This Article is From Dec 21, 2018

কংগ্রেসের সঙ্গে যুক্ত ন্যাশনাল হেরাল্ড সংবাদপত্রের দিল্লি অফিস খালি করার নির্দেশ দিল আদালত

কংগ্রেসের সঙ্গে যুক্ত ন্যাশনাল হেরাল্ড সংবাদপত্রের দিল্লি অফিস খালি করার নির্দেশ দিল আদালত

কংগ্রেসের সঙ্গে যুক্ত ন্যাশনাল হেরাল্ড সংবাদপত্রের  দিল্লি অফিস খালি করার নির্দেশ দিল আদালত

কংগ্রেসের সঙ্গে যুক্ত ন্যাশনাল হেরাল্ড সংবাদপত্রের দিল্লি অফিস খালি করার নির্দেশ দিল আদালত

হাইলাইটস

  • ন্যাশনাল হেরাল্ড খবরের কাগজের দিল্লি অফিস খালি করার নির্দেশ
  • এই সংবাদপত্রের মালিক অ্যাসোসিয়েটেড জার্নাল নামে একটি সংস্থা
  • দিল্লি হাইকোর্টের স্পষ্ট নির্দেশ আফিস ঘর ছেড়ে দিতে হবে
নিউ দিল্লি:

 কংগ্রেসের সঙ্গে যুক্ত ন্যাশনাল হেরাল্ড সংবাদপত্রের  দিল্লি অফিস খালি করার নির্দেশ দিল আদালত। এই সংবাদপত্রের মালিক  অ্যাসোসিয়েটেড জার্নাল নামে একটি সংস্থা। তাদেরই ওই  অফিস ছেড়ে  দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে  দিল্লি হাইকোর্ট। এ বছরের ৩০ অক্টোবর  সরকার একটি  বিজ্ঞপ্তি জারি করে  ৫৬ বছরের পুরনো লাইসেন্স  খারিজ করে দেয়। তার  বিরুদ্ধেই আদালতে মামলা করে মালিক সংস্থা। কিন্তু দিল্লি হাইকোর্টের স্পষ্ট নির্দেশ আফিস ঘর ছেড়ে  দিতে হবে।  


সোহরাবুদ্দিন মামলায় সকল অভিযুক্তকে মুক্তি দেওয়া হল, ১০টি তথ্য

অফিস ঘর খালি করার  নির্দেশের সঙ্গে সঙ্গে  ন্যাশনাল হেরাল্ড মামলা নতুন মোড় নিল। দীর্ঘ দিন  ধরেই এই সংবাদপত্রকে  সামনে  রেখে কংগ্রেস এবং গান্ধি পরিবারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ করে বিজেপি। বিজেপি নেতারা  এ প্রসঙে  কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধি এবং তাঁর মা ইউপিএ চেয়ারপার্সন সোনিয়া গান্ধিকে কাঠগড়ায় তোলেন। দেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুর হাত ধরে  এই পত্রিকার পথ  চলা শুরু হয়।  তবে  এই  পত্রিকা প্রকাশের সময় নেহরু প্রধানমন্ত্রী হননি।                                      

২০০৮ সালে  ঋণের বোঝায় ন্যুব্জ হয়ে পত্রিকা বন্ধ করে  দেয় মালিক সংস্থা। বিজেপির অভিযোগ সংস্থার নামে অনেক সম্পত্তি থাকলেও নিজেদের পার্টি ফান্ডের টাকায় সেই ঋণ  মিটিয়েছে কংগ্রেস। গত ১২ নভেম্বর ন্যাশনাল হেরাল্ডের তরফে একটি  টুইটে দাবি করেয়া হয় অনলাইনে উপস্থিতি চোখে  পড়ার মতো বলে মোদী  সরকার তাদের নিশানা করছে। সেই ২০১২ সালে  বিজেপি নেতা  সুব্রহ্মণম স্বামী সোনিয়া  এবং রাহুলের নামে  অভিযোগ দায়ের করে।