বিরোধীদের কাঠগড়ায় রাজ্যের অডিট প্যানেলের করোনা মৃত্যুর পরিসংখ্যান

Coronavirus: পশ্চিমবঙ্গে করোনার কারণে মৃত্যুর বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করে চূড়ান্ত রিপোর্ট দেওয়া অডিট প্যানেল মৃত রোগীদের দুই ভাগে বিভক্ত করে রিপোর্ট দিচ্ছে

বিরোধীদের কাঠগড়ায় রাজ্যের অডিট প্যানেলের করোনা মৃত্যুর পরিসংখ্যান

COVID- 19 Deaths: রাজ্যে করোনা ভাইরাসের জের মৃতের সংখ্যা নিয়ে ক্রমেই বিতর্ক বাড়ছে

হাইলাইটস

  • রাজ্যের করোনা পরিস্থিতির সঠিক চিত্র প্রকাশ্যে আনছে না সরকার, উঠছে অভিযোগ
  • বিরোধীদের দাবি, রাজ্য সরকারের অডিট প্যানেল প্রকৃত তথ্য গোপন করছে
  • করোনা মৃত্যুর পরিসংখ্যান দেওয়া অডিট প্যানেলের বিরুদ্ধে আদালতে গেল বিজেপি
কলকাতা:

রাজ্যে ঠিক কতজন করোনা ভাইরাসে (Coronavirus) আক্রান্ত হয়ে মারা (COVID- 19 Deaths) যাচ্ছেন তা নিয়ে নাকি সঠিক পরিসংখ্যান (Coronavirus Cases in Bengal) প্রকাশ্যে আনছে না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার, বারবার এমনই অভিযোগ করছে পশ্চিমবঙ্গের বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো। একটি সূত্র জানিয়েছে, পশ্চিমবঙ্গ (West Bengal) সরকারের গড়া বিশেষ ডেথ অডিট কমিটির স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিরোধীরা। এর ফলে ঘরে-বাইরে চাপের মুখে পড়ে আপাতত ওই ডেথ অডিট কমিটিকে তাদের পরিসংখ্যান নিয়ে ফের বিবেচনা করার নির্দেশ দিয়েছে রাজ্য সরকার। অভিযোগ উঠছে এটাই যে রাজ্যের গড়া ওই কমিটি করোনা রোগীদের মৃত্যুর বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করে চূড়ান্ত রিপোর্ট দেওয়ার সময় মৃত রোগীদের দুই ভাগে বিভক্ত করছে। একটি ভাগ হল যাঁদের করোনা সংক্রমণের কারণে মৃত্যু হয়েছে। আর অন্য ভাগটি হল, যাঁরা করোনায় আক্রান্ত হলেও তাঁদের দেহে অন্য জটিল রোগ থাকায় পরিস্থিতি গুরুতর হয়ে মৃত্যু হয়েছে। দ্বিতীয় ভাগের মৃতদের সরাসরি করোনার জেরে মৃত হিসাবে দেখানো হচ্ছে না।

দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁঁছলো ৩৭,৩৩৬ জনে, ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ২,২৯৩ জন

রাজ্যের অডিট প্যানেলের সর্বশেষ রিপোর্টে বলা হয়েছে যে রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর মোট মৃত ১০৫ জনের মধ্যে মাত্র ৩৩ জন করোনার কারণে মারা গেছেন। বাকি ৭২ জন রোগী কোভিড-১৯ আক্রান্ত হলেও মারা গেছেন নাকি কোমোর্বিডিটির কারণে। বিরোধীদের দাবি, আসলে রাজ্যে করোনার জেরে মৃতদের আসল পরিসংখ্যানকে আড়াল করতেই রাজ্য সরকার ওই প্যানেলটি তৈরি করেছে।

দেশের শীর্ষ চিকিৎসা সংস্থা ইন্ডিয়ান মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিল বা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দেওয়া নির্দেশ অনুযায়ী ওই কমিটি গঠন করা হয়েছিল কিনা সে সম্পর্কে বিরোধী দলগুলি প্রশ্ন করলে রাজ্য সরকার এবিষয়ে কোনও স্পষ্ট জবাব দেয়নি।

বৃহস্পতিবার, বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ এই অডিট কমিটির বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে কলকাতা হাইকোর্টে একটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেন। তিনি দাবি করেন, রাজ্যের ওই অডিট প্যানেলটি বাতিল করতে হবে। এর আগে আইএমসিটি বা কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে যে কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক দল কলকাতায় পাঠানো হয়েছিল তাঁরাও মুখ্য সচিবের কাছ থেকে ওই অডিট কমিটির সম্পর্কে বিশদে জানতে চায়। আইসিএমআরের নির্দেশনা অনুযায়ী ওই কমিটি গঠন করা হয়েছিল কিনা সেবিষয়ে প্রশ্ন তোলে কেন্দ্রীয় দলটি।

"করোনা পরিস্থিতি নিয়ে রাজনীতি করবেন না", মুখ্যমন্ত্রীকে ফের বিঁধলেন রাজ্যপাল

এই অডিট প্যানেল নিয়ে চূড়ান্ত বিতর্ক তৈরি হলে বিষয়টি নিয়ে পুনর্বিবেচনার ইঙ্গিত দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন এই প্যানেল থেকে নিজেকে পুরোপুরি দূরে সরিয়ে রেখেছেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী একথাও জানান যে ওই কমিটিটি আসলে তাঁর আমলারা গঠন করেছিলেন এবং কমিটির সদস্য কারা রয়েছেন সেবিষয়ে নাকি তাঁর কোনও ধারণাই নেই।

বৃহস্পতিবার মুখ্য সচিব রাজীব সিনহা বলেন এবার থেকে অডিট কমিটি করোনা মৃত্যুর পরিসংখ্যান বিষয়ে আরও সজাগ থাকবে এবং বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে তথ্য খতিয়ে দেখা হবে।

বৃহস্পতিবারই রাজ্য সরকারের তরফ থেকে সর্বশেষ কোভিড- ১৯ পরিসংখ্যান দেওয়া হয়। তাতে বলা হয়, রাজ্যে এখনও পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়ে ৩৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর সঙ্গে রয়েছেন আরও ৭২ জন। তবে তাঁরা কোভিড-১৯ আক্রান্ত হলেও মারা গিয়েছেন কোমোর্বিডিটির কারণে। তিনি আরও জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে ৩৭ জন আক্রান্ত হয়েছে করোনায়। এর ফলে রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৫৭২। সুস্থ হয়ে গিয়েছেন ১৩৯ জন। রাজ্য সরকারের তরফে আরও জানানো হয়েছে এখনও পর্যন্ত ১৬,৫২৫ জনের শরীরে করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে।