কেননা সেই সময়ও বেশ কিছুদিন সামাজিক দূরত্ব এড়াতে লোকজন ভিড়ভাট্টা এড়িয়ে থাকবেন বলে মনে করা হচ্ছে।